ঢাকা ০৬:৪৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৩
সংবাদ শিরোনাম ::
রংপুর পীরগঞ্জের বড় আলমপুর ইউনিয়নের বর্ষপুতিতে কর্মী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হামলা চালিয়ে ভাঙ্চুর, মারপিট, টাকা ও অলঙ্কার লুট করে উল্টো হাসপাতালে ভর্তি হিরো আলমকে সমর্থন নতুনধারার ঢাকাস্থ ভাটারা সমিতির সহযোগিতায় জামালপুরে শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ প্রভাবশালীর অত্যাচারে ৬ মাস বাড়ি ছাড়া বিচারের দাবিতে পথে পথে অসহায় পরিবার দুটি নাসিরনগরে বাস ও অটোরিক্সার মুখোমুখি সংঘর্ষে ৯ জন আহত বান্দরবানের পাহাড়ের ঢালুতে বানিজ্যিক ভাবে চাষ হচ্ছে ঠান্ডা আলু বাংলাদেশ একটি সফল উন্নয়নের গল্প: বিশ্ব ব্যাংক বিরামপুর রেলস্টেশনে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান। টাকার অভাবে চিকিৎসা করতে পারছে না প্রতিবন্ধী জাকারিয়া। মোঃ আসাদুজ্জামান

আরও ভয়ঙ্কর হতে পারে করোনার নতুন ধরন: বরিস জনসন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক।।

আরও ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করতে পারে যুক্তরাজ্যে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে নতুন ধরন বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। দেশটিতে করোনাভাইরাসের নতুন ও পুরাতন ধরনের সংক্রমণ ও মৃত্যুর হারের তুলনা থেকে প্রাপ্ত তথ্য-উপাত্ত গবেষণা করে এমনটিই বলছে বিশ্লেষকরা। ফলে শুধু সংক্রমণের দিক থেকেই নয়, বরং মৃত্যুহারও বাড়ছে পারে।

Nogod

বরিস জনসন জানান, দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার পাশাপাশি, এখন এটাও প্রমাণিত হয়েছে, করোনার এ নতুন ধরনটির কারণে বাড়তে পারে মৃত্যু হার। দক্ষিণ-পূর্ব ইংল্যান্ড ও লন্ডনে করোনার যে নতুন রূপ ছড়িয়েছে গবেষণায় উঠে এসেছে, এটি আরও বেশি প্রাণঘাতীও। অর্থাৎ করোনার এই ধরণের মৃত্যুহারও বেশি হতে পারে।

যুক্তরাজ্যে করোনাভাইরাসের এই বদলে যাওয়া ধরনটি প্রথম শনাক্ত হয়েছিল গত বছরের সেপ্টেম্বরে। নভেম্বরে দেখা গেল লন্ডনে যত মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন, তাদের এক চতুর্থাংশ ক্ষেত্রে করোনাভাইরাসের নতুন ওই ধরনটি দায়ী। ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে এসে সেই অনুপাত দাঁড়ায় দুই তৃতীয়াংশে।

আরও পড়ুন: অন্তত ৬০ দেশে শনাক্ত নতুন ধরনের করোনা

নতুন করোনাভাইরাস ছড়ানোর পর যুক্তরাজ্যে মৃত্যুহারও বেড়েছে। শুক্রবার সেখানে মারা গেছে ১ হাজার ৪০১ জন। তাতে দেশটিতে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৯৫ হাজার ৯৮১। যা ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ। গত কয়েক সপ্তাহে যুক্তরাজ্যে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর হার ১৬ শতাংশ বেড়েছে। হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা বেড়েছে দ্বিগুণ।

বিশ্বের অন্তত ৬০টি দেশে শনাক্ত হয়েছে নতুন ধরনের করোনা। ডব্লিওএইচও-এর মতে, দক্ষিণ আফ্রিকায় ছড়ানো নতুন ধরনের করোনার সঙ্গে যুক্তরাজ্যের করোনার মিল রয়েছে। এটি খুবই সংক্রামক।

এদিকে বিশ্বে করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ২০ লাখ ছাড়িয়েছে। নতুন ধরনের করোনা ভাইরাস বিশ্বজুড়ে উদ্বেগ তৈরি করেছে। টিকা সহজলভ্য না হওয়া পর্যন্ত সংক্রমণ কিভাবে কমিয়ে আনা যায় দেশে দেশে সে চেষ্টাই চালানো হচ্ছে।

আরো খবর.......
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

রংপুর পীরগঞ্জের বড় আলমপুর ইউনিয়নের বর্ষপুতিতে কর্মী সমাবেশ অনুষ্ঠিত

আরও ভয়ঙ্কর হতে পারে করোনার নতুন ধরন: বরিস জনসন

আপডেট টাইম : ০৭:৪২:২৮ পূর্বাহ্ণ, শনিবার, ২৩ জানুয়ারি ২০২১

আন্তর্জাতিক ডেস্ক।।

আরও ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করতে পারে যুক্তরাজ্যে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসে নতুন ধরন বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। দেশটিতে করোনাভাইরাসের নতুন ও পুরাতন ধরনের সংক্রমণ ও মৃত্যুর হারের তুলনা থেকে প্রাপ্ত তথ্য-উপাত্ত গবেষণা করে এমনটিই বলছে বিশ্লেষকরা। ফলে শুধু সংক্রমণের দিক থেকেই নয়, বরং মৃত্যুহারও বাড়ছে পারে।

Nogod

বরিস জনসন জানান, দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার পাশাপাশি, এখন এটাও প্রমাণিত হয়েছে, করোনার এ নতুন ধরনটির কারণে বাড়তে পারে মৃত্যু হার। দক্ষিণ-পূর্ব ইংল্যান্ড ও লন্ডনে করোনার যে নতুন রূপ ছড়িয়েছে গবেষণায় উঠে এসেছে, এটি আরও বেশি প্রাণঘাতীও। অর্থাৎ করোনার এই ধরণের মৃত্যুহারও বেশি হতে পারে।

যুক্তরাজ্যে করোনাভাইরাসের এই বদলে যাওয়া ধরনটি প্রথম শনাক্ত হয়েছিল গত বছরের সেপ্টেম্বরে। নভেম্বরে দেখা গেল লন্ডনে যত মানুষ আক্রান্ত হচ্ছেন, তাদের এক চতুর্থাংশ ক্ষেত্রে করোনাভাইরাসের নতুন ওই ধরনটি দায়ী। ডিসেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে এসে সেই অনুপাত দাঁড়ায় দুই তৃতীয়াংশে।

আরও পড়ুন: অন্তত ৬০ দেশে শনাক্ত নতুন ধরনের করোনা

নতুন করোনাভাইরাস ছড়ানোর পর যুক্তরাজ্যে মৃত্যুহারও বেড়েছে। শুক্রবার সেখানে মারা গেছে ১ হাজার ৪০১ জন। তাতে দেশটিতে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৯৫ হাজার ৯৮১। যা ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ। গত কয়েক সপ্তাহে যুক্তরাজ্যে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর হার ১৬ শতাংশ বেড়েছে। হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা বেড়েছে দ্বিগুণ।

বিশ্বের অন্তত ৬০টি দেশে শনাক্ত হয়েছে নতুন ধরনের করোনা। ডব্লিওএইচও-এর মতে, দক্ষিণ আফ্রিকায় ছড়ানো নতুন ধরনের করোনার সঙ্গে যুক্তরাজ্যের করোনার মিল রয়েছে। এটি খুবই সংক্রামক।

এদিকে বিশ্বে করোনা ভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ২০ লাখ ছাড়িয়েছে। নতুন ধরনের করোনা ভাইরাস বিশ্বজুড়ে উদ্বেগ তৈরি করেছে। টিকা সহজলভ্য না হওয়া পর্যন্ত সংক্রমণ কিভাবে কমিয়ে আনা যায় দেশে দেশে সে চেষ্টাই চালানো হচ্ছে।