ঢাকা ০৯:০৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১২ এপ্রিল ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
আগামী ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ইসরায়েলে হামলা চালাতে পারে ইরান হাজারীবাগের ঝাউচরের মোড় এলাকার অগ্নি নবনির্বাচিত আইরিশ প্রধানমন্ত্রীকে শেখ হাসিনার অভিনন্দন পাকুন্দিয়া থানা পুলিশের অভিযানে ২বছর কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামী গ্রেফতার ১ খালেদা জিয়ার বাসভবনে বিএনপির শীর্ষ নেতারা কেএনএফের প্রধান নাথান বমের স্ত্রীকে তাৎক্ষণিক বদলি রাজধানী ঢাকায় মসজিদে গাউছুল আজমে ঈদ জামাতে ফিলিস্তিন-কাশ্মীরিদের জন্য বিশেষ দোয়া নরসিংদী জেলা বাসীকে পবিত্র ঈদুল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন নরসিংদী জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত আহবায়ক কোস্টগার্ড কর্তৃক পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর উপলক্ষে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে লঞ্চ ও খেয়া ঘাট সমূহে নিরাপত্তা টহল প্রদান রাজধানীর বায়তুল মোকাররমে “মাসব্যাপী ইফতার বিতরণ কর্মসুচি-২০২৪” পালিত

রাজধানীর পল্লবী থানাধীন ৩ নং ওয়ার্ডের সবুজ বাংলা এলাকায় আইন-শৃংখলার ব্যাপক অবনতি, এ যেন দেখার কেউ নেই!

সময়ের কন্ঠ রিপোর্টার।।
রাজধানীর মিরপুরের পল্লবী থানাধীন ৩নং ওয়ার্ডের এভিনিউ-৪ সবুজ বাংলা আবাসিক এলাকাটি সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, মাদক ব্যবসায়ী ও কিশোর গ্যাং এর অত্যাচারে বসবাসের অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ব্যাপক অভিযান এর মধ্যেও থেমে নেই এই এলাকার সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড। কোন এক অদৃশ্য শক্তির বলে এই সকল সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীরা মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। এলাকার বাসিন্দারা বলেন, প্রতিটি মুহূর্তে মাদক ব্যবসায়ী ও কিশোর গ্যাং এর ভয়ে আমরা ভীতির মধ্যে থাকি। কখন কার ওপর হামলা করে ও চাঁদা চেয়ে বসে তা যেন বোঝার উপায় নেই। আর চাঁদা না দিলে বা অন্যায়ের প্রতিবাদ করলেই নেমে আসে বর্বর নির্যাতন। তাই এলাকাবাসী বলেন এই এলাকাটি এখন বেওয়ারিশ এলাকায় পরিণত হয়ে বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। এলাকাবাসীর দাবি এই এলাকার বসবাসরত মানুষগুলির শান্তি ফিরিয়ে আনতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সর্বোচ্চ গোয়েন্দা নজরদারিতে রাখা উচিত। তাহলে এই এলাকায় ফিরে আসবে শান্তির হাওয়া।

এলাকাবাসী আরো বলেন, এখনি এই সকল মাদক ব্যবসায়ী, কিশোর গ্যাং ও সন্ত্রাসীদের নির্মূল করতে না পারলে আগামীতে নির্মূল করা অসম্ভব হয়ে পড়বে। এই এলাকার মাদকসেবী ও ব্যবসায়ীদের উৎপাত নিয়ে দৈনিক যুগান্তর পত্রিকায় (২০১৯ সালের ২৪ আগস্ট) “মিরপুরের সবুজ বাংলায় মাদকসেবীদের উৎপাত” এই শিরোনামে একটি সংবাদও প্রকাশ হয়েছে। প্রকাশের পর থেকে প্রশাসনের কঠোর নজরদারিতে কিছুদিন বন্ধ থাকেলেও আবারো নতুন করে মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে এসকল মাদকসেবী, ব্যবসায়ীরা ও কিশোর গ্যাং এর সন্ত্রাসীরা। তাই এই সকল সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীদের এলাকা থেকে নির্মূল করতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে জোর দাবি জানিয়েছেন এলাকায় বসবাসরত বাসিন্দারা। আরো বিস্তারিত আসছে পত্রিকায়…….

আরো খবর.......

জনপ্রিয় সংবাদ

আগামী ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ইসরায়েলে হামলা চালাতে পারে ইরান

রাজধানীর পল্লবী থানাধীন ৩ নং ওয়ার্ডের সবুজ বাংলা এলাকায় আইন-শৃংখলার ব্যাপক অবনতি, এ যেন দেখার কেউ নেই!

আপডেট টাইম : ১০:২২:৫০ পূর্বাহ্ণ, শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১

সময়ের কন্ঠ রিপোর্টার।।
রাজধানীর মিরপুরের পল্লবী থানাধীন ৩নং ওয়ার্ডের এভিনিউ-৪ সবুজ বাংলা আবাসিক এলাকাটি সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, মাদক ব্যবসায়ী ও কিশোর গ্যাং এর অত্যাচারে বসবাসের অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর ব্যাপক অভিযান এর মধ্যেও থেমে নেই এই এলাকার সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড। কোন এক অদৃশ্য শক্তির বলে এই সকল সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীরা মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। এলাকার বাসিন্দারা বলেন, প্রতিটি মুহূর্তে মাদক ব্যবসায়ী ও কিশোর গ্যাং এর ভয়ে আমরা ভীতির মধ্যে থাকি। কখন কার ওপর হামলা করে ও চাঁদা চেয়ে বসে তা যেন বোঝার উপায় নেই। আর চাঁদা না দিলে বা অন্যায়ের প্রতিবাদ করলেই নেমে আসে বর্বর নির্যাতন। তাই এলাকাবাসী বলেন এই এলাকাটি এখন বেওয়ারিশ এলাকায় পরিণত হয়ে বসবাসের অযোগ্য হয়ে পড়েছে। এলাকাবাসীর দাবি এই এলাকার বসবাসরত মানুষগুলির শান্তি ফিরিয়ে আনতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সর্বোচ্চ গোয়েন্দা নজরদারিতে রাখা উচিত। তাহলে এই এলাকায় ফিরে আসবে শান্তির হাওয়া।

এলাকাবাসী আরো বলেন, এখনি এই সকল মাদক ব্যবসায়ী, কিশোর গ্যাং ও সন্ত্রাসীদের নির্মূল করতে না পারলে আগামীতে নির্মূল করা অসম্ভব হয়ে পড়বে। এই এলাকার মাদকসেবী ও ব্যবসায়ীদের উৎপাত নিয়ে দৈনিক যুগান্তর পত্রিকায় (২০১৯ সালের ২৪ আগস্ট) “মিরপুরের সবুজ বাংলায় মাদকসেবীদের উৎপাত” এই শিরোনামে একটি সংবাদও প্রকাশ হয়েছে। প্রকাশের পর থেকে প্রশাসনের কঠোর নজরদারিতে কিছুদিন বন্ধ থাকেলেও আবারো নতুন করে মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে এসকল মাদকসেবী, ব্যবসায়ীরা ও কিশোর গ্যাং এর সন্ত্রাসীরা। তাই এই সকল সন্ত্রাসী ও মাদক ব্যবসায়ীদের এলাকা থেকে নির্মূল করতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছে জোর দাবি জানিয়েছেন এলাকায় বসবাসরত বাসিন্দারা। আরো বিস্তারিত আসছে পত্রিকায়…….