1. [email protected] : admi2017 :
বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০৪:৫৮ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
ই-পেপার আজকের মুরাদ বিদেশ যেতে চাইলে সরকার বাধা দেবে না : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এমপি হারুনের ৫ বছরের কারাদণ্ড হাইকোর্টে বহাল আ.লীগ ক্ষমতায় আসার পর রাজনৈতিক সংস্কৃতি বদলে গেছে : ফখরুল মোংলায় ’দুর্নীতিকে না বলুন’ শ্লোগানে দুর্নীতি বিরোধী দিবস পালন নমিনেশন পেপার্স জমা দিতেই ব্যাপক আনন্দ উদ্দীপনায় সিক্ত মেম্বার আব্দুল খালেক গাজীপুরের কাশিমপুর সুরাবাড়ী এলাকায় ২৬ টি অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন, ফোর্বসের প্রভাবশালী নারীর তালিকায় ৪৩তম শেখ হাসিনা ১০৮৬ জনকে চাকরি দেবে বাংলাদেশ রেলওয়ে আসন্ন রায়পুরা পৌরসভা নির্বাচনে ৪,৫ও ৬নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদপ্রার্থী তমা আক্তারকে সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর করতে চান “ওয়ার্ডবাসী” এনবিসি ইউকে “ইস্ট লন্ডন” শাখার কমিটি গঠন

ভাষণের পথ ধরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জিত হয়েছে ॥ ইউনেস্কো

  • আপডেট টাইম : বুধবার, ২৪ মার্চ, ২০২১, ১.১৬ পিএম
  • ৯৫ বার পঠিত

আন্তর্জাতিক রিপোর্ট।।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ই মার্চের ভাষণের পথ ধরে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জিত হয়েছে মন্তব্য করে জাতিসংঘ শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি সংস্থার (ইউনেস্কো) মহাপরিচালক অড্রে অ্যাজুলাই বলেছেন, জাতির পিতার ‘তাৎপর্যপূর্ণ’ ভাষণে বৈশ্বিক মানবাধিকার ও মর্যাদার মূল্যবোধও প্রতিফলিত হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর আয়োজনে ভিডিও বার্তায় এ কথা বলেন তিনি।

ইউনেস্কো প্রধান বলেন, “বঙ্গবন্ধুর ভাষণটি তাৎপর্যপূর্ণ এই কারণে যে, এটা বাংলাদেশকে স্বাধীনতার দিকে ধাবিত করেছে। একইসঙ্গে স্বাধীনতা, মানবাধিকার, মর্যাদা এবং শিক্ষা, সংস্কৃতি ও বিজ্ঞানের অগ্রগতির মত বৈশ্বিক মূল্যবোধের প্রতিফলনের কারণেও এটি তাৎপর্যপূর্ণ।”

ঐতিহাসিক গুরুত্বের কারণেই ভাষণটি ইউনেস্কোর মেমোরি অব দ্য ওয়ার্ল্ড হেরিটেজে স্থান পেয়েছে মন্তব্য করে সংস্থার মহাপরিচালক বলেন, “৫০ বছর আগে ৭ মার্চে বঙ্গবন্ধুর দেয়া ঐতিহাসিক এ গুরুত্বপূর্ণ ভাষণ দেশটির স্বাধীনতার নেতৃত্ব দেয়ায় বাংলাদেশ এবং বিশ্ব এই দিনটি উদযাপন করছে। ইউনেস্কো যে কারণে এই ঐতিহাসিক ভাষণটি বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্যে অন্তর্ভুক্ত করেছে, সেই একই কারণে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শততম জন্মবার্ষিকী উদযাপনে যোগ দিয়েছে।”

ইউনেস্কো মহাসচিব আরো বলেন, “স্বাধীনতার পরের বছরই ইউনেস্কোর সঙ্গে বাংলাদেশের যে সংযোগ তৈরি হয়েছে, তার ধারাবাহিকতা এখনও রয়েছে আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বিভিন্ন সহযোগিতার মাধ্যমে। এই সহযোগিতা প্রথমত শিক্ষাক্ষেত্রে, বিশেষ করে নারী ও কন্যাশিশুর শিক্ষায়। এই সহযোগিতা ঐহিত্য সংরক্ষণেও।”

তিনি বলেন, ঐতিহ্যের ক্ষেত্রে বন্ধনের কারণে বাংলাদেশের পাহাড়পুর বৌদ্ধ বিহার, বাগেরহাটের ষাটগম্বুজ মসজিদ, সুন্দরবন ও জামদানিসহ বিভিন্ন কিছু ইউনেস্কোর স্বীকৃতি পেয়েছে।

ইউনেস্কো মহাপরিচালক বলেন, বিশ্ব যখন একটি গভীর সংকট মোকাবেলা করছে, তখন শিক্ষা, সংস্কৃতি ও বিজ্ঞানের মতো বিষয়ে বাংলাদেশ ও ইউনেস্কোর আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে সহেযাগিতা পূর্বের যেকোনো সময়ের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

‘ইউনেস্কো-বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ইন্টারন্যাশনাল প্রাইজ ইন দ্য ফিল্ড অব ক্রিয়েটিভ ইকোনমি’ প্রচলনের কথা উল্লেখ করে অ্যাজুলাই বলেন, আসুন আশাবাদী এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্মরণ করি, কেননা মানবতার জন্য সংগ্রাম অধিকার, মুক্তি ও স্বাধীনতার জন্যও সংগ্রাম।

মুজিববর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীর আয়োজনের সপ্তম দিনে ব্রিটেনের রানী দ্বিতীয় এলিজাবেথ এবং জার্মানির প্রেসিডেন্ট ফ্রাঙ্ক ভাল্টার স্টাইনমায়ারের শুভেচ্ছা বার্তা পড়ে শোনান পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazarsomoyer14
© All rights reserved  2019-2021 somoyerkontha.com