ঢাকা ০৭:২৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
জামালপুরে কৃষিতে বেড়েছে আধুনিক যন্ত্রপাতির ব্যবহার কালিয়াকৈর বাইপাসে সড়ক দুর্ঘটনায় স্বামী স্ত্রীর মৃত্যু রায়পুরে সেপটি ট্যাংকিতে নেমে ২জনে মৃত্যু মনোহরদীতে নানা আয়োজনে বর্ষবরণ উৎসব পালিত হয়েছে ঠাকুরগাঁও। রুহিয়া ঐতিহ্যবাহী বৈশাখী মেলা করোনাভাইরাস এর কারণে বন্ধ থাকায় আবারও পাঁচ বছর পর ১০ দিনব্যাপী বৈশাখী মেলার আয়োজন করা হয়েছে রানীশংকৈলে নানা আয়োজনে বাংলা নববর্ষ উদযাপিত রায়পুরে পহেলা বৈশাখে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা নবাবগঞ্জে বাংলা নববর্ষ ১৪৩১ পালিত ঘাটাইলে ব্যবসায়ীর হাত-পায়ের রগ কেটে সর্বস্ব লুট টঙ্গীতে চাঁদা না পেয়ে ব্যবসায়ীর উপর হামলা: তদন্তে গিয়ে সিসিটিভি আবদার করলো পুলিশ!

বিএনপি নেতারা বাজেট না পড়েই বক্তব্য দিচ্ছেন

সময়ের কন্ঠ রিপোর্টার।।

বিএনপিকে বিরোধিতা করার সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, প্রতি বছর বাজেট পেশ হওয়ার আগে বিএনপি বিবৃতি রেডি করে রাখে। তাদের নেতারা মেধাবী, কিন্তু তাদের বক্তব্যে মনে হচ্ছে তারা মেধাহীন। অবশ্যই প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে তারা পরামর্শ দিতে পারেন৷ তারা বাজেট না পড়েই বক্তব্য দিচ্ছেন।

আজ রবিবার (৬ জুন) সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে নব নির্বাচিত চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির নেতাদের সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

বিএনপির বাজেট প্রতিক্রিয়া নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান বলেন, বিএনপির কাছে আমি প্রশ্ন রাখতে চাই, গত ১২ বছর ধরে তো বাজেটের পর পর আমরা তাদের সমালোচনা দেখছি। বাজেটের পর যে সমালোচনাগুলো তারা ১২ বছর ধরে করে আসছে, তা একই ধরনের সমালোচনা, একই ধরনের বক্তব্য।

তিনি বলেন, আসলে বিরোধিতার খাতিরে বিরোধিতা করা- এই যে সংস্কৃতি এটি থেকে বেরিয়ে আসা প্রয়োজন। অবশ্যই প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে যদি কোনো পরামর্শ থাকে, সেটা দিতেই পারেন। কিন্তু প্রতিবার বাজেট পেশ হওয়ার আগে বিবৃতি রেডি করে রাখা, আবার বাজেট না পড়েই সঙ্গে সঙ্গে বলে দেওয়া। এ সংস্কৃতি তারা (বিএনপি) লালন করছে। তাদের নেতারা মেধাবী, কিন্তু তাদের বক্তব্যে মনে হচ্ছে তারা মেধাহীন হয়ে গেছেন। তারা বাজেট না পড়েই বক্তব্য দিচ্ছেন।

গত ১২ বছরে দেশটা কীভাবে এগিয়ে গেল? এমন প্রশ্ন রেখে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, গত ১২ বছর আগে আমাদের বাজেটের অঙ্ক ছিল ৮৮ হাজার কোটি টাকা। এখন সেখান থেকে ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা হয়েছে। সাতগুণের বেশি বেড়েছে, এটা কীভাবে সম্ভব হয়েছে। কোনো ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের টার্নওভার বাড়ে সেই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সমৃদ্ধি বুঝায় না? গত ১২ বছরে জিডিপির আকার চার গুণে বেশি বেড়েছে- এটা কীভাবে সম্ভব হয়েছে?

মাথাপিছু আয়ে আমরা ভারতকে ছাড়িয়ে গেছি জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী ড. হাসান বলেন, আমরা যে ভারতকে ছাড়িয়ে গেলাম সেজন্য ভারতের পত্রপত্রিকা, টেলিভিশনে আলোচনার ঝড় বইছে। পাকিস্তানেও আলোচনার ঝড় বইছে। কিন্তু আমাদের ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব ও আমাদের অর্থনীতিবিদদের মুখে কোনো কথা শুনতে পেলাম না, এটা কীভাবে সম্ভবপর হলো। বিএনপির কাছে এটাই প্রশ্ন।

আরো খবর.......

জনপ্রিয় সংবাদ

জামালপুরে কৃষিতে বেড়েছে আধুনিক যন্ত্রপাতির ব্যবহার

বিএনপি নেতারা বাজেট না পড়েই বক্তব্য দিচ্ছেন

আপডেট টাইম : ১২:৫৪:০২ অপরাহ্ণ, রবিবার, ৬ জুন ২০২১

সময়ের কন্ঠ রিপোর্টার।।

বিএনপিকে বিরোধিতা করার সংস্কৃতি থেকে বেরিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, প্রতি বছর বাজেট পেশ হওয়ার আগে বিএনপি বিবৃতি রেডি করে রাখে। তাদের নেতারা মেধাবী, কিন্তু তাদের বক্তব্যে মনে হচ্ছে তারা মেধাহীন। অবশ্যই প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে তারা পরামর্শ দিতে পারেন৷ তারা বাজেট না পড়েই বক্তব্য দিচ্ছেন।

আজ রবিবার (৬ জুন) সচিবালয়ে তথ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে নব নির্বাচিত চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির নেতাদের সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

বিএনপির বাজেট প্রতিক্রিয়া নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান বলেন, বিএনপির কাছে আমি প্রশ্ন রাখতে চাই, গত ১২ বছর ধরে তো বাজেটের পর পর আমরা তাদের সমালোচনা দেখছি। বাজেটের পর যে সমালোচনাগুলো তারা ১২ বছর ধরে করে আসছে, তা একই ধরনের সমালোচনা, একই ধরনের বক্তব্য।

তিনি বলেন, আসলে বিরোধিতার খাতিরে বিরোধিতা করা- এই যে সংস্কৃতি এটি থেকে বেরিয়ে আসা প্রয়োজন। অবশ্যই প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে যদি কোনো পরামর্শ থাকে, সেটা দিতেই পারেন। কিন্তু প্রতিবার বাজেট পেশ হওয়ার আগে বিবৃতি রেডি করে রাখা, আবার বাজেট না পড়েই সঙ্গে সঙ্গে বলে দেওয়া। এ সংস্কৃতি তারা (বিএনপি) লালন করছে। তাদের নেতারা মেধাবী, কিন্তু তাদের বক্তব্যে মনে হচ্ছে তারা মেধাহীন হয়ে গেছেন। তারা বাজেট না পড়েই বক্তব্য দিচ্ছেন।

গত ১২ বছরে দেশটা কীভাবে এগিয়ে গেল? এমন প্রশ্ন রেখে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, গত ১২ বছর আগে আমাদের বাজেটের অঙ্ক ছিল ৮৮ হাজার কোটি টাকা। এখন সেখান থেকে ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা হয়েছে। সাতগুণের বেশি বেড়েছে, এটা কীভাবে সম্ভব হয়েছে। কোনো ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের টার্নওভার বাড়ে সেই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সমৃদ্ধি বুঝায় না? গত ১২ বছরে জিডিপির আকার চার গুণে বেশি বেড়েছে- এটা কীভাবে সম্ভব হয়েছে?

মাথাপিছু আয়ে আমরা ভারতকে ছাড়িয়ে গেছি জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী ড. হাসান বলেন, আমরা যে ভারতকে ছাড়িয়ে গেলাম সেজন্য ভারতের পত্রপত্রিকা, টেলিভিশনে আলোচনার ঝড় বইছে। পাকিস্তানেও আলোচনার ঝড় বইছে। কিন্তু আমাদের ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব ও আমাদের অর্থনীতিবিদদের মুখে কোনো কথা শুনতে পেলাম না, এটা কীভাবে সম্ভবপর হলো। বিএনপির কাছে এটাই প্রশ্ন।