ঢাকা ০৫:৪০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২
সংবাদ শিরোনাম ::
জমির লোভে বাবা ও পরিবারের উপর হামলা বিএনপি-জামাত জোট সরকারের শাসনামলে দেশব্যপী সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে কিশোরগঞ্জের ভৈরবে বিক্ষোভ সমাবেশ করা হয়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর থেকে ১২৬ বোতল ফেন্সিডিল‘সহ ০১ শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক জাতীয় শোক দিবসে বৃক্ষ রোপণ কর্মসূচি পালন আজ সরকারি দলীয় বিক্ষোভ সমাবেস আর একে কেন্দ্র করে চলছে বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের চাঁদাবাজির অভিযোগ যাত্রীদের ১৭ই আগাস্ট বিএনপি জামায়াতের বোমা হামলার প্রতিবাদে আ.লীগের বিক্ষোভ সমাবেশ কালিয়াকৈরে চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে দেবার কারনে স্কুলে যেতে পারছেনা ৫ শিক্ষার্থী বাসন থানার অভিযান চালিয়ে  ০৫ জন ডাকাত ধারালো অস্ত্রসহ গ্রেফতার গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের বিশেষ অভিযানে অস্ত্রগুলি, মাদকসহ কুখ্যাত মাদক সম্রাজ্ঞী পারুলী বেগম গ্রেফতার সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে তেল চুরির সময় দৌলতখানে আটক ৫ জন

পুঠিয়ায় উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা হত্যা মামলায় স্বামী দুইদিন রিমান্ডে

পুঠিয়া প্রতিনিধি।।

পুঠিয়ায় উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা খাদিজা আক্তার হত্যা মামলায় স্বামী আব্দুল ওহাবকে দুই দিল রিমান্ডে মঞ্জুর করেছে আদালত। গতকাল রবিবার (৮ আগস্ট) রাজশাহীর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্টেট আল আমিন শেখ এ রিমান্ড মুঞ্জুর করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পুঠিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ সোহরাওয়ার্দী হোসেন।

মামালা সূত্রে জানাগেছে, গত ১৫ বছর পূর্বে রাজশাহীর পবা উপজেলার কর্মরত উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিহত খাদিজা আক্তারের বিয়ে হয় পুঠিয়া উপজেলার জিউপাড়া ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের মৃত মকবুল হোসেনের ছেলে আব্দুল ওহাবের সাথে। বিয়ের পর থেকে স্বামী আব্দুল ওহাব যৌতুকের জন্য খাদিজাকে বিভিন্ন সময় শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতো। গত ২৬ মে আব্দুল ওহাব যৌতুকের জন্য শারীরিক নির্যাতন করে ঢাকা চলে যায়।

পরে ঢাকা থেকে ফিরে এসে যৌতুকে টাকা না দিলে তাকে জানে মেরে ফেলা হবে হুমকি দেয়। এরই ধারাবাহিকতায় গত ২৯ জুন রাত্রি আনুমানিক সাড়ে নয়টায় যৌতুকের দাবিতে খাদিজার স্বামী আব্দুল ওহাব মাথায় আঘাত করে হত্যা করে। পর দিন হত্যাকন্ডকে অন্য খাতে প্রবাহিত করার জন্য আসামী আব্দুল ওহাব তার ঘরের প্রবেশ পথে তীরের সাথে ফাঁস দিয়ে ঝুলিয়ে রাখে।

এছাড়াও রাতে নিহতের মা নার্গিস আরা বেওয়াকে ফোনে তার মেয়ে আতহত্যা করেছে বলে আব্দুল ওহাব জানায়। ওই দিন সকালে পুঠিয়া থানা পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রামেক হাসপাতালে প্রেরণ করে। পরে নিহতের মা নার্গিস আরা বেওয়া বাদি হয়ে পুঠিয়া থানায় আব্দুল ওহাবসহ তিনজনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। এই হত্যা মামলায় পুঠিয়া থানা পুলিশ আব্দুল ওহাবকে আটক করে জেলহাজতে প্র্রেরণ করে। গত ২৪ জুলাই নিহতের ময়না তদন্তে রিপোর্টে নিহতের মাথায় গুরুতর আঘাতে চিহ্ন, গলায় আঙ্গুলের ছাপ রয়েছে বলে তদন্তের রিপোর্টে জানানো হয়।

এবিষয়ে পুঠিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ সোহরাওয়ার্দী হোসেন জানান, গতকাল রবিবার (৮ আগস্ট) আদালত রিমান্ড মুঞ্জুর করায় আসামী আব্দুল ওহাবকে জিজ্ঞাবাদের জন্য নিয়ে আসা হয়েছে। আগামীকাল মঙ্গলবার (১০ আগস্ট) তার রিমান্ড শেষ হওয়া তাকে আদালতের মাধ্যমে জেলা হাজতে প্রেরণ করা হবে।

আরো খবর.......
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

জমির লোভে বাবা ও পরিবারের উপর হামলা

পুঠিয়ায় উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা হত্যা মামলায় স্বামী দুইদিন রিমান্ডে

আপডেট টাইম : ০৬:৫৯:৪৪ অপরাহ্ণ, সোমবার, ৯ আগস্ট ২০২১

পুঠিয়া প্রতিনিধি।।

পুঠিয়ায় উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা খাদিজা আক্তার হত্যা মামলায় স্বামী আব্দুল ওহাবকে দুই দিল রিমান্ডে মঞ্জুর করেছে আদালত। গতকাল রবিবার (৮ আগস্ট) রাজশাহীর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্টেট আল আমিন শেখ এ রিমান্ড মুঞ্জুর করেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পুঠিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ সোহরাওয়ার্দী হোসেন।

মামালা সূত্রে জানাগেছে, গত ১৫ বছর পূর্বে রাজশাহীর পবা উপজেলার কর্মরত উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা নিহত খাদিজা আক্তারের বিয়ে হয় পুঠিয়া উপজেলার জিউপাড়া ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের মৃত মকবুল হোসেনের ছেলে আব্দুল ওহাবের সাথে। বিয়ের পর থেকে স্বামী আব্দুল ওহাব যৌতুকের জন্য খাদিজাকে বিভিন্ন সময় শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করতো। গত ২৬ মে আব্দুল ওহাব যৌতুকের জন্য শারীরিক নির্যাতন করে ঢাকা চলে যায়।

পরে ঢাকা থেকে ফিরে এসে যৌতুকে টাকা না দিলে তাকে জানে মেরে ফেলা হবে হুমকি দেয়। এরই ধারাবাহিকতায় গত ২৯ জুন রাত্রি আনুমানিক সাড়ে নয়টায় যৌতুকের দাবিতে খাদিজার স্বামী আব্দুল ওহাব মাথায় আঘাত করে হত্যা করে। পর দিন হত্যাকন্ডকে অন্য খাতে প্রবাহিত করার জন্য আসামী আব্দুল ওহাব তার ঘরের প্রবেশ পথে তীরের সাথে ফাঁস দিয়ে ঝুলিয়ে রাখে।

এছাড়াও রাতে নিহতের মা নার্গিস আরা বেওয়াকে ফোনে তার মেয়ে আতহত্যা করেছে বলে আব্দুল ওহাব জানায়। ওই দিন সকালে পুঠিয়া থানা পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য রামেক হাসপাতালে প্রেরণ করে। পরে নিহতের মা নার্গিস আরা বেওয়া বাদি হয়ে পুঠিয়া থানায় আব্দুল ওহাবসহ তিনজনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। এই হত্যা মামলায় পুঠিয়া থানা পুলিশ আব্দুল ওহাবকে আটক করে জেলহাজতে প্র্রেরণ করে। গত ২৪ জুলাই নিহতের ময়না তদন্তে রিপোর্টে নিহতের মাথায় গুরুতর আঘাতে চিহ্ন, গলায় আঙ্গুলের ছাপ রয়েছে বলে তদন্তের রিপোর্টে জানানো হয়।

এবিষয়ে পুঠিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ সোহরাওয়ার্দী হোসেন জানান, গতকাল রবিবার (৮ আগস্ট) আদালত রিমান্ড মুঞ্জুর করায় আসামী আব্দুল ওহাবকে জিজ্ঞাবাদের জন্য নিয়ে আসা হয়েছে। আগামীকাল মঙ্গলবার (১০ আগস্ট) তার রিমান্ড শেষ হওয়া তাকে আদালতের মাধ্যমে জেলা হাজতে প্রেরণ করা হবে।