ঢাকা ০৭:৫৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৫ জুলাই ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
মেট্রোরেল স্টেশনের ধ্বংসলীলা দেখে কাঁদলেন প্রধানমন্ত্রী রুশ এমআই-২৮ সামরিক হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত মস্কোর দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থিত কালুগা অঞ্চলে আজ বৃহস্পতিবার হেলিকপ্টারটি বিধ্বস্ত হয় কে হামলা চালাবে—বিএনপির নীল নকশা আগেই প্রস্তুত ছিল: কাদের ৪ দিন কোথায় কী অবস্থায় ছিলেন সমন্বয়ক আসিফ সারা দেশে হাজারো প্রাণ কেড়ে নেওয়ার ব্যাপারে সরকার কোনো কথা বলছে না: মির্জা ফখরুল সব ধরনের সহিংসতার হুমকি দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্র ডিএমপির তিন যুগ্ম-কমিশনারকে স্থান বদলি বাসে আগুন দিতে ৪ লাখ টাকায় চুক্তি, শ্রমিক লীগ নেতা গ্রেপ্তার রোকেয়া হলে ছাত্রলীগ নেত্রীদের হলছাড়া করল আন্দোলনকারীরা আন্দোলনকারীদের মৃত্যুর জন্য সরকারের পক্ষ থেকে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইতে হবে, ৩৩ নাগরিকের বিবৃতি বিবৃতিতে বলা হয়, দাবি আদায় করতে হয় জীবনের বিনিময়ে বা দমন করতে হয় হত্যা করে

রাজশাহীতে ইমামকে ‘বেয়াদব’ বলে ভর্ৎসনা করলেন মিনু

  • আপডেট টাইম : ০৫:০১:২৭ অপরাহ্ণ, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪
  • / ৪০ ৫০০.০০০ বার পাঠক

ঈদুল আযহার প্রধান জামাতে নামাজ আদায় শেষে রাজশাহীর হযরত শাহ্ মখদুম (রহ:) কেন্দ্রীয় ঈদগাহের ইমামকে ভর্ৎসনা করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু। দু’বছর আগেও একই মাঠে ঈদ-উল আযহার নামাজ আদায় শেষে তৎকালীন ইমামকেও ভর্ৎসনা করেছিলেন তিনি।

প্রত্যক্ষদর্শী মুসল্লীরা জানান, গত সোমবার (১৭ জুন) সকালে হযরত শাহ মখদুম (রহ.) কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে ঈদের নামাজ শেষে ইমাম মুফতি মোহাম্মদ ওমর ফারুককে সরাসারি ‘বেয়াদব’ বলে মন্তব্য করে করেন তিনি।

এ সময় মিজানুর রহমান মিনু ইমামকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘ধর্মের দোয়া পড়াবেন। বিএনপি-আওয়ামী লীগের দোয়া পড়াবেন না। বেয়াদব সব।’ এ ছাড়া প্রচন্ড গরমের মধ্যে দীর্ঘ সময় ধরে দোয়া পরিচালনা করায় তিনি বিরক্তিও প্রকাশ করেন।

উল্লেখ্য, মুফতি ওমর ফারুক রাজশাহী কেন্দ্রীয় ঈদগাহে ঈদুল আযহার নামাজের জামাতে ইমামতি করেন। তিনি খুতবার বাইরেও বিভিন্ন বিষয়ে কথাবার্তা বলেন।

তার ভাষ্য, ‘দোয়া সবার জন্য হয়েছে। ঈদের মাঠে আল্লাহর কাছে চাওয়া-পাওয়ার জন্য দোয়া করা হয়। কারও সমস্যা হলে তিনি চলে যাবেন, এটাই নিয়ম। এতে ধর্মে কোনো বাধা নেই।’

জানা গেছে, অসহ্য ভ্যাপসা গরমে একটু বেশি সময় ধরে মোনাজাত করায় সাধারণ মুসল্লিরাও ক্ষাণিকটা বিরক্তি প্রকাশ করেন। এদিকে, নামাজের আগে বক্তব্য রাখেন রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর ও রাজশাহীর জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ।

প্রসঙ্গত, এর আগে ২০২২ সালে একই ঈদগাহ মাঠে ঈদুল আযহার নামাজ আদায় শেষে মিজানুর রহমান মিনু তৎকালীন ইমাম মাওলানা মুফতি মোহাম্মদ শাহাদাত আলীকে ‘দালাল’ উল্লেখ করে ভর্ৎসনা করেছিলেন।

আরো খবর.......

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

রাজশাহীতে ইমামকে ‘বেয়াদব’ বলে ভর্ৎসনা করলেন মিনু

আপডেট টাইম : ০৫:০১:২৭ অপরাহ্ণ, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪

ঈদুল আযহার প্রধান জামাতে নামাজ আদায় শেষে রাজশাহীর হযরত শাহ্ মখদুম (রহ:) কেন্দ্রীয় ঈদগাহের ইমামকে ভর্ৎসনা করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু। দু’বছর আগেও একই মাঠে ঈদ-উল আযহার নামাজ আদায় শেষে তৎকালীন ইমামকেও ভর্ৎসনা করেছিলেন তিনি।

প্রত্যক্ষদর্শী মুসল্লীরা জানান, গত সোমবার (১৭ জুন) সকালে হযরত শাহ মখদুম (রহ.) কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে ঈদের নামাজ শেষে ইমাম মুফতি মোহাম্মদ ওমর ফারুককে সরাসারি ‘বেয়াদব’ বলে মন্তব্য করে করেন তিনি।

এ সময় মিজানুর রহমান মিনু ইমামকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘ধর্মের দোয়া পড়াবেন। বিএনপি-আওয়ামী লীগের দোয়া পড়াবেন না। বেয়াদব সব।’ এ ছাড়া প্রচন্ড গরমের মধ্যে দীর্ঘ সময় ধরে দোয়া পরিচালনা করায় তিনি বিরক্তিও প্রকাশ করেন।

উল্লেখ্য, মুফতি ওমর ফারুক রাজশাহী কেন্দ্রীয় ঈদগাহে ঈদুল আযহার নামাজের জামাতে ইমামতি করেন। তিনি খুতবার বাইরেও বিভিন্ন বিষয়ে কথাবার্তা বলেন।

তার ভাষ্য, ‘দোয়া সবার জন্য হয়েছে। ঈদের মাঠে আল্লাহর কাছে চাওয়া-পাওয়ার জন্য দোয়া করা হয়। কারও সমস্যা হলে তিনি চলে যাবেন, এটাই নিয়ম। এতে ধর্মে কোনো বাধা নেই।’

জানা গেছে, অসহ্য ভ্যাপসা গরমে একটু বেশি সময় ধরে মোনাজাত করায় সাধারণ মুসল্লিরাও ক্ষাণিকটা বিরক্তি প্রকাশ করেন। এদিকে, নামাজের আগে বক্তব্য রাখেন রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর ও রাজশাহীর জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ।

প্রসঙ্গত, এর আগে ২০২২ সালে একই ঈদগাহ মাঠে ঈদুল আযহার নামাজ আদায় শেষে মিজানুর রহমান মিনু তৎকালীন ইমাম মাওলানা মুফতি মোহাম্মদ শাহাদাত আলীকে ‘দালাল’ উল্লেখ করে ভর্ৎসনা করেছিলেন।