ঢাকা ০৮:৩১ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩
সংবাদ শিরোনাম ::
রংপুর পীরগঞ্জের বড় আলমপুর ইউনিয়নের বর্ষপুতিতে কর্মী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হামলা চালিয়ে ভাঙ্চুর, মারপিট, টাকা ও অলঙ্কার লুট করে উল্টো হাসপাতালে ভর্তি হিরো আলমকে সমর্থন নতুনধারার ঢাকাস্থ ভাটারা সমিতির সহযোগিতায় জামালপুরে শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ প্রভাবশালীর অত্যাচারে ৬ মাস বাড়ি ছাড়া বিচারের দাবিতে পথে পথে অসহায় পরিবার দুটি নাসিরনগরে বাস ও অটোরিক্সার মুখোমুখি সংঘর্ষে ৯ জন আহত বান্দরবানের পাহাড়ের ঢালুতে বানিজ্যিক ভাবে চাষ হচ্ছে ঠান্ডা আলু বাংলাদেশ একটি সফল উন্নয়নের গল্প: বিশ্ব ব্যাংক বিরামপুর রেলস্টেশনে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান। টাকার অভাবে চিকিৎসা করতে পারছে না প্রতিবন্ধী জাকারিয়া। মোঃ আসাদুজ্জামান

করুনারত্নে-ওশাদার ব্যাটে শ্রীলঙ্কার ড্র

সময়ের কন্ঠ রিপোর্ট।।

শেষ দিনের উইকেট ভীষণ মন্থর, কিন্তু টার্ন ততটা নেই। পেসারদের জন্য নেই সুইং-বাউন্স। ব্যাটসম্যানদের কাজ শুধু উইকেটে পড়ে থাকা। দিমুথ করুনারত্নে, ওশাদা ফার্নান্দো সেটিই করলেন দারুণভাবে। শেষ দিনের সম্ভাব্য রোমাঞ্চে কিছুটা জল ঢেলে দিল বৃষ্টিও। ওয়েস্ট ইন্ডিজ-শ্রীলঙ্কার শেষের লড়াই তাই আর জমল না সেভাবে।

অ্যান্টিগা টেস্টের শেষ দিনে উত্তেজনার রসদ থাকলেও শেষ পর্যন্ত ম্যাচ নিষ্প্রাণ ড্র। প্রথম টেস্টও দেখেছিল একই ফল। দুই ম্যাচের সিরিজও তাই ড্র।

শেষ দিনে শুক্রবার শ্রীলঙ্কার প্রয়োজন ছিল ৩৪৮ রান। অনেকটা ধরাছোঁয়ার বাইরে। তাদের লড়াই ছিল ম্যাচ বাঁচানোর। ওয়েস্ট ইন্ডিজের ১০ উইকেট নেওয়ার সম্ভাবনাই ছিল বেশি। কিন্তু প্রাণহীন উইকেটে পেরে ওঠেননি ক্যারিবিয়ান বোলাররা। ফাস্ট বোলার শ্যানন গ্যাব্রিয়েলের হ্যামস্ট্রিংয়ে টান লাগায়ও কমে যায় বোলিংয়ের শক্তি। বৃষ্টি তো ছিলই।

ড্রয়ের আগে দ্বিতীয় ইনিংসে ৭৯ ওভারে ২ উইকেটে ১৯৩ রান করতে পারে শ্রীলঙ্কা।

সিরিজে আগের তিন ইনিংস মিলিয়ে ১৬ রান করার পর এবার লঙ্কান অধিনায়ক করুনারত্নে খেলে ৭৫ রানের ইনিংস। তিনে নেমে ওশাদা অপরাজিত থেকে যান ৬৬ রানে।

লঙ্কানদের লড়াইয়ের তাড়না বুঝিয়ে দেয় লাহিরু থিরিমান্নে ও করুনারত্নের উদ্বোধনী জুটিই। ২৩২ বলে ১০১ রানের জুটি গড়েন দুজন।

যদিও জুটি ভাঙতে পারত আগেই। দিনের তৃতীয় ওভারেই সুযোগ দিয়েছিলেন থিরিমান্নে। গ্যাব্রিয়েলের বলে উইকেটের পেছনে নেই ক্যাচ নিতে পারেননি জশুয়া দা সিলভা। আর সুযোগ দেয়নি এই জুটি।

সিরিজে টানা তিন ফিফটির পর থিরিমান্নে এবার আউট হন ৩৯ রান করে।

করুনারত্নে দীর্ঘসময় টিকে থাকেন অস্বস্তি নিয়ে। ছন্দ পাচ্ছিলেন না। তবু টিকে থাকেন লড়াই করে। পরে খুঁজে পান নিজেকে। ওশাদার সঙ্গে জুটিতে ১০৫ বল টিকে থেকেই অনেকটা নিশ্চিত করে দেন ড্র।

চার ঘণ্টার বেশি সময় উইকেটে কাটিয়ে ১৭৬ বলে ৭৫ রান করে শেষ হয় করুনারত্নের প্রতিরোধ।

ওশাদা ও দিনেশ চান্দিমাল এরপর নির্বিঘ্নে কাটিয়ে দেন সময়। ওশাদা অপরাজিত থাকেন ১১৯ বলে ৮ চারে ৬৬ রান করে।

দুই ইনিংসে ১২৬ ও ৮৫ রানের ইনিংস খেলে ম্যাচের সেরা ক্যারিবিয়ান অধিনায়ক ব্র্যাথওয়েট। পেস প্রতিকূল উইকেটও দারুণ বোলিংয়ে ১১ উইকেট নিয়ে সিরিজের সেরা লঙ্কান পেসার সুরাঙ্গা লাকমল।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১ম ইনিংস : ৩৫৪

শ্রীলঙ্কা ১ম ইনিংস : ২৫৮

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২য় ইনিংস : ২৮০/৪ (ডি.)

শ্রীলঙ্কা ২য় ইনিংস : (লক্ষ্য ৩৭৭, আগের দিন ২৯/০) ৭৯ ওভারে ১৯৩/২ (থিরিমান্নে ৩৯, করুনারত্নে ৭৫, ওশাদা ৬৬*, চান্দিমাল ১০*; রোচ ১২-২-৩৩-০, হোল্ডার ১০-৩-২৪-০, কর্নওয়াল ২৬.৪-৮-৫৩-০, গ্যাব্রিয়েল ৫.২-০-২০-০, জোসেফ ১০-১-৩৩-১, ব্ল্যাকউড ৬-১-১৭-০, ব্র্যাথওয়েট ৩-০-৭-০, মেয়ার্স ৬-৪-৫-১)।

ফল : ম্যাচ ড্র।

সিরিজ : ২ ম্যাচের সিরিজ ০-০ ড্র্।

ম্যান অব দা ম্যাচ : ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েট।

ম্যান অব দা সিরিজ : সুরাঙ্গা লাকমল।

আরো খবর.......
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

রংপুর পীরগঞ্জের বড় আলমপুর ইউনিয়নের বর্ষপুতিতে কর্মী সমাবেশ অনুষ্ঠিত

করুনারত্নে-ওশাদার ব্যাটে শ্রীলঙ্কার ড্র

আপডেট টাইম : ০৬:৩৮:০৭ পূর্বাহ্ণ, শনিবার, ৩ এপ্রিল ২০২১

সময়ের কন্ঠ রিপোর্ট।।

শেষ দিনের উইকেট ভীষণ মন্থর, কিন্তু টার্ন ততটা নেই। পেসারদের জন্য নেই সুইং-বাউন্স। ব্যাটসম্যানদের কাজ শুধু উইকেটে পড়ে থাকা। দিমুথ করুনারত্নে, ওশাদা ফার্নান্দো সেটিই করলেন দারুণভাবে। শেষ দিনের সম্ভাব্য রোমাঞ্চে কিছুটা জল ঢেলে দিল বৃষ্টিও। ওয়েস্ট ইন্ডিজ-শ্রীলঙ্কার শেষের লড়াই তাই আর জমল না সেভাবে।

অ্যান্টিগা টেস্টের শেষ দিনে উত্তেজনার রসদ থাকলেও শেষ পর্যন্ত ম্যাচ নিষ্প্রাণ ড্র। প্রথম টেস্টও দেখেছিল একই ফল। দুই ম্যাচের সিরিজও তাই ড্র।

শেষ দিনে শুক্রবার শ্রীলঙ্কার প্রয়োজন ছিল ৩৪৮ রান। অনেকটা ধরাছোঁয়ার বাইরে। তাদের লড়াই ছিল ম্যাচ বাঁচানোর। ওয়েস্ট ইন্ডিজের ১০ উইকেট নেওয়ার সম্ভাবনাই ছিল বেশি। কিন্তু প্রাণহীন উইকেটে পেরে ওঠেননি ক্যারিবিয়ান বোলাররা। ফাস্ট বোলার শ্যানন গ্যাব্রিয়েলের হ্যামস্ট্রিংয়ে টান লাগায়ও কমে যায় বোলিংয়ের শক্তি। বৃষ্টি তো ছিলই।

ড্রয়ের আগে দ্বিতীয় ইনিংসে ৭৯ ওভারে ২ উইকেটে ১৯৩ রান করতে পারে শ্রীলঙ্কা।

সিরিজে আগের তিন ইনিংস মিলিয়ে ১৬ রান করার পর এবার লঙ্কান অধিনায়ক করুনারত্নে খেলে ৭৫ রানের ইনিংস। তিনে নেমে ওশাদা অপরাজিত থেকে যান ৬৬ রানে।

লঙ্কানদের লড়াইয়ের তাড়না বুঝিয়ে দেয় লাহিরু থিরিমান্নে ও করুনারত্নের উদ্বোধনী জুটিই। ২৩২ বলে ১০১ রানের জুটি গড়েন দুজন।

যদিও জুটি ভাঙতে পারত আগেই। দিনের তৃতীয় ওভারেই সুযোগ দিয়েছিলেন থিরিমান্নে। গ্যাব্রিয়েলের বলে উইকেটের পেছনে নেই ক্যাচ নিতে পারেননি জশুয়া দা সিলভা। আর সুযোগ দেয়নি এই জুটি।

সিরিজে টানা তিন ফিফটির পর থিরিমান্নে এবার আউট হন ৩৯ রান করে।

করুনারত্নে দীর্ঘসময় টিকে থাকেন অস্বস্তি নিয়ে। ছন্দ পাচ্ছিলেন না। তবু টিকে থাকেন লড়াই করে। পরে খুঁজে পান নিজেকে। ওশাদার সঙ্গে জুটিতে ১০৫ বল টিকে থেকেই অনেকটা নিশ্চিত করে দেন ড্র।

চার ঘণ্টার বেশি সময় উইকেটে কাটিয়ে ১৭৬ বলে ৭৫ রান করে শেষ হয় করুনারত্নের প্রতিরোধ।

ওশাদা ও দিনেশ চান্দিমাল এরপর নির্বিঘ্নে কাটিয়ে দেন সময়। ওশাদা অপরাজিত থাকেন ১১৯ বলে ৮ চারে ৬৬ রান করে।

দুই ইনিংসে ১২৬ ও ৮৫ রানের ইনিংস খেলে ম্যাচের সেরা ক্যারিবিয়ান অধিনায়ক ব্র্যাথওয়েট। পেস প্রতিকূল উইকেটও দারুণ বোলিংয়ে ১১ উইকেট নিয়ে সিরিজের সেরা লঙ্কান পেসার সুরাঙ্গা লাকমল।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১ম ইনিংস : ৩৫৪

শ্রীলঙ্কা ১ম ইনিংস : ২৫৮

ওয়েস্ট ইন্ডিজ ২য় ইনিংস : ২৮০/৪ (ডি.)

শ্রীলঙ্কা ২য় ইনিংস : (লক্ষ্য ৩৭৭, আগের দিন ২৯/০) ৭৯ ওভারে ১৯৩/২ (থিরিমান্নে ৩৯, করুনারত্নে ৭৫, ওশাদা ৬৬*, চান্দিমাল ১০*; রোচ ১২-২-৩৩-০, হোল্ডার ১০-৩-২৪-০, কর্নওয়াল ২৬.৪-৮-৫৩-০, গ্যাব্রিয়েল ৫.২-০-২০-০, জোসেফ ১০-১-৩৩-১, ব্ল্যাকউড ৬-১-১৭-০, ব্র্যাথওয়েট ৩-০-৭-০, মেয়ার্স ৬-৪-৫-১)।

ফল : ম্যাচ ড্র।

সিরিজ : ২ ম্যাচের সিরিজ ০-০ ড্র্।

ম্যান অব দা ম্যাচ : ক্রেইগ ব্র্যাথওয়েট।

ম্যান অব দা সিরিজ : সুরাঙ্গা লাকমল।