ঢাকা ০৫:৪০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩
সংবাদ শিরোনাম ::
আদিবাসীদের সাথে মত বিনিময় করেন গাইবান্ধা জেলা পুলিশ সুপার কাশিমপুরে প্রতিপক্ষ কে ফাঁসাতে নিজেদের ঘর নিজেরাই ভাংচুর হোমনা ইসলামিয়া ডেন্টাল কেয়ারে ইন্ট্রাওয়াল ক্যামেরা উদ্বোধন করা হয়েছে পীরগঞ্জে সাংবাদিকতয় অবদান রাখায় সম্মাননা পেলেন বিপ্লব সিলেটের স্কলার্সহোম এবারের এইচএসসি ফলাফলে অতীতের সব রেকর্ডের শীর্ষে নড়াইলে বাংলাদেশ পুলিশের কনস্টেবল পদে নিয়োগ পরীক্ষার ৩য় দিনের কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন কাশিমপুরে ১ কেজি গাঁজা সহ ৪ মাদক কারবারি গ্রেফতার মামলার ফাঁদে বন্দর ত্যাগ করতে পারছে না কয়লা নিয়ে আসা দুটি বিদেশি জাহাজ গোবিন্দগঞ্জে ইমামদের করণীয় ও ভূমিকা শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুুষ্ঠিত শেরপুরে যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে হত্যা মামলায় যুবকের মৃত্যুদণ্ড

মোংলার বীনা মল্লিক একজন নতূন নারী উদ্যাক্তা

বাগেরহাট জেলা প্রতিনিধি।।

একজন নতূন নারী উদ্যাক্তা বীনা মল্লিক, মোংলা উপজেলার চাঁদপাই ইউনিয়নের কাইনমারি এলাকায় তার বাড়ি, ঢাকার একটি প্রাইভেট কম্পনিতে একাউন্টসে চাকরি করতেন।
করোনা কালিন সময়ে চাকরি ছেড়ে দিয়ে নিজ জন্মভুমি মোংলাতে চলে আসেন। নিজেকে স্বাবলম্বি করতে এবং ফ্যামেলি সচ্ছল করতে উদ্যোগ নেন ফাস্টফুড বা রেস্টুরেন্ট ব্যাবসার।
নিজের জমানো সামান্য কিছু টাকা ও তার স্বামি জয়ন্ত ঠাকুরের সহায়তায় নিজ গ্রাম কাইনমারিতে একটি মাছের ঘেরের উপরে তৈরি করেন বাশ ও কাঠের কারুকার্যে তৈরী রুবি ক্যাফে নামের একটি রেস্টুরেন্ট।

ইতি মধ্যে যা মোংলা উপজেলার সকল শ্রেনির মানুষের কাছে বিনোধন কেন্দ্র বা কফি হাউজ হিসাবে পরিচিতি লাভ করেছে। বিকেল হলেই এখানে চলে আসেন বিভিন্ন পেশার সাধারন মানুষ সহ মোংলাতে ঘুরতে আসা পর্যটকরা।

সেখানে ঘুরতে বা খেতে আসা মোংলা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা অনিমেষ বালা বলেন শহরের বাহিরে এরকম একটি নিরিবিলি জায়গায় এই রেস্টুরেন্টি খুবই সুন্দর ও মনোমুগ্ধকর যা আমাকে আকৃস্ট করেছে।

রেস্টুরেন্টে স্বপরিবারে খেতে আসা হলদিবুনিয়া গ্রামের মুকুল বাড়ই( ৭০) বলেন মানুষের কাছে শুনেছি একটি মেয়ে এখানে সুন্দর একটি রেস্টুরেন্ট দিয়েছে তাই পরিবারের সকলকে নিয়ে দেখতে ও খেতে আসলাম।

ব্যাবসা সম্পর্কে জানতে চাইলে বীনা মল্লিক জানান প্রথমে অনেকেই আমাকে নিষেধ করেছিল এখানে কিছু না করতে,এটা একটি গ্রাম, এখানে কেউ আসবেনা কিন্তু আমি নিজের এবং আমার ফ্যামেলির অনুপ্রেরনায় পানীর উপরে রেস্টুরেন্টি চালু করি, এবং বেশ অল্পদিনেই মানুষের ব্যাপক সাড়া পাই, বর্তমানে কাস্টমারের চাহিদা এতো বেশিযে অনেক কাস্টমারকে বসতেই দিতে পারিনা, আগামিতে আমার রেস্টুরেন্টের পরিধি আরো বাড়াবো বলে চিন্তা করছি, তাতে করে আমার এলাকার অনেক বেকার ছেলে মেয়ে এখানে কাজ করার সুজগ পাবে। বর্তমানে আমার রেস্টুরেন্ট ৪ জনের কর্মসংস্থানের ব্যাবস্তা হয়েছে, আমি চাই আমার মতো সকল নারীরা অন্যোর উপর নির্ভর না করে নিজ নিজ উদ্যোগে এগিয়ে আসুক এবং আত্বনির্ভর শীল হয়ে নিজ এলাকায় কর্মসংস্থান তৈরি করুক।

আরো খবর.......
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

আদিবাসীদের সাথে মত বিনিময় করেন গাইবান্ধা জেলা পুলিশ সুপার

মোংলার বীনা মল্লিক একজন নতূন নারী উদ্যাক্তা

আপডেট টাইম : ০৯:২৪:২১ পূর্বাহ্ণ, মঙ্গলবার, ৯ ফেব্রুয়ারি ২০২১

বাগেরহাট জেলা প্রতিনিধি।।

একজন নতূন নারী উদ্যাক্তা বীনা মল্লিক, মোংলা উপজেলার চাঁদপাই ইউনিয়নের কাইনমারি এলাকায় তার বাড়ি, ঢাকার একটি প্রাইভেট কম্পনিতে একাউন্টসে চাকরি করতেন।
করোনা কালিন সময়ে চাকরি ছেড়ে দিয়ে নিজ জন্মভুমি মোংলাতে চলে আসেন। নিজেকে স্বাবলম্বি করতে এবং ফ্যামেলি সচ্ছল করতে উদ্যোগ নেন ফাস্টফুড বা রেস্টুরেন্ট ব্যাবসার।
নিজের জমানো সামান্য কিছু টাকা ও তার স্বামি জয়ন্ত ঠাকুরের সহায়তায় নিজ গ্রাম কাইনমারিতে একটি মাছের ঘেরের উপরে তৈরি করেন বাশ ও কাঠের কারুকার্যে তৈরী রুবি ক্যাফে নামের একটি রেস্টুরেন্ট।

ইতি মধ্যে যা মোংলা উপজেলার সকল শ্রেনির মানুষের কাছে বিনোধন কেন্দ্র বা কফি হাউজ হিসাবে পরিচিতি লাভ করেছে। বিকেল হলেই এখানে চলে আসেন বিভিন্ন পেশার সাধারন মানুষ সহ মোংলাতে ঘুরতে আসা পর্যটকরা।

সেখানে ঘুরতে বা খেতে আসা মোংলা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা অনিমেষ বালা বলেন শহরের বাহিরে এরকম একটি নিরিবিলি জায়গায় এই রেস্টুরেন্টি খুবই সুন্দর ও মনোমুগ্ধকর যা আমাকে আকৃস্ট করেছে।

রেস্টুরেন্টে স্বপরিবারে খেতে আসা হলদিবুনিয়া গ্রামের মুকুল বাড়ই( ৭০) বলেন মানুষের কাছে শুনেছি একটি মেয়ে এখানে সুন্দর একটি রেস্টুরেন্ট দিয়েছে তাই পরিবারের সকলকে নিয়ে দেখতে ও খেতে আসলাম।

ব্যাবসা সম্পর্কে জানতে চাইলে বীনা মল্লিক জানান প্রথমে অনেকেই আমাকে নিষেধ করেছিল এখানে কিছু না করতে,এটা একটি গ্রাম, এখানে কেউ আসবেনা কিন্তু আমি নিজের এবং আমার ফ্যামেলির অনুপ্রেরনায় পানীর উপরে রেস্টুরেন্টি চালু করি, এবং বেশ অল্পদিনেই মানুষের ব্যাপক সাড়া পাই, বর্তমানে কাস্টমারের চাহিদা এতো বেশিযে অনেক কাস্টমারকে বসতেই দিতে পারিনা, আগামিতে আমার রেস্টুরেন্টের পরিধি আরো বাড়াবো বলে চিন্তা করছি, তাতে করে আমার এলাকার অনেক বেকার ছেলে মেয়ে এখানে কাজ করার সুজগ পাবে। বর্তমানে আমার রেস্টুরেন্ট ৪ জনের কর্মসংস্থানের ব্যাবস্তা হয়েছে, আমি চাই আমার মতো সকল নারীরা অন্যোর উপর নির্ভর না করে নিজ নিজ উদ্যোগে এগিয়ে আসুক এবং আত্বনির্ভর শীল হয়ে নিজ এলাকায় কর্মসংস্থান তৈরি করুক।