ঢাকা ০২:১১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২
সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জের শায়েস্তাঞ্জে র‍্যাবের অভিযানে ১বছরের সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেফতার হবিগঞ্জের বাহুবলে প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে যুবক নিহত কাশিমপুরে যথাযোগ্য মর্যাদায় ১৫ আগস্ট পালিত কাউন্সিলর সাইজুউদ্দিন মোল্লা! এডভোকেট আতিকের খুনি গাজীপুর কাশেমপুরে থানাধীন এলাকায় আগে ককটেল পরে  ফিল্মি স্টাইলে ডাকাতি আশুলিয়া দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া ৭৭ তম জন্মবার্ষিকী পালিত ট্রেনের ছাদে যাত্রী, মানছে না নিয়ম ট্রেনের ছাদে যাত্রী নেয়া নিষেধ থাকলেও, হরহামেশা যাত্রী উঠেই যাচ্ছেন গাজীপুরে নবীণ প্রবীণ সংঘের উদ্দোগে ১৫ ই আগস্ট জাতিয় শোক দিবস (২০২২)এ আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত বেনাপোলে “সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানী লিমিটেড” এর মেট্রো শাখা উদ্বোধণ আশুলিয়ায় সাইদুর রহমান এর আয়োজনে ১৫ ই আগস্ট (২০২২) জাতিয় শোক দিবসে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত

বিরামপুরের পল্লীতে বজ্রপাতে এক যুবকের মৃত্যু।। 

  • মোঃ জাহাঙ্গীর আলম

জেলা  প্রতিনিধি,দিনাজপুর।।

দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলায় ক্ষেতে মরিচ উত্তোলোনের সময় বজ্রপাতে বাধঁন রায় (১৮) নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় অন্তত ৫জন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে রুপালী রায়(৪৫) নামের এক মহিলার অবস্থা আশংঙ্খা জনক হওয়ায় তাকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার মুকুন্দপুর ইউনিয়নের চকদূর্গা রামসাপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। বাঁধন রায় ওই এলাকার নারায়ন চন্দ্র রায়ের ছেলে। স্থানীয় মুকুন্দপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো.সাইফুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পরিবারের বরাতদিয়ে চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে নিজ বাড়ির পাশে মাঠের জমিতে একই পরিবারের তিনজনসহ ছয় সদস্য ক্ষেতের মরিচ উঠাচ্ছিল। এসময় হঠাৎ তাদের ওপর বিকট শব্দের বজ্রপাত ঘটে। পরে, স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক বাঁধনকে মৃত ঘোষণা করেন।

বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সের ইমার্জেন্সি বিভাগ সুত্রে জানা যায়,‘বৃহস্পতিবার দুপুরে বজ্রপাতে আহত হয়ে একই পরিবারে তিনজনসহ ছয় সদস্য চিকিৎসা নিতে আসেন। তাদের মধ্যে বাঁধন রায় নামে এক যুবক মারা যান। এ ঘটনায় রুপালি রায় নামের এক মহিলা অবস্থা অশংঙ্খাজনক হওয়া উন্নত চিকিৎসার জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। বাকিরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে চলে গেছেন।

বিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্তকর্মকর্তা (ওসি) সুমন কুমার মহন্ত বলেন,‘বজ্রপাতে বাঁধন রায় নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। এঘটনায় নিহত যুবকের মা রুপালী বেগম আহত হয়ে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাবা নারায়ন চন্দ্র বাড়িতে রয়েছেন।

আরো খবর.......
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

হবিগঞ্জের শায়েস্তাঞ্জে র‍্যাবের অভিযানে ১বছরের সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেফতার

বিরামপুরের পল্লীতে বজ্রপাতে এক যুবকের মৃত্যু।। 

আপডেট টাইম : ০৩:৫৬:২৬ অপরাহ্ণ, বৃহস্পতিবার, ৩ জুন ২০২১
  • মোঃ জাহাঙ্গীর আলম

জেলা  প্রতিনিধি,দিনাজপুর।।

দিনাজপুরের বিরামপুর উপজেলায় ক্ষেতে মরিচ উত্তোলোনের সময় বজ্রপাতে বাধঁন রায় (১৮) নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় অন্তত ৫জন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে রুপালী রায়(৪৫) নামের এক মহিলার অবস্থা আশংঙ্খা জনক হওয়ায় তাকে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার মুকুন্দপুর ইউনিয়নের চকদূর্গা রামসাপুর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। বাঁধন রায় ওই এলাকার নারায়ন চন্দ্র রায়ের ছেলে। স্থানীয় মুকুন্দপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মো.সাইফুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

পরিবারের বরাতদিয়ে চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে নিজ বাড়ির পাশে মাঠের জমিতে একই পরিবারের তিনজনসহ ছয় সদস্য ক্ষেতের মরিচ উঠাচ্ছিল। এসময় হঠাৎ তাদের ওপর বিকট শব্দের বজ্রপাত ঘটে। পরে, স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক বাঁধনকে মৃত ঘোষণা করেন।

বিরামপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সের ইমার্জেন্সি বিভাগ সুত্রে জানা যায়,‘বৃহস্পতিবার দুপুরে বজ্রপাতে আহত হয়ে একই পরিবারে তিনজনসহ ছয় সদস্য চিকিৎসা নিতে আসেন। তাদের মধ্যে বাঁধন রায় নামে এক যুবক মারা যান। এ ঘটনায় রুপালি রায় নামের এক মহিলা অবস্থা অশংঙ্খাজনক হওয়া উন্নত চিকিৎসার জন্য দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। বাকিরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে চলে গেছেন।

বিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্তকর্মকর্তা (ওসি) সুমন কুমার মহন্ত বলেন,‘বজ্রপাতে বাঁধন রায় নামের এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। এঘটনায় নিহত যুবকের মা রুপালী বেগম আহত হয়ে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাবা নারায়ন চন্দ্র বাড়িতে রয়েছেন।