ঢাকা ০৪:১২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২
সংবাদ শিরোনাম ::
জমির লোভে বাবা ও পরিবারের উপর হামলা বিএনপি-জামাত জোট সরকারের শাসনামলে দেশব্যপী সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে কিশোরগঞ্জের ভৈরবে বিক্ষোভ সমাবেশ করা হয়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর থেকে ১২৬ বোতল ফেন্সিডিল‘সহ ০১ শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক জাতীয় শোক দিবসে বৃক্ষ রোপণ কর্মসূচি পালন আজ সরকারি দলীয় বিক্ষোভ সমাবেস আর একে কেন্দ্র করে চলছে বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের চাঁদাবাজির অভিযোগ যাত্রীদের ১৭ই আগাস্ট বিএনপি জামায়াতের বোমা হামলার প্রতিবাদে আ.লীগের বিক্ষোভ সমাবেশ কালিয়াকৈরে চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে দেবার কারনে স্কুলে যেতে পারছেনা ৫ শিক্ষার্থী বাসন থানার অভিযান চালিয়ে  ০৫ জন ডাকাত ধারালো অস্ত্রসহ গ্রেফতার গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের বিশেষ অভিযানে অস্ত্রগুলি, মাদকসহ কুখ্যাত মাদক সম্রাজ্ঞী পারুলী বেগম গ্রেফতার সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে তেল চুরির সময় দৌলতখানে আটক ৫ জন

ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে এসে দাঁড়িয়েছে টাংগাইলের তাঁত শিল্প

স্টাফ রিপোর্টার।।

টাঙ্গাইলের তাঁতের শাড়ির খ্যাতি বিশ্বজোড়া। ঈদ-পূজা, পহেলা বৈশাখে টাঙ্গাইলের তাঁতের শাড়ি খুব চাহিদা।

করোনার ভাইরাস প্রথম লকডাউন ও বন্যার ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে না উঠতেই দ্বিতীয় কঠোর লকডাউন।

এই পরিস্থিতিতে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে এসে দাঁড়িয়েছে টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার তাঁত শিল্প।

জীবিকার তাগিদে দু’একটি পরিবার স্বল্প পরিসরে তাঁত শিল্পের কাজ শুরু করলেও তৈরি করা শাড়ির বেচাকেনা নেই হাট-বাজারে।

এতে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে মানবেতর জীবনযাপনে বাধ্য হচ্ছেন তাঁত শ্রমিকরা।

এইভাবে চলতে থাকলে হয়তো একসময় তাঁত থাকলেও তাঁতি থাকবে না।

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার রামপুর, বেহালাবাড়ি ও বল্লা গ্রামে প্রায় ১০ হাজার শ্রমিক জীবিকা নির্বাহ করে তাঁত শিল্পে।

উৎপাদিত টাঙ্গাইলের শাড়ি ছড়িয়ে যায় সারা দেশে।

বর্তমান সময়ে তাঁতিরা তাদের শেষ মুহূর্তের ঈদের বাজার ধরতে দিনরাত তাঁত বুনানোর কাজ করে যাচ্ছে কিছু কিছু তাঁতিরা।

এই এলাকায় ৬০০ টাকা থেকে ২৫ হাজার টাকা পযর্ন্ত  টাঙ্গাইলের শাড়ি তৈরি হয়ে থাকে।

বল্লা তাঁত শাড়ির মহাজন’ সাজ্জত জানায়, করোনা ও বন্যায় আমাদের তাঁতের শাড়ি ব্যবসা অনেক ক্ষতিগ্রস্থ।

আমার দুইটা তাঁতের শাড়ির কারখানা, ব্যবসায় ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় আমি এখন একটা কারখানা চালাচ্ছি। এভাবে দেশ চললে এ শাড়ির কারখানা বন্ধ হয়ে যাবে।

আমাদের কাছে লাখ লাখ টাকা নেই যে এখন লকডাউন সময় শাড়ি তৈরি করে গুদামজাত করবো এবং সময় ভালো হলে বিক্রি করে সংসার চালাবো। আমি সরকারি কোন সহযোগিতা ও ঋণ পাই নাই।

তাঁত বোর্ড লিয়াজোঁ অফিসার রাধা শ্যাম রায় জানান, কঠোর লকডাউন এর জন্য কিস্তি আদায় কম হচ্ছে। আমাদের এখানে থেকে ক্ষুদ্র ঋণ ১৬৯৫ জন আর বৃহত্তম ২৫ জন পেয়েছে।

কঠোর লকডাউন সরকারি কোন সহযোগিতা তাঁতিরা পাবে কিনা তা আমি জানিনা।

আরো খবর.......
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

জমির লোভে বাবা ও পরিবারের উপর হামলা

ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে এসে দাঁড়িয়েছে টাংগাইলের তাঁত শিল্প

আপডেট টাইম : ০৭:৫৪:০৫ পূর্বাহ্ণ, বুধবার, ২৮ এপ্রিল ২০২১

স্টাফ রিপোর্টার।।

টাঙ্গাইলের তাঁতের শাড়ির খ্যাতি বিশ্বজোড়া। ঈদ-পূজা, পহেলা বৈশাখে টাঙ্গাইলের তাঁতের শাড়ি খুব চাহিদা।

করোনার ভাইরাস প্রথম লকডাউন ও বন্যার ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে না উঠতেই দ্বিতীয় কঠোর লকডাউন।

এই পরিস্থিতিতে ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে এসে দাঁড়িয়েছে টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার তাঁত শিল্প।

জীবিকার তাগিদে দু’একটি পরিবার স্বল্প পরিসরে তাঁত শিল্পের কাজ শুরু করলেও তৈরি করা শাড়ির বেচাকেনা নেই হাট-বাজারে।

এতে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে মানবেতর জীবনযাপনে বাধ্য হচ্ছেন তাঁত শ্রমিকরা।

এইভাবে চলতে থাকলে হয়তো একসময় তাঁত থাকলেও তাঁতি থাকবে না।

টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার রামপুর, বেহালাবাড়ি ও বল্লা গ্রামে প্রায় ১০ হাজার শ্রমিক জীবিকা নির্বাহ করে তাঁত শিল্পে।

উৎপাদিত টাঙ্গাইলের শাড়ি ছড়িয়ে যায় সারা দেশে।

বর্তমান সময়ে তাঁতিরা তাদের শেষ মুহূর্তের ঈদের বাজার ধরতে দিনরাত তাঁত বুনানোর কাজ করে যাচ্ছে কিছু কিছু তাঁতিরা।

এই এলাকায় ৬০০ টাকা থেকে ২৫ হাজার টাকা পযর্ন্ত  টাঙ্গাইলের শাড়ি তৈরি হয়ে থাকে।

বল্লা তাঁত শাড়ির মহাজন’ সাজ্জত জানায়, করোনা ও বন্যায় আমাদের তাঁতের শাড়ি ব্যবসা অনেক ক্ষতিগ্রস্থ।

আমার দুইটা তাঁতের শাড়ির কারখানা, ব্যবসায় ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ায় আমি এখন একটা কারখানা চালাচ্ছি। এভাবে দেশ চললে এ শাড়ির কারখানা বন্ধ হয়ে যাবে।

আমাদের কাছে লাখ লাখ টাকা নেই যে এখন লকডাউন সময় শাড়ি তৈরি করে গুদামজাত করবো এবং সময় ভালো হলে বিক্রি করে সংসার চালাবো। আমি সরকারি কোন সহযোগিতা ও ঋণ পাই নাই।

তাঁত বোর্ড লিয়াজোঁ অফিসার রাধা শ্যাম রায় জানান, কঠোর লকডাউন এর জন্য কিস্তি আদায় কম হচ্ছে। আমাদের এখানে থেকে ক্ষুদ্র ঋণ ১৬৯৫ জন আর বৃহত্তম ২৫ জন পেয়েছে।

কঠোর লকডাউন সরকারি কোন সহযোগিতা তাঁতিরা পাবে কিনা তা আমি জানিনা।