ঢাকা ০৪:৩৩ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
ইংল্যান্ড বিএনপি’র সভাপতির সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন পিসা বিএনপি’র আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পারভেজ মোশারফ কোস্টগার্ড কর্তৃক বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান কিশোরগঞ্জে দৈনিক নাগরিক ভাবনার ৪র্থ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত যুব উন্নয়ন থেকে দর্জি বিজ্ঞান প্রশিক্ষণ নিয়ে জামালপুরের যুব মহিলারা আত্ম নির্ভরশীল এমপি হবার শিক্ষাগত যোগ্যতার প্রতিপাদ্য নিয়ে ময়মনসিংহ রেলওয়ে ষ্টেশনে চাঞ্চল্যকর খুনের প্রধান আসামী মোহাম্মদ আলী গ্রেফতার ইপিজেড থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানে(দুইশত চার) পিস ইয়াবা ট্যাবলেট সহ এক মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার পাকুন্দিয়ায় ৬ষ্ট বার্ষিকী ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্টিত টঙ্গীতে কিশোর গ্যাং লিডার মাইদুল গ্রেফতার তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে অস্ট্রিয়াতে দুই বাংলাদেশী প্রবাসীর মধ্যে মারামারি গ্রেফতার এক

ইন্দোনেশিয়ায় নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে এমআইটি’র নেতা নিহত

  • সময়ের কন্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট টাইম : ০৮:০১:৫৭ পূর্বাহ্ণ, রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • ২২০ ০.০০০ বার পাঠক

আন্তর্জাতিক রিপোর্ট।।
ইন্দোনেশিয়ার নিরাপত্তা বাহিনীগুলো জঙ্গি গোষ্ঠী ইস্ট ইন্দোনেশিয়া মুজাহিদিনের (এমআইটি) নেতাকে হত্যা করেছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

এমআইটি জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের(আইএস) সঙ্গে মিত্রতার বন্ধনে আবদ্ধ বলে রবিবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে তারা।

পুলিশের ওই বিবৃতিতে বলা হয়েছে, শনিবার বিকালে সুলাওয়েসি দ্বীপের একটি গ্রামে সামরিক বাহিনী ও পুলিশ সদস্যদের এক যৌথ অভিযান চলাকালে গোলাগুলিতে এমআইটির নেতা আলী কালোরা নিহত হয়েছেন।

পুলিশ জানিয়েছে, এ সময় জাকা রমাদান বলে শনাক্ত হওয়া ইকরিমা নামে পরিচিত আরেক জঙ্গি গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায়।

এমআইটির আরও চার সদস্যের খোঁজে অভিযান অব্যাহত আছে বলে জানিয়েছে তারা।

অভিযানে জঙ্গিদের আস্তানা থেকে বিস্ফোরক, এম১৬ রাইফেল ও দুটি চাপাতি উদ্ধার করা হয়েছে। এর পাশাপাশি জঙ্গি তৎপরতায় ব্যবহৃত আরও বহু আলামত উদ্ধার করা হয়েছে।

নিরাপত্তা বাহিনী ২০১৬ সালে এমআইটির তৎকালীন প্রধান সানতোসোকে হত্যার পর কালোরা গোষ্ঠীটি পরিচালনার দায়িত্ব নিয়েছিলেন।

ইন্দোনেশিয়ার কর্তৃপক্ষগুলোর বিশ্বাস, ২০২০ এর নবেম্বরে সুলাওয়েসির মধ্যাঞ্চলে চার গ্রামবাসীকে নৃশংসভাবে হত্যা করার পেছনে এমআইটি ছিল, যদিও গোষ্ঠীটি ওই ঘটনার দায় স্বীকার করেনি।

গোষ্ঠীটির সাবেক নেতা সানতোসো একসময় ইন্দোনেশিয়ার শীর্ষ ফেরারি ছিলেন। ইন্দোনেশিয়া থেকে আইএসের আনুগত্য স্বীকার করা প্রথম জঙ্গিদের অন্যতম ছিলেন এই সানতোসো।

ইন্দোনেশিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সন্ত্রাসবাদ বিশ্লেষক রিদওয়ান হাবিব বলেছেন, নেতার মৃত্যুতে সুলাওয়েসিভিত্তিক এমআইটি গোষ্ঠী বিলীন হয়ে যেতে পারে, তারপরও এর যে সদস্যরা পালিয়ে বেড়াচ্ছেন তারা নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে লড়াই চালিয়ে যেতে পারে বলে সন্দেহ করছেন তিনি।

ইন্দোনেশিয়ার স্বাধীনতা দিবসে হামলা করার পরিকল্পনা করছে সন্দেহে গত মাসে পুলিশ ৫৩ জঙ্গিকে গ্রেফতার করেছিল।

দেশটিতে সবচেয়ে প্রাণঘাতী জঙ্গি হামলার ঘটনাটি ঘটেছিল ২০০২ সালে পর্যটন দ্বীপ বালিতে। ওই সময় বোমা হামলায় ২০২ জন নিহত হয়েছিল, যাদের অধিকাংশই পর্যটক ছিলেন

আরো খবর.......

জনপ্রিয় সংবাদ

ইংল্যান্ড বিএনপি’র সভাপতির সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন পিসা বিএনপি’র আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পারভেজ মোশারফ

ইন্দোনেশিয়ায় নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে এমআইটি’র নেতা নিহত

আপডেট টাইম : ০৮:০১:৫৭ পূর্বাহ্ণ, রবিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

আন্তর্জাতিক রিপোর্ট।।
ইন্দোনেশিয়ার নিরাপত্তা বাহিনীগুলো জঙ্গি গোষ্ঠী ইস্ট ইন্দোনেশিয়া মুজাহিদিনের (এমআইটি) নেতাকে হত্যা করেছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

এমআইটি জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের(আইএস) সঙ্গে মিত্রতার বন্ধনে আবদ্ধ বলে রবিবার এক বিবৃতিতে জানিয়েছে তারা।

পুলিশের ওই বিবৃতিতে বলা হয়েছে, শনিবার বিকালে সুলাওয়েসি দ্বীপের একটি গ্রামে সামরিক বাহিনী ও পুলিশ সদস্যদের এক যৌথ অভিযান চলাকালে গোলাগুলিতে এমআইটির নেতা আলী কালোরা নিহত হয়েছেন।

পুলিশ জানিয়েছে, এ সময় জাকা রমাদান বলে শনাক্ত হওয়া ইকরিমা নামে পরিচিত আরেক জঙ্গি গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায়।

এমআইটির আরও চার সদস্যের খোঁজে অভিযান অব্যাহত আছে বলে জানিয়েছে তারা।

অভিযানে জঙ্গিদের আস্তানা থেকে বিস্ফোরক, এম১৬ রাইফেল ও দুটি চাপাতি উদ্ধার করা হয়েছে। এর পাশাপাশি জঙ্গি তৎপরতায় ব্যবহৃত আরও বহু আলামত উদ্ধার করা হয়েছে।

নিরাপত্তা বাহিনী ২০১৬ সালে এমআইটির তৎকালীন প্রধান সানতোসোকে হত্যার পর কালোরা গোষ্ঠীটি পরিচালনার দায়িত্ব নিয়েছিলেন।

ইন্দোনেশিয়ার কর্তৃপক্ষগুলোর বিশ্বাস, ২০২০ এর নবেম্বরে সুলাওয়েসির মধ্যাঞ্চলে চার গ্রামবাসীকে নৃশংসভাবে হত্যা করার পেছনে এমআইটি ছিল, যদিও গোষ্ঠীটি ওই ঘটনার দায় স্বীকার করেনি।

গোষ্ঠীটির সাবেক নেতা সানতোসো একসময় ইন্দোনেশিয়ার শীর্ষ ফেরারি ছিলেন। ইন্দোনেশিয়া থেকে আইএসের আনুগত্য স্বীকার করা প্রথম জঙ্গিদের অন্যতম ছিলেন এই সানতোসো।

ইন্দোনেশিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সন্ত্রাসবাদ বিশ্লেষক রিদওয়ান হাবিব বলেছেন, নেতার মৃত্যুতে সুলাওয়েসিভিত্তিক এমআইটি গোষ্ঠী বিলীন হয়ে যেতে পারে, তারপরও এর যে সদস্যরা পালিয়ে বেড়াচ্ছেন তারা নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে লড়াই চালিয়ে যেতে পারে বলে সন্দেহ করছেন তিনি।

ইন্দোনেশিয়ার স্বাধীনতা দিবসে হামলা করার পরিকল্পনা করছে সন্দেহে গত মাসে পুলিশ ৫৩ জঙ্গিকে গ্রেফতার করেছিল।

দেশটিতে সবচেয়ে প্রাণঘাতী জঙ্গি হামলার ঘটনাটি ঘটেছিল ২০০২ সালে পর্যটন দ্বীপ বালিতে। ওই সময় বোমা হামলায় ২০২ জন নিহত হয়েছিল, যাদের অধিকাংশই পর্যটক ছিলেন