ঢাকা ০৭:৩৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
রাণীশংকৈলে যথাযোগ্য মর্যাদায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন নওগাঁর নিয়ামতপুরে শহীদ দিবস ও আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ২১শে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে ভাষা শহীদদের স্বরনে শ্রদ্ধাঞ্জলি দেবহাটা উপজেলা সমিতির ও পিকনিক স্পট পরিদর্শন কালিহাতীতে মহান শহিদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত আজ সারা ভারতের বিভিন্ন যায়গার সাথে সিরাকল মহাবিদ্যালয়ে উদযাপিত হল ভাষা দিবস আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উৎযাপন ভৈরবে অমর ২১শে ফেব্রুয়ারি ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে সকল বীর শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধাঞ্জলি জানিয়েছে কিশোরগঞ্জে মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত কমলনগরে সয়াবিন ক্ষেত থেকে যুবকের লাশ উদ্ধার ২১ শে ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে

বাড়ির ১০০ মিটার দূরে মিলল নিখোঁজ শিহাবের লাশ

  • সময়ের কন্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট টাইম : ০৮:৩৭:২৪ পূর্বাহ্ণ, রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • ১৬১ ০.০০০ বার পাঠক

সময়ের কন্ঠ রিপোর্ট।।

গাজীপুর মহানগরীর পূবাইলে নিখোঁজ শিশু শিহাবের (৬) লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

রোববার সকালে পূবাইলের মেট্রোপলিটন থানার ৪০নং ওয়ার্ডে বসতবাড়ির ১০০ মিটার দূরে একটি বাড়ির কলাপসিবল গেটের পাশ থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহত শিহাব পূবাইলের মেট্রোপলিটন থানার ৪০নং ওয়ার্ডের মাজুখান উত্তরপাড়া এলাকার জুয়েলের ছেলে।

এর আগে শনিবার দুপুরে নিখোঁজ হয় শিহাব। সারা দিন খোঁজাখুঁজির পর  রাতেই শিশু শিহাবের নিখোঁজের বিষয়টি জানিয়ে তার বাবা জুয়েল বাদী হয়ে পূবাইল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

জানা যায়, শনিবার দুপুরে নিখোঁজের পর রোববার ভোরে প্রতিবেশীরা ওই এলাকায় সালাম মুন্সিরবাড়ির পাশে শিহাবের লাশ পড়ে থাকতে দেখে তার দাদা সিরাজ মিয়াকে খবর দেয়। পরে থানায় খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ৬-৭ মাস আগে পারিবারিক কলহের জেরে শিশুটির মা হেনাকে বাড়ি থেকে বের করে দেন শিহাবের বাবা জুয়েল (২৮)। সেই থেকে শিশুটি তার বাবার ও দাদা-দাদির সঙ্গে মাজুখানেই  থাকত।
এ ছাড়া পাশাপাশি শিহাবের মা হেনা বেগম আশুলিয়া বেড়িবাঁধ এলাকায় একটি এমব্রয়ডারি কারখানায় কাজ নিয়ে একই এলাকায় ভাড়া বাসায় পৃথকভাবে বসবাস করতেন। জুয়েল মাজুখান বাজারে একটি ফটোসপ স্টুডিও খুলে ব্যবসা করেন।

এ ঘটনায় শনিবার রাতে শিহাবের বাবা জুয়েল বাদী হয়ে সাধারণ ডায়েরি করেন।

শিহাবের বাবা জুয়েল বলেন, ছোট্ট শিহাবের আবদার রক্ষা করতে বাইকে করে শনিবার সকালে পূবাইলের বিভিন্ন এলাকা ঘুরিয়ে দেখান তিনি। কে জানত এটিই তার বাবার কাছে শেষ আবদার ছিল।

তিনি বলেন, আমার জন্ম এখানে কিন্তু কে বা কারা আমার নিষ্পাপ শিশুকে নির্যাতন করে এভাবে মেরে ফেলবে সেটি আমার বোধগম্য নয়। আমি এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

পূবাইল থানার ওসি মহিদুল ইসলাম যুগান্তরকে জানান, নিহত শিশুর লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহিদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরো খবর.......

জনপ্রিয় সংবাদ

রাণীশংকৈলে যথাযোগ্য মর্যাদায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন

বাড়ির ১০০ মিটার দূরে মিলল নিখোঁজ শিহাবের লাশ

আপডেট টাইম : ০৮:৩৭:২৪ পূর্বাহ্ণ, রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১

সময়ের কন্ঠ রিপোর্ট।।

গাজীপুর মহানগরীর পূবাইলে নিখোঁজ শিশু শিহাবের (৬) লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

রোববার সকালে পূবাইলের মেট্রোপলিটন থানার ৪০নং ওয়ার্ডে বসতবাড়ির ১০০ মিটার দূরে একটি বাড়ির কলাপসিবল গেটের পাশ থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়।

নিহত শিহাব পূবাইলের মেট্রোপলিটন থানার ৪০নং ওয়ার্ডের মাজুখান উত্তরপাড়া এলাকার জুয়েলের ছেলে।

এর আগে শনিবার দুপুরে নিখোঁজ হয় শিহাব। সারা দিন খোঁজাখুঁজির পর  রাতেই শিশু শিহাবের নিখোঁজের বিষয়টি জানিয়ে তার বাবা জুয়েল বাদী হয়ে পূবাইল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন।

জানা যায়, শনিবার দুপুরে নিখোঁজের পর রোববার ভোরে প্রতিবেশীরা ওই এলাকায় সালাম মুন্সিরবাড়ির পাশে শিহাবের লাশ পড়ে থাকতে দেখে তার দাদা সিরাজ মিয়াকে খবর দেয়। পরে থানায় খবর দিলে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ৬-৭ মাস আগে পারিবারিক কলহের জেরে শিশুটির মা হেনাকে বাড়ি থেকে বের করে দেন শিহাবের বাবা জুয়েল (২৮)। সেই থেকে শিশুটি তার বাবার ও দাদা-দাদির সঙ্গে মাজুখানেই  থাকত।
এ ছাড়া পাশাপাশি শিহাবের মা হেনা বেগম আশুলিয়া বেড়িবাঁধ এলাকায় একটি এমব্রয়ডারি কারখানায় কাজ নিয়ে একই এলাকায় ভাড়া বাসায় পৃথকভাবে বসবাস করতেন। জুয়েল মাজুখান বাজারে একটি ফটোসপ স্টুডিও খুলে ব্যবসা করেন।

এ ঘটনায় শনিবার রাতে শিহাবের বাবা জুয়েল বাদী হয়ে সাধারণ ডায়েরি করেন।

শিহাবের বাবা জুয়েল বলেন, ছোট্ট শিহাবের আবদার রক্ষা করতে বাইকে করে শনিবার সকালে পূবাইলের বিভিন্ন এলাকা ঘুরিয়ে দেখান তিনি। কে জানত এটিই তার বাবার কাছে শেষ আবদার ছিল।

তিনি বলেন, আমার জন্ম এখানে কিন্তু কে বা কারা আমার নিষ্পাপ শিশুকে নির্যাতন করে এভাবে মেরে ফেলবে সেটি আমার বোধগম্য নয়। আমি এর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

পূবাইল থানার ওসি মহিদুল ইসলাম যুগান্তরকে জানান, নিহত শিশুর লাশের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহিদ তাজউদ্দীন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।