ঢাকা ০৬:২৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
মেট্রোরেল স্টেশনের ধ্বংসলীলা দেখে কাঁদলেন প্রধানমন্ত্রী রুশ এমআই-২৮ সামরিক হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত মস্কোর দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থিত কালুগা অঞ্চলে আজ বৃহস্পতিবার হেলিকপ্টারটি বিধ্বস্ত হয় কে হামলা চালাবে—বিএনপির নীল নকশা আগেই প্রস্তুত ছিল: কাদের ৪ দিন কোথায় কী অবস্থায় ছিলেন সমন্বয়ক আসিফ সারা দেশে হাজারো প্রাণ কেড়ে নেওয়ার ব্যাপারে সরকার কোনো কথা বলছে না: মির্জা ফখরুল সব ধরনের সহিংসতার হুমকি দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্র ডিএমপির তিন যুগ্ম-কমিশনারকে স্থান বদলি বাসে আগুন দিতে ৪ লাখ টাকায় চুক্তি, শ্রমিক লীগ নেতা গ্রেপ্তার রোকেয়া হলে ছাত্রলীগ নেত্রীদের হলছাড়া করল আন্দোলনকারীরা আন্দোলনকারীদের মৃত্যুর জন্য সরকারের পক্ষ থেকে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে হবে, ৩৩ নাগরিকের বিবৃতি বিবৃতিতে বলা হয়, দাবি আদায় করতে হয় জীবনের বিনিময়ে বা দমন করতে হয় হত্যা করে

কৌশলগত প্রতিরক্ষা চুক্তি সই পুতিনের উত্তর কোরিয়া সফর

  • আপডেট টাইম : ০৫:২১:১২ অপরাহ্ণ, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪
  • / ৪০ ৫০০.০০০ বার পাঠক

বুধবার পুতিন ও উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং-উনের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হয়। সেখানে এই চুক্তিতে সই করেন দুই নেতা
বুধবার পুতিন ও উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং-উনের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হয়। সেখানে এই চুক্তিতে সই করেন দুই নেতাছবি: রয়টার্স
রাশিয়া ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যে একটি সার্বিক কৌশলগত অংশীদারত্ব চুক্তি সই হয়েছে। চুক্তিতে কোনো পক্ষ আগ্রাসনের শিকার হলে পারস্পরিক সহযোগিতার কথা বলা হয়েছে। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের পিয়ংইয়ং সফরকালে দৃশ্যত এ প্রতিরক্ষা চুক্তি সই হয়।

দুই দিনের সফরে গতকাল মঙ্গলবার স্থানীয় সময় দিবাগত রাত তিনটার দিকে পিয়ংইয়ং বিমানবন্দরে পৌঁছান পুতিন। বুধবার পুতিন ও উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং-উনের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হয়। সেখানে এই চুক্তিতে সই করেন দুই নেতা।

বৈঠক শেষে পুতিন বলেন, দুই দেশের মধ্যে সার্বিক অংশীদারত্ব চুক্তি সই হয়েছে। এতে আগ্রাসনের শিকার হলে পারস্পরিক সহযোগিতার কথা বলা হয়েছে। উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে সামরিক কারিগরি সহযোগিতা গড়ে তোলার বিষয়টিও নাকচ করেননি তিনি।

এ সময় ইউক্রেনকে দূরপাল্লার অস্ত্র ও এফ-১৬ যুদ্ধবিমান সরবরাহ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও দেশটির নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট ন্যাটোর অন্য সদস্যদের দেওয়া সাম্প্রতিক বক্তব্যের প্রসঙ্গও টানেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট।

এ সময় কিম জং-উন বলেন, তাঁর দেশ কিংবা রাশিয়া কোনো ধরনের ‘ঘটনা বা যুদ্ধের’ মুখে পড়লে কোনো দ্বিধা ছাড়াই এর জবাব দেবে উত্তর কোরিয়া। অবশ্য ‘ঘটনা’ বলতে কী বোঝাতে চেয়েছেন, তা স্পষ্ট করেননি কিম।

উত্তর কোরীয় নেতা আরও বলেন, উত্তর কোরিয়া ও রাশিয়ার মধ্যে সম্পর্ক ‘জোটগত নতুন উচ্চতায়’ উন্নীত হয়েছে। দুই দেশের মধ্যে সই হওয়া চুক্তিকে ‘সম্পূর্ণ শান্তিপূর্ণ ও আত্মরক্ষামূলক’ বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

মস্কোকে হুঁশিয়ারি দক্ষিণ কোরিয়ার

এদিকে, উত্তর কোরিয়া ও রাশিয়ার মধ্যে সামরিক সহযোগিতা নিয়ে নতুন চুক্তির বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই মস্কোর প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে দক্ষিণ কোরিয়া। এ অবস্থায় ‘নির্দিষ্ট সীমা অতিক্রম না করতে’ রাশিয়াকে সতর্ক করেছেন দক্ষিণ কোরিয়ার জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা চ্যাং হো-জিন।

একসময় মস্কোয় দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত হিসেবে কাজ করা চ্যাং বলেন, ‘ইউক্রেন যুদ্ধ শেষ হলে উত্তর কোরিয়া ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে ভবিষ্যতে নিজেদের জন্য কোনটি বেশি গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা দেবে, তা রাশিয়াকে বিবেচনায় নিতে হবে।’

উল্লেখ্য, সামরিক সহায়তার জন্য দক্ষিণ কোরিয়ার কাছে ধরনা দিয়েছিল ইউক্রেন। কিন্তু দক্ষিণ কোরিয়া তাতে সম্মত হয়নি। তাই এখন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, ইউক্রেনকে সামরিক সহায়তা পাঠানোর বিষয়ে দক্ষিণ কোরিয়া নিজেদের অবস্থান পরিবর্তনের কথা চিন্তা করবে কি না।

পুতিন শেষ উত্তর কোরিয়া সফরে এসেছিলেন ২৪ বছর আগে ২০০০ সালের জুলাইয়ে। গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে রাশিয়া সফরে গিয়েছিলেন উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং-উন। তখন তিনি পুতিনকে পিয়ংইয়ংয়ে আমন্ত্রণ জানান। সেই আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে দেশটি সফরে এসেছেন পুতিন।

জমকালো আয়োজনে পুতিনকে স্বাগত জানিয়েছে উত্তর কোরিয়া। পিয়ংইয়ংজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে উৎসবের আমেজ। দুই দেশের পতাকা, লাল গোলাপ, বেলুন এবং পুতিন ও কিমের বিশাল বিশাল ছবি দিয়ে পুরো রাজধানী সাজিয়ে ফেলা হয়।

বিমানবন্দরে পুতিনকে দেওয়া হয় লালগালিচা সংবর্ধনা। লাল গোলাপ দিয়ে তাঁকে বরণ করা হয়। স্থানীয় সময় গতকাল সকালে কিম ইল সাং স্কয়ারে পুতিনকে গার্ড অব অনার দেওয়া হয়।

কিম ইল সাং স্কয়ারে গার্ড অব অনার শেষে কিম ও পুতিন কুমসুসান প্যালেসে যান। সেখানে দুই নেতা বৈঠক করেন। সেখানে দুই দেশের মধ্যে সার্বিক কৌশলগত অংশীদারত্ব চুক্তি সই হয় বলে জানায় রুশ সংবাদমাধ্যম আরআইএ।

এবার পুতিন এমন এক সময়ে উত্তর কোরিয়া সফরে এসেছেন, যখন উভয় দেশই আন্তর্জাতিক অঙ্গন থেকে অনেকটা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। দুই দেশকে মোকাবিলা করতে হচ্ছে নানা পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞা।

আরো খবর.......

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

কৌশলগত প্রতিরক্ষা চুক্তি সই পুতিনের উত্তর কোরিয়া সফর

আপডেট টাইম : ০৫:২১:১২ অপরাহ্ণ, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪

বুধবার পুতিন ও উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং-উনের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হয়। সেখানে এই চুক্তিতে সই করেন দুই নেতা
বুধবার পুতিন ও উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং-উনের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হয়। সেখানে এই চুক্তিতে সই করেন দুই নেতাছবি: রয়টার্স
রাশিয়া ও উত্তর কোরিয়ার মধ্যে একটি সার্বিক কৌশলগত অংশীদারত্ব চুক্তি সই হয়েছে। চুক্তিতে কোনো পক্ষ আগ্রাসনের শিকার হলে পারস্পরিক সহযোগিতার কথা বলা হয়েছে। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের পিয়ংইয়ং সফরকালে দৃশ্যত এ প্রতিরক্ষা চুক্তি সই হয়।

দুই দিনের সফরে গতকাল মঙ্গলবার স্থানীয় সময় দিবাগত রাত তিনটার দিকে পিয়ংইয়ং বিমানবন্দরে পৌঁছান পুতিন। বুধবার পুতিন ও উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং-উনের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হয়। সেখানে এই চুক্তিতে সই করেন দুই নেতা।

বৈঠক শেষে পুতিন বলেন, দুই দেশের মধ্যে সার্বিক অংশীদারত্ব চুক্তি সই হয়েছে। এতে আগ্রাসনের শিকার হলে পারস্পরিক সহযোগিতার কথা বলা হয়েছে। উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে সামরিক কারিগরি সহযোগিতা গড়ে তোলার বিষয়টিও নাকচ করেননি তিনি।

এ সময় ইউক্রেনকে দূরপাল্লার অস্ত্র ও এফ-১৬ যুদ্ধবিমান সরবরাহ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও দেশটির নেতৃত্বাধীন সামরিক জোট ন্যাটোর অন্য সদস্যদের দেওয়া সাম্প্রতিক বক্তব্যের প্রসঙ্গও টানেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট।

এ সময় কিম জং-উন বলেন, তাঁর দেশ কিংবা রাশিয়া কোনো ধরনের ‘ঘটনা বা যুদ্ধের’ মুখে পড়লে কোনো দ্বিধা ছাড়াই এর জবাব দেবে উত্তর কোরিয়া। অবশ্য ‘ঘটনা’ বলতে কী বোঝাতে চেয়েছেন, তা স্পষ্ট করেননি কিম।

উত্তর কোরীয় নেতা আরও বলেন, উত্তর কোরিয়া ও রাশিয়ার মধ্যে সম্পর্ক ‘জোটগত নতুন উচ্চতায়’ উন্নীত হয়েছে। দুই দেশের মধ্যে সই হওয়া চুক্তিকে ‘সম্পূর্ণ শান্তিপূর্ণ ও আত্মরক্ষামূলক’ বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

মস্কোকে হুঁশিয়ারি দক্ষিণ কোরিয়ার

এদিকে, উত্তর কোরিয়া ও রাশিয়ার মধ্যে সামরিক সহযোগিতা নিয়ে নতুন চুক্তির বিষয়টি প্রকাশ্যে আসতেই মস্কোর প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছে দক্ষিণ কোরিয়া। এ অবস্থায় ‘নির্দিষ্ট সীমা অতিক্রম না করতে’ রাশিয়াকে সতর্ক করেছেন দক্ষিণ কোরিয়ার জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা চ্যাং হো-জিন।

একসময় মস্কোয় দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত হিসেবে কাজ করা চ্যাং বলেন, ‘ইউক্রেন যুদ্ধ শেষ হলে উত্তর কোরিয়া ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে ভবিষ্যতে নিজেদের জন্য কোনটি বেশি গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা দেবে, তা রাশিয়াকে বিবেচনায় নিতে হবে।’

উল্লেখ্য, সামরিক সহায়তার জন্য দক্ষিণ কোরিয়ার কাছে ধরনা দিয়েছিল ইউক্রেন। কিন্তু দক্ষিণ কোরিয়া তাতে সম্মত হয়নি। তাই এখন প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, ইউক্রেনকে সামরিক সহায়তা পাঠানোর বিষয়ে দক্ষিণ কোরিয়া নিজেদের অবস্থান পরিবর্তনের কথা চিন্তা করবে কি না।

পুতিন শেষ উত্তর কোরিয়া সফরে এসেছিলেন ২৪ বছর আগে ২০০০ সালের জুলাইয়ে। গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে রাশিয়া সফরে গিয়েছিলেন উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং-উন। তখন তিনি পুতিনকে পিয়ংইয়ংয়ে আমন্ত্রণ জানান। সেই আমন্ত্রণে সাড়া দিয়ে দেশটি সফরে এসেছেন পুতিন।

জমকালো আয়োজনে পুতিনকে স্বাগত জানিয়েছে উত্তর কোরিয়া। পিয়ংইয়ংজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে উৎসবের আমেজ। দুই দেশের পতাকা, লাল গোলাপ, বেলুন এবং পুতিন ও কিমের বিশাল বিশাল ছবি দিয়ে পুরো রাজধানী সাজিয়ে ফেলা হয়।

বিমানবন্দরে পুতিনকে দেওয়া হয় লালগালিচা সংবর্ধনা। লাল গোলাপ দিয়ে তাঁকে বরণ করা হয়। স্থানীয় সময় গতকাল সকালে কিম ইল সাং স্কয়ারে পুতিনকে গার্ড অব অনার দেওয়া হয়।

কিম ইল সাং স্কয়ারে গার্ড অব অনার শেষে কিম ও পুতিন কুমসুসান প্যালেসে যান। সেখানে দুই নেতা বৈঠক করেন। সেখানে দুই দেশের মধ্যে সার্বিক কৌশলগত অংশীদারত্ব চুক্তি সই হয় বলে জানায় রুশ সংবাদমাধ্যম আরআইএ।

এবার পুতিন এমন এক সময়ে উত্তর কোরিয়া সফরে এসেছেন, যখন উভয় দেশই আন্তর্জাতিক অঙ্গন থেকে অনেকটা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। দুই দেশকে মোকাবিলা করতে হচ্ছে নানা পশ্চিমা নিষেধাজ্ঞা।