1. [email protected] : admi2017 :
শনিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২২, ০৮:৪৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
কয়লার দাম ঊর্ধ্বগতিতে নিঃস্ব হতে চলেছে ভাটা মালিক আত্রাইয়ে বাইসাইকেল ও কম্বল বিতরণ বিয়ের পিঁড়িতে বসলেন টাঙ্গাইল-২ আসনের আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য তানভীর হাসান ছোট মনির। গাজীপুরে আলহাজ্ব মজলিশে খান ফাউন্ডেশন নামক একটি মানব সেবা মূলক প্রতিষ্ঠান এর শুভ উদ্বোধন বাঘায় ভুটভুটি উল্টে নিহত ১ ওয়াদা করেন ক্ষমতায় গেলে অর্ধেক আসন দিয়ে দেবেন: ডা. জাফরুল্লাহ ২৭ ঘণ্টা উত্তাল সমুদ্রে সাঁতরে বেঁচে ফেরার গল্প (ভিডিও) যে কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছেন, জানালেন দীপু মনি মাহমুদউল্লাহ-শেহজাদ ঝড়ে ঢাকার বড় সংগ্রহ নাগা চৈতন্যের সঙ্গে ফের এক হওয়ার ইঙ্গিত দিলেন সামান্থা?

পোশাকশ্রমিকরা বছরে গ্রামে পাঠায় ১২ হাজার ১৩২ কোটি টাকা ছয় বছরে আয় বেড়েছে ৬৭ শতাংশ, এশিয়ান সেন্টার ফর ডেভেলপমেন্টের জরিপ

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৭ মার্চ, ২০২১, ৮.০৭ পূর্বাহ্ণ
  • ৮৮ বার পঠিত

অর্থনৈতিক প্রতিনিধি।।

তৈরি পোশাক খাতের শ্রমিকরা গ্রামে তাদের পরিবারের সদস্যদের কাছে প্রতি মাসে ১ হাজার ১১ কোটি টাকা পাঠান। এক বছরে এর পরিমাণ ১২ হাজার ১৩২ কোটি টাকা। এটি শ্রমিকদের মোট আয়ের প্রায় ১০ শতাংশ। এশিয়ান সেন্টার ফর ডেভেলপমেন্টের (এসিডি) এক জরিপে এ তথ্য উঠে এসেছে। জরিপে বলা হয়, তৈরি পোশাক খাতের প্রায় ৬২ শতাংশ শ্রমিকই গ্রামে তাদের পরিবারের কাছে টাকা পাঠান, যার পরিমাণ শ্রমিকপ্রতি ৩ হাজার ৮৬৯ টাকা।

প্রতিবেদনে বলা হয়, গত ছয় বছরে এ খাতের শ্রমিকদের গড় আয় বেড়েছে ৬৭ শতাংশ। ২০১৪ সালে একজন শ্রমিকের গড় আয় ছিল ৬ হাজার ৮২০ টাকা আর ২০২০ সালে তা বেড়ে দাঁঁড়িয়েছে ১১ হাজার ৪০২ টাকা।

গত বছরের তথ্য-উপাত্তের ওপর ভিত্তি করে এ জরিপ প্রতিবেদন তৈরি করা হয়। ঢাকা ও চট্টগ্রামের ১৬০টি পোশাক কারখানার ১ হাজার ১১৯ জন শ্রমিকের ওপর এ জরিপ চালানো হয়। গতকাল শনিবার এক অনলাইন সেমিনারে (ওয়েবিনার) জরিপ প্রতিবেদন তুলে ধরা হয়। জরিপের বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরেন জরিপকারী দলের প্রধান ড. এ কে এনামুল হক। এ সময় তৈরি পোশাক শিল্পোদ্যোক্তা, অর্থনীতিবিদ ও সরকারের প্রতিনিধিরা প্রতিবেদনের ওপর তাদের মতামত তুলে ধরেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, এ খাতে কারখানার সংখ্যা কমলেও শ্রমিক সংখ্যা সে হারে কমেনি। বরং অনেক কারখানা আকারে বড় হয়েছে। বর্তমানে এ খাতের শ্রমিক সংখ্যা ৪২ লাখ ২০ হাজার। তবে ধীরে ধীরে কমছে নারী শ্রমিকের হার। পাঁচ বছর আগে এ হার ৬৫ শতাংশ হলেও এখন তা নেমে এসেছে ৫৯ শতাংশে। এর কারণ হিসেবে অনেককারখানা ওভেন থেকে নিটে পরিবর্তনহওয়াএবং কারখানায় প্রযুক্তির ব্যবহার বেড়ে যাওয়াকে দায়ী করা হয়েছে। অবশ্য এ খাতে শ্রমিকের সংখ্যা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন আলোচকরা। অন্যদিকে ২৪২টি কারখানার তথ্য নেওয়ার জন্য জরিপকারী দল চেষ্টা চালালেও এর মধ্যে ৮২টি কারখানা তথ্য নিতে অনুমতি দেয়নি। ফলে জরিপটি কতটুকু বিশ্বাসযোগ্য, তা নিয়েও
প্রশ্ন তুলেছেন আলোচকের কেউ কেউ।আলোচনায় অংশ নিয়ে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব কে এম আবদুস সালাম কিছু কারখানা প্রবেশের অনুমতি না দেওয়া নিয়ে বিস্ময় প্রকাশ করেন। তিনি বলেন, একটি বড় চ্যালেঞ্জ।এ সময় সিপিডির সম্মাননীয় ফেলো ড. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, যে হারে শ্রমিকের আয় বাড়ছে, তার চাইতে বেশি হারে যদি মূল্যস্ফীতি হয়, তাহলে শ্রমিকের জীবন ধারণের জন্য বাকি টাকা আসবে কোথা থেকে। এ ক্ষেত্রে তিনি শ্রমিকের লিভিং ওয়েজ বা বাঁচার মতো মজুরি কাঠামো বাস্তবায়নে গুরুত্ব দেন।

বিজিএমইএ সভাপতি ড. রুবানা হক বলেন, এটাই একমাত্র প্রাতিষ্ঠানিক খাত, যার দিকে আঙুল তোলা যায়। গত বছর বিশ্ববাজারে পোশাকের দাম বাড়েনি, বরং কমেছে প্রায় পৌনে ৫ শতাংশ। এ সময় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন পলিসি রিসার্স ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর, বাংলাদেশে ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত রেনজি তেরিঙ্ক, বাংলাদেশে আইএলওর কান্ট্রি ডিরেক্টর টুমো পুটিআইনেন প্রমুখ

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazarsomoyer14
© All rights reserved  2019-2021

Dailysomoyerkontha.com