ঢাকা ০৩:০৮ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
ডিএমপির ৬ কর্মকর্তার বদলি কালিয়াকৈরে পালিত হলো প্রাণিসম্পদ সেবা সপ্তাহ ও প্রদর্শনী-২০২৪ দিনাজপুরের নবাবগঞ্জে প্রাণিসম্পদ প্রদর্শনী মেলা অনুষ্ঠিত রায়পুরে আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত সেভ দ্য রোডের ১৫ দিনব্যাপী সচেতনতা ক্যাম্পেইন সমাপ্ত জামালপুরে কৃষককূল লাউ চাষে স্বাবম্বিতা অর্জন করেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে অস্ত্রাগারের ভিডিও সম্প্রচার এক পুলিশ সুপারকে বাধ্যতামূলক অবসর মাদক কারবার-মানি লন্ডারিংয়ে বদির দুই ভাইয়ের সংশ্লিষ্টতা মিলেছে ঠাকুরগাঁওয়ে চেতনা নাশক স্প্রে ব্যবহার করে চুরি এলাকায় আতঙ্ক পরিবারের সংবাদ সম্মেলন মামলা সুষ্ঠু তদন্তের দাবি কলেজ ছাত্রকে মাদক মামলায় ফাঁসানোর দাবি

মাদারীপুরে ব্যস্ত সময় পার করছে পাট চাষীরা

মোঃ মাহামুদুল হাসান, প্রতিনিধি, মাদারীপুর

পাটকে বলা হয় সোনালী আঁশ। পাট বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান অর্থকরী ফসল। তাই পাটের এই মৌসুমে ব্যস্ত সময় পার করছে মাদারীপুরের পাট চাষিরা। বর্তমানে পুরো জেলা জুড়ে চলছে পাট কাটা, জাগ দেয়া, আশ ছাড়ানো, ধোয়া ও শুকানোর কাজ। অন্যান্য বছরের মতো এবারো উৎপাদন ভাল হওয়ায় খুশি কৃষকরা। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, জেলায় এ বছর পাট আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৩৭ হাজার ৯০০ হেক্টর। আবাদ  হয়েছে ৩৫ হাজার ১৩০ হেক্টর। যার ফলে প্রতি হেক্টরে প্রায় ১০ থেকে ১১ বেল পাট উৎপাদিত হয়েছে। জেলার সদর, কালকিনি, রাজৈর ও শিবচরের প্রায় ৬৭ শতাংশ পাট ইতোমধ্যে কর্তন করা হয়েছে। রাজৈর উপজেলার আমগ্রাম ইউনিয়নের পাটচাষি মনির হোসেন বলেন, আমাদের পাট কাটা প্রায় শেষের দিকে। অত্র এলাকায় এবছর পাটের ফলন ভালো হয়েছে। যদি আমরা পাটের ন্যায্য  দাম পাই তাহলে আমরা লাভবান হতে পারব। অপরদিকে সদর উপজেলার মস্তফাপুর ইউনিয়নের চাষী জাহাঙ্গীর ইসলাম বলেন,  এবছর পাট আবাদের সময় খড়া থাকায় বারবার সেচ দিতে হয়েছে। যে কারণে আমাদের উৎপাদন খরচ বেশি পড়েছে। পাটের বাজার দাম যদি ভাল থাকে তাহলে আমরা আর্থিকভাবে উপকৃত হব। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোঃ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, মাদারীপুর জেলায় পাট আবাদ কালীন সময়ে অবিরত খড়া থাকায় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে উৎপাদন কিছুটা কম হয়েছে। তবে পাট মৌসুমে বৃষ্টিপাত হওয়ার কারণে পাটের ফলন অনেক ভালো হয়েছে। তিনি আরো বলেন, এবছর পাটের মূল্য মোটামুটি ভালো। বর্তমানে নিম্নমানের পাট ২৫০০ টাকা ও ভালো মানের পাট ৩০০০ টাকা। আশা করা যায় এর ফলে পাট চাষীরা লাভবান হবে এবং ভবিষ্যতে উৎপাদন আরো বৃদ্ধি পাবে।
আরো খবর.......

জনপ্রিয় সংবাদ

ডিএমপির ৬ কর্মকর্তার বদলি

মাদারীপুরে ব্যস্ত সময় পার করছে পাট চাষীরা

আপডেট টাইম : ১০:২৫:৫২ পূর্বাহ্ণ, বুধবার, ৪ আগস্ট ২০২১

মোঃ মাহামুদুল হাসান, প্রতিনিধি, মাদারীপুর

পাটকে বলা হয় সোনালী আঁশ। পাট বাংলাদেশের অন্যতম প্রধান অর্থকরী ফসল। তাই পাটের এই মৌসুমে ব্যস্ত সময় পার করছে মাদারীপুরের পাট চাষিরা। বর্তমানে পুরো জেলা জুড়ে চলছে পাট কাটা, জাগ দেয়া, আশ ছাড়ানো, ধোয়া ও শুকানোর কাজ। অন্যান্য বছরের মতো এবারো উৎপাদন ভাল হওয়ায় খুশি কৃষকরা। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, জেলায় এ বছর পাট আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছিল ৩৭ হাজার ৯০০ হেক্টর। আবাদ  হয়েছে ৩৫ হাজার ১৩০ হেক্টর। যার ফলে প্রতি হেক্টরে প্রায় ১০ থেকে ১১ বেল পাট উৎপাদিত হয়েছে। জেলার সদর, কালকিনি, রাজৈর ও শিবচরের প্রায় ৬৭ শতাংশ পাট ইতোমধ্যে কর্তন করা হয়েছে। রাজৈর উপজেলার আমগ্রাম ইউনিয়নের পাটচাষি মনির হোসেন বলেন, আমাদের পাট কাটা প্রায় শেষের দিকে। অত্র এলাকায় এবছর পাটের ফলন ভালো হয়েছে। যদি আমরা পাটের ন্যায্য  দাম পাই তাহলে আমরা লাভবান হতে পারব। অপরদিকে সদর উপজেলার মস্তফাপুর ইউনিয়নের চাষী জাহাঙ্গীর ইসলাম বলেন,  এবছর পাট আবাদের সময় খড়া থাকায় বারবার সেচ দিতে হয়েছে। যে কারণে আমাদের উৎপাদন খরচ বেশি পড়েছে। পাটের বাজার দাম যদি ভাল থাকে তাহলে আমরা আর্থিকভাবে উপকৃত হব। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মোঃ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, মাদারীপুর জেলায় পাট আবাদ কালীন সময়ে অবিরত খড়া থাকায় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে উৎপাদন কিছুটা কম হয়েছে। তবে পাট মৌসুমে বৃষ্টিপাত হওয়ার কারণে পাটের ফলন অনেক ভালো হয়েছে। তিনি আরো বলেন, এবছর পাটের মূল্য মোটামুটি ভালো। বর্তমানে নিম্নমানের পাট ২৫০০ টাকা ও ভালো মানের পাট ৩০০০ টাকা। আশা করা যায় এর ফলে পাট চাষীরা লাভবান হবে এবং ভবিষ্যতে উৎপাদন আরো বৃদ্ধি পাবে।