ঢাকা ০১:৫৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২
সংবাদ শিরোনাম ::
হবিগঞ্জের শায়েস্তাঞ্জে র‍্যাবের অভিযানে ১বছরের সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেফতার দিন দিন বেড়েই চলছে পণ্য, বাজারজুড়ে দীর্ঘশ্বাস পারমাণবিক চুক্তির দ্বারপ্রান্তে ইরান ও পশ্চিমা দেশগুলো  পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যের ব্যাখ্যা চাই: মির্জা ফখরুল কসবায় চার হাজার পিস ইয়াবাসহ যুবক গ্রেফতার যশোরের শার্শার রুদ্রপুর সীমান্তে সোনারবারসহ পাচারকারী আটক গাজীপুর মহানগর পুলিশ কর্তৃক ২৪ ঘন্টার উদ্ধার অভিযান কাশিমপুরে ৭ বছরের এক মাদ্রাসার। ছাত্র কে বলাৎকারে এক মুদি, দোকানদার আটক আশুলিয়া থানা যুবলীগের আয়োজনে জাতিয় শোক দিবস পালন অপশাসন কী, অপশাসনের ফল কী হতে পারে, বাংলাদেশের মানুষ তা প্রত্যক্ষ করেছে ২০০১ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত

আশুলিয়া সহ সারাদেশে ফেক আইডি ও ভুয়া নিউজের ছড়া ছড়ি

  • মোঃ আকরাম হোসেন ।।

আশুলিয়া থানার বিভিন্ন অঞ্চলে ফেইসবুক ফেক আইডি ও অপ-সাংবাদিকদের তৎপরতায় অতিষ্ঠ সুধী সমাজ।সাংবাদিক পরিচয়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন এক শ্রেনীর অপ-সাংবাদিক।অনেকেই নিজের ব্যবসাকে টিকিয়ে রাখতে অপকৌশল অবলম্বন করে একটি প্রেসকার্ড সংগ্রহ করেছেন,অনেকেই মাদক সেবন,মাদক ব্যবসা রমরমা চালিয়ে যাওয়ার জন্য সাংবাদিকের মত মহান পেশা বেঁছে নিয়েছেন,এরা মুলত সরকারের রাজস্ব আদায়ের ব্যাপক বাঁধা,এদের মধ্যে অনেকেরই মটর বাইকের নেই কোনো কাগজপত্র সামনে পেছনে প্রেস লিখে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে।গাড়িতে চড়লে ভাড়া না দিয়ে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে দাম্ভিকতা দেখান।এরা করেননা কোনো সাংবাদিকতা তাদের বছরের পর বছরেও মিলছেনা একটি নিউজ।অপরদিকে এমনই পেশায় মহিলা সাংবাদিকেরও দেখা মিলছে বহুগুণে,তারা কেহ গার্মেন্টস কর্মী, স্বামী পরিত্যক্তা,দুস্চরিত্র,একাধিক বিবাহ করে ফায়দা লুটে নিয়ে,সুদের কারবারের সাথে জড়িয়ে গোপনে যৌন ব্যবসার মত জঘন্য কাজে লিপ্ত তারা।এ ধরনের অপ-সাংবাদিক সমাজের গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ জনপ্রতিনিধিদের মধ্যে ঢুকে,একের পর এক মিথ্যা স্টাটাস দিচ্ছেন,একজন এক পক্ষ অপর জনেরা অপর আরেক পক্ষ,ঠিক যেনো পালাগানের আসর পেতে বসেছেন।মুলত সত্য নিউজগুলোর দিচ্ছেন প্রতিবাদ,আবার প্রতিবাদ দিতে না পারলেও ফেইসবুকে দিচ্ছেন স্টাটাস।মিথ্যা নিউজ করতে এবং মিথ্যা স্টাটাস দিতে এদের নেই কোনো ভয়ভীতি মুলত সাংবাদিকের সাইনবোর্ড ব্যবহার করে ডোনাল্ড ট্রাম্পের ন্যায় চলছেন।এদের নেই কোনো শিক্ষাগত যোগ্যতা,তবে এরা অন্যের নিউজ কপি করা ওস্তাদ বটে,একজন ভালো লেখক একটা নিউজ করলে মুহুর্তে সেটাকে ভেঙ্গে চুরে নিজের নামে চালিয়ে দিচ্ছেন।অন্যদিকে রাজনৈতিক অসাধু নেতারা এদেরকে হাতিয়ার হিসাবে ব্যবহার করছেন,নিজ দলের প্রতিদন্ধী ও বিরোধী দলের মধ্যে কুৎস রটানোর জন্য সম্পূর্ণ মিথ্যা বানোয়াট ভিত্তিহীন কাহিনী সাজিয়ে এদের দিয়ে মুহুর্তে একটা নিউজ অথবা সোশ্যাল মিডিয়ায় স্টাটাস দেওয়াচ্ছেন,কাঁদা ছোড়া ছুড়ি যেন নৃত্যদিনের মহাসঙ্গীতের মুর্চ্ছনায় অট্রহাসি।মাঝে মধ্যে এটাকে পুজি করে কেউ কেউ ফায়দা লুটে চলেছেন।কার ছবি কার সাথে এডিট করে আওয়ামী লীগের কাউকে বানাচ্ছেন    বিএনপি জামাতের নেতা,অথবা বি এনপির সক্রিয় সদস্যকে বানাচ্ছেন আওয়ামী লীগের…..। রাজনৈতিক প্রবীন নেতারা এমন জঘন্য কারবার দেখে অবাক বিস্ময় হয়ে হয়ে হতবাক হয়ে যাচ্ছেন।মুলত এটা নিরসনের জন্য কারো কোনো পদক্ষেপ দেখা জায়না,এমনই নোংরা মানসিকতার বলি হয়ে প্রতিদিন প্রতি নিয়ত অবজ্ঞার স্তুপে নিক্ষেপ হচ্ছেন, সারা দেশের অগনিত মানুষ।এমন কর্মকান্ডের প্রতিকারের রাস্থা কেনো এত পিছল।

আরো খবর.......
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

হবিগঞ্জের শায়েস্তাঞ্জে র‍্যাবের অভিযানে ১বছরের সাজাপ্রাপ্ত পলাতক আসামি গ্রেফতার

আশুলিয়া সহ সারাদেশে ফেক আইডি ও ভুয়া নিউজের ছড়া ছড়ি

আপডেট টাইম : ১২:৪৫:২৮ অপরাহ্ণ, বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১
  • মোঃ আকরাম হোসেন ।।

আশুলিয়া থানার বিভিন্ন অঞ্চলে ফেইসবুক ফেক আইডি ও অপ-সাংবাদিকদের তৎপরতায় অতিষ্ঠ সুধী সমাজ।সাংবাদিক পরিচয়ে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন এক শ্রেনীর অপ-সাংবাদিক।অনেকেই নিজের ব্যবসাকে টিকিয়ে রাখতে অপকৌশল অবলম্বন করে একটি প্রেসকার্ড সংগ্রহ করেছেন,অনেকেই মাদক সেবন,মাদক ব্যবসা রমরমা চালিয়ে যাওয়ার জন্য সাংবাদিকের মত মহান পেশা বেঁছে নিয়েছেন,এরা মুলত সরকারের রাজস্ব আদায়ের ব্যাপক বাঁধা,এদের মধ্যে অনেকেরই মটর বাইকের নেই কোনো কাগজপত্র সামনে পেছনে প্রেস লিখে দাপিয়ে বেড়াচ্ছেন এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তে।গাড়িতে চড়লে ভাড়া না দিয়ে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে দাম্ভিকতা দেখান।এরা করেননা কোনো সাংবাদিকতা তাদের বছরের পর বছরেও মিলছেনা একটি নিউজ।অপরদিকে এমনই পেশায় মহিলা সাংবাদিকেরও দেখা মিলছে বহুগুণে,তারা কেহ গার্মেন্টস কর্মী, স্বামী পরিত্যক্তা,দুস্চরিত্র,একাধিক বিবাহ করে ফায়দা লুটে নিয়ে,সুদের কারবারের সাথে জড়িয়ে গোপনে যৌন ব্যবসার মত জঘন্য কাজে লিপ্ত তারা।এ ধরনের অপ-সাংবাদিক সমাজের গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ জনপ্রতিনিধিদের মধ্যে ঢুকে,একের পর এক মিথ্যা স্টাটাস দিচ্ছেন,একজন এক পক্ষ অপর জনেরা অপর আরেক পক্ষ,ঠিক যেনো পালাগানের আসর পেতে বসেছেন।মুলত সত্য নিউজগুলোর দিচ্ছেন প্রতিবাদ,আবার প্রতিবাদ দিতে না পারলেও ফেইসবুকে দিচ্ছেন স্টাটাস।মিথ্যা নিউজ করতে এবং মিথ্যা স্টাটাস দিতে এদের নেই কোনো ভয়ভীতি মুলত সাংবাদিকের সাইনবোর্ড ব্যবহার করে ডোনাল্ড ট্রাম্পের ন্যায় চলছেন।এদের নেই কোনো শিক্ষাগত যোগ্যতা,তবে এরা অন্যের নিউজ কপি করা ওস্তাদ বটে,একজন ভালো লেখক একটা নিউজ করলে মুহুর্তে সেটাকে ভেঙ্গে চুরে নিজের নামে চালিয়ে দিচ্ছেন।অন্যদিকে রাজনৈতিক অসাধু নেতারা এদেরকে হাতিয়ার হিসাবে ব্যবহার করছেন,নিজ দলের প্রতিদন্ধী ও বিরোধী দলের মধ্যে কুৎস রটানোর জন্য সম্পূর্ণ মিথ্যা বানোয়াট ভিত্তিহীন কাহিনী সাজিয়ে এদের দিয়ে মুহুর্তে একটা নিউজ অথবা সোশ্যাল মিডিয়ায় স্টাটাস দেওয়াচ্ছেন,কাঁদা ছোড়া ছুড়ি যেন নৃত্যদিনের মহাসঙ্গীতের মুর্চ্ছনায় অট্রহাসি।মাঝে মধ্যে এটাকে পুজি করে কেউ কেউ ফায়দা লুটে চলেছেন।কার ছবি কার সাথে এডিট করে আওয়ামী লীগের কাউকে বানাচ্ছেন    বিএনপি জামাতের নেতা,অথবা বি এনপির সক্রিয় সদস্যকে বানাচ্ছেন আওয়ামী লীগের…..। রাজনৈতিক প্রবীন নেতারা এমন জঘন্য কারবার দেখে অবাক বিস্ময় হয়ে হয়ে হতবাক হয়ে যাচ্ছেন।মুলত এটা নিরসনের জন্য কারো কোনো পদক্ষেপ দেখা জায়না,এমনই নোংরা মানসিকতার বলি হয়ে প্রতিদিন প্রতি নিয়ত অবজ্ঞার স্তুপে নিক্ষেপ হচ্ছেন, সারা দেশের অগনিত মানুষ।এমন কর্মকান্ডের প্রতিকারের রাস্থা কেনো এত পিছল।