ঢাকা ০৯:১১ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২
সংবাদ শিরোনাম ::
গাজীপুর মহানগর পুলিশ কর্তৃক ২৪ ঘন্টার উদ্ধার অভিযান আত্রাইয়ে থানাপুলিশ অভিযান চালিয়ে ২৫০গ্রাম গাঁজাসহ আটক এক সাভারে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে অপ-প্রচারের প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ কিশোরের হত্যাকান্ডকে আত্মহত্যা হিসেবে প্রচারণা,করায় মা ও তার, মামা গ্রেফতার গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ২ নং ওয়ার্ডে রাস্তা ঘাটের ব্যাপক উন্নয়ন নাজিরপুরে হার্ডওয়্যার এর দোকানে বৈদ্যুতিক সর্ট সার্কিটে আগুন পূর্বের বিরোধকে কেন্দ্র করে স্ব মিলে আগুন দেওয়ার অভিযোগ মংলা উপজেলার মিঠু ফকির আর নেই মোংলায় নাসা অ্যাপস চ্যালেঞ্জ বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন দলনেতা সুমিত’র সংবর্ধনা স্বামী ছাড়া পাগলী এখন সন্তানের জননী

ঠাকুরগাঁওয়ে  কিশোরীর সাথে রাত কাটাতে গিয়ে ধরা পড়ল ডাক্তার জিল্লুর রহমান সুমন

আব্দুল্লাহ্ আল সুমন বিশেষ প্রতিনিধি (ঠাকুরগাঁও)।। ডাক্তার জিল্লুর রহমান সুমন। দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতালের কর্মরত সার্জারি  বিশেষজ্ঞ। একজন স্ত্রী থাকার পরেও পরকিয়ার মাধ্যমে অন্য আরেকটি কিশোরীরর সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন প্রেমের সম্পর্কে। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন জায়গায় রাত কাটিয়েছেন তিনি।

কিন্তু কতোদিন আর করবেন চুরি। অবশেষে সেই কিশোরীর সঙ্গে রাত কাটাতে গিয়ে স্থানীয়দের কাছে আটকা পড়লেন তিনি। রোববার রাতে সেই কিশোরীর বাসায় গিয়ে স্থানীয়দের কাছে আটকে যায় চিকিৎসক।

সোমবার(২৪ মে) এমনি একটি ভিডিও ভাইরাল হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে। তবে আটকের পর চিকিৎসক সুমন ওই কিশোরীকে বিয়ে করতে রাজি হয়েছেন।

আটককৃত চিকিৎসক জিল্লুর রহমান সুমনের বাসা ঠাকুরগাঁও শহরের পূর্ব গোয়ালপাড়া এলাকায় ও সেই কিশোরী ঠাকুরগাঁও পীরগঞ্জ উপজেলার বেগুনগাঁও ৬ নং ইউনিয়নের বাসিন্দা।

ভিডিওটিতে সেই কিশোরী(২১) বলেন,দীর্ঘদিন ধরেই চিকিৎসক সুমনের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। স্ত্রীর পরিচয় গোপন রেখে তার সাথে প্রেমের সম্পর্ক করেন এই চিকিৎসক। এরপর স্বামী-স্ত্রীর পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন আবাসিক হোটেল সহ ভাড়া বাড়িতেও থেকেছেন তারা। কিন্তু সে আমাকে বিয়ে সহজে করতে চায়না। শুধু একের পর এক তারিখ বলেই যায়।  অবশেষে যানতে পাড়ি সুমনের এর আগে একজন বউ রয়েছে। সে আমার সব কিছু নিয়ে নিলো,এখন শুনছি তার বউ আছে। আমি তাকে বিয়ে করবো। করন সে আমার সব নিয়ে নিছে।

ভিডিওতে চিকিৎসক সুমন বিষয়টি স্বীকার করে বলেন,আমি বিয়ে করতে রাজি রয়েছি। তবে এর আগে এফিডেবিট করা হয়েছিলো।

তবে চিকিৎসক জিল্লুর রহমানের মুঠোফোনে ফোন করা হলে তিনি এ বিষয়ে কোন কথা বলতে রাজি হয়নি।

এ বিষয়ে পীরগঞ্জ থানার ওসি প্রদীপ কুমার জানান, চিকিৎসককে মেয়েসহ আটকের কথা বলা হচ্ছে তা শুনেছি। তাদের প্রেমের সম্পর্ক ছিল বলে জানা গেছে। এ বিষয়ে আমাদেরকে কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে পুলিশ আইনগত ব্যবস্থা নিবে।

আরো খবর.......
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

গাজীপুর মহানগর পুলিশ কর্তৃক ২৪ ঘন্টার উদ্ধার অভিযান

ঠাকুরগাঁওয়ে  কিশোরীর সাথে রাত কাটাতে গিয়ে ধরা পড়ল ডাক্তার জিল্লুর রহমান সুমন

আপডেট টাইম : ১১:১৯:৪১ পূর্বাহ্ণ, মঙ্গলবার, ২৫ মে ২০২১

আব্দুল্লাহ্ আল সুমন বিশেষ প্রতিনিধি (ঠাকুরগাঁও)।। ডাক্তার জিল্লুর রহমান সুমন। দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতালের কর্মরত সার্জারি  বিশেষজ্ঞ। একজন স্ত্রী থাকার পরেও পরকিয়ার মাধ্যমে অন্য আরেকটি কিশোরীরর সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন প্রেমের সম্পর্কে। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন জায়গায় রাত কাটিয়েছেন তিনি।

কিন্তু কতোদিন আর করবেন চুরি। অবশেষে সেই কিশোরীর সঙ্গে রাত কাটাতে গিয়ে স্থানীয়দের কাছে আটকা পড়লেন তিনি। রোববার রাতে সেই কিশোরীর বাসায় গিয়ে স্থানীয়দের কাছে আটকে যায় চিকিৎসক।

সোমবার(২৪ মে) এমনি একটি ভিডিও ভাইরাল হয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে। তবে আটকের পর চিকিৎসক সুমন ওই কিশোরীকে বিয়ে করতে রাজি হয়েছেন।

আটককৃত চিকিৎসক জিল্লুর রহমান সুমনের বাসা ঠাকুরগাঁও শহরের পূর্ব গোয়ালপাড়া এলাকায় ও সেই কিশোরী ঠাকুরগাঁও পীরগঞ্জ উপজেলার বেগুনগাঁও ৬ নং ইউনিয়নের বাসিন্দা।

ভিডিওটিতে সেই কিশোরী(২১) বলেন,দীর্ঘদিন ধরেই চিকিৎসক সুমনের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে। স্ত্রীর পরিচয় গোপন রেখে তার সাথে প্রেমের সম্পর্ক করেন এই চিকিৎসক। এরপর স্বামী-স্ত্রীর পরিচয় দিয়ে বিভিন্ন আবাসিক হোটেল সহ ভাড়া বাড়িতেও থেকেছেন তারা। কিন্তু সে আমাকে বিয়ে সহজে করতে চায়না। শুধু একের পর এক তারিখ বলেই যায়।  অবশেষে যানতে পাড়ি সুমনের এর আগে একজন বউ রয়েছে। সে আমার সব কিছু নিয়ে নিলো,এখন শুনছি তার বউ আছে। আমি তাকে বিয়ে করবো। করন সে আমার সব নিয়ে নিছে।

ভিডিওতে চিকিৎসক সুমন বিষয়টি স্বীকার করে বলেন,আমি বিয়ে করতে রাজি রয়েছি। তবে এর আগে এফিডেবিট করা হয়েছিলো।

তবে চিকিৎসক জিল্লুর রহমানের মুঠোফোনে ফোন করা হলে তিনি এ বিষয়ে কোন কথা বলতে রাজি হয়নি।

এ বিষয়ে পীরগঞ্জ থানার ওসি প্রদীপ কুমার জানান, চিকিৎসককে মেয়েসহ আটকের কথা বলা হচ্ছে তা শুনেছি। তাদের প্রেমের সম্পর্ক ছিল বলে জানা গেছে। এ বিষয়ে আমাদেরকে কেউ অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে পুলিশ আইনগত ব্যবস্থা নিবে।