ঢাকা ১২:০৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ২০ জুলাই ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
কোটা সংস্কারের পক্ষে সরকার নীতিগতভাবে একমত: আইনমন্ত্রী ঘোষণার পর মানছেন না কোটা আন্দোলনকারীরা আমার ভাইদের ফেরত দেওয়া হোক আগে রায়পুরে বালু উত্তোলনে ভাঙন আতঙ্ক সরকারের কাছ থেকে দৃশ্যমান পদক্ষেপ ও সমাধানের পথ তৈরির প্রত্যাশা করে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন শনির আখড়া-যাত্রাবাড়ী সড়কে চলছে সংঘর্ষ, যান চলালাচল অচল করে দিচ্ছেন ফেসবুক লাইভে এসে পদত্যাগের ঘোষণা ছাত্রলীগ নেতার উত্তরায় গুলিতে নর্দান বিশ্ববিদ্যালয়ের ২ শিক্ষার্থী নিহত কমপ্লিট শাটডাউন ঢাকার সঙ্গে সব জেলার যোগাযোগ বন্ধ, টার্মিনাল থেকে ছাড়ছে না কোনো বাস ফুলবাড়ীর দৌলতপুর ইউনিয়নে গরু চুরির হিড়িক দেশবাসীর প্রতি মির্জা ফখরুলের আহ্বান, শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়ান অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঢাবি, ৬টার মধ্যে হল ছাড়ার নির্দেশ

সাতক্ষীরায় একই ঘরে দুজনের হত্যা নাকি আত্মহত্যা লাশ উদ্ধার

সময়ের কন্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট টাইম : ০৯:৪৩:১৭ পূর্বাহ্ণ, রবিবার, ৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১
  • / ২৫৮ ৫০০.০০০ বার পাঠক

সাতক্ষীরা জেলা প্রতিনিধি।।
সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলায় একই রশিতে ঝুলন্ত নারী ও পুরুষের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রবিবার (৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে খবর পেয়ে পুলিশ উপজেলার শ্রীপতিপুর গ্রামের একটি আমগাছের ডালে ঝুলন্ত অবস্থায় তাদের মরদেহ উদ্ধার করে।মারা যাওয়া নারী ফাতেমা বেগম (৪০) উপজেলার কয়লা ইউনিয়নের শ্রীপতিপুর গ্রামের শেখ আহসানের স্ত্রী এবং যুবক করিম পাড় (৩০) শ্যামনগর উপজেলার ধুমঘাট দক্ষিণপাড়ার জয়নাল পাড়ের ছেলে। পরকীয়া প্রেমঘটিত বিষয়ে তারা আত্মহত্যা করেছেন বলে ধারণা এলাকাবাসীর।

তবে পুলিশ বলছে, এখনই বলা সম্ভব নয় এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যার ঘটনা। এ বিষয়ে তদন্ত চলছে।স্থানীয় ইউপি সদস্য নজরুল ইসলাম জানান, সকালে ফাতেমা বেগমের শ্বশুর শেখ আব্দুল হাই আমাকে ফোন করে জানায়-আমার বাড়িতে দুইজন আত্মহত্যা করেছে, থানা পুলিশে খবর দাও। আব্দুল হাইয়ের ছেলে শেখ আহসান বাক প্রতিবন্ধী। প্রেমঘটিত কারণে এমন ঘটনা ঘটতে পারে বলে সকলেই ধারণা করছেন।ফাতেমা বেগমের ছোট জা সানজীদা জানান, আহসানের সাথে ফাতেমার ২৫ বছর আগে বিয়ে হয়েছে। তাদের এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। কিন্তু আমরা কখনও কোন সমস্যা দেখিনি।

আহসানের বোন মাকসুদা জানান, ভোরে আহসান নামাজ পড়তে যাওয়ার সময় বাড়ির প্রায় ৫০ গজ দূরে একটি আম গাছে তাদের মরদেহ ঝুলতে দেখে চেঁচামেচি করতে থাকে। পরে বাড়ির লোকজন গিয়ে তাদের মরদেহ ঝুলতে দেখে। কিন্তু করিম পাড় সম্পর্কে কোন তথ্য তারা দিতে পারেননি।

প্রতিবেশীরা জানান, ছেলেটার বাড়ি সাতক্ষীরার শ্যামনগর ও মেয়েটা এখানকার গৃহবধূ। এই জায়গায় কিভাবে ছেলেটা এলো, আর কিভাবে কি হলো, তা রহস্যজনক। বিষয়টি তদন্তের দাবি জানান তারা।কলারোয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মীর খায়রুল কবির জানান, মরদেহ দুটি উদ্ধার করা হয়েছে। আত্মহত্যা না হত্যাকাণ্ড সেটি এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘যুবকের শরীরে আমরা কোন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। তবে গৃহবধূর মুখে ও গলায় আঁচড়ের দাগ রয়েছে। মরদেহ দুটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।’

আরো খবর.......

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

সাতক্ষীরায় একই ঘরে দুজনের হত্যা নাকি আত্মহত্যা লাশ উদ্ধার

আপডেট টাইম : ০৯:৪৩:১৭ পূর্বাহ্ণ, রবিবার, ৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১

সাতক্ষীরা জেলা প্রতিনিধি।।
সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলায় একই রশিতে ঝুলন্ত নারী ও পুরুষের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রবিবার (৭ ফেব্রুয়ারি) সকালে খবর পেয়ে পুলিশ উপজেলার শ্রীপতিপুর গ্রামের একটি আমগাছের ডালে ঝুলন্ত অবস্থায় তাদের মরদেহ উদ্ধার করে।মারা যাওয়া নারী ফাতেমা বেগম (৪০) উপজেলার কয়লা ইউনিয়নের শ্রীপতিপুর গ্রামের শেখ আহসানের স্ত্রী এবং যুবক করিম পাড় (৩০) শ্যামনগর উপজেলার ধুমঘাট দক্ষিণপাড়ার জয়নাল পাড়ের ছেলে। পরকীয়া প্রেমঘটিত বিষয়ে তারা আত্মহত্যা করেছেন বলে ধারণা এলাকাবাসীর।

তবে পুলিশ বলছে, এখনই বলা সম্ভব নয় এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যার ঘটনা। এ বিষয়ে তদন্ত চলছে।স্থানীয় ইউপি সদস্য নজরুল ইসলাম জানান, সকালে ফাতেমা বেগমের শ্বশুর শেখ আব্দুল হাই আমাকে ফোন করে জানায়-আমার বাড়িতে দুইজন আত্মহত্যা করেছে, থানা পুলিশে খবর দাও। আব্দুল হাইয়ের ছেলে শেখ আহসান বাক প্রতিবন্ধী। প্রেমঘটিত কারণে এমন ঘটনা ঘটতে পারে বলে সকলেই ধারণা করছেন।ফাতেমা বেগমের ছোট জা সানজীদা জানান, আহসানের সাথে ফাতেমার ২৫ বছর আগে বিয়ে হয়েছে। তাদের এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। কিন্তু আমরা কখনও কোন সমস্যা দেখিনি।

আহসানের বোন মাকসুদা জানান, ভোরে আহসান নামাজ পড়তে যাওয়ার সময় বাড়ির প্রায় ৫০ গজ দূরে একটি আম গাছে তাদের মরদেহ ঝুলতে দেখে চেঁচামেচি করতে থাকে। পরে বাড়ির লোকজন গিয়ে তাদের মরদেহ ঝুলতে দেখে। কিন্তু করিম পাড় সম্পর্কে কোন তথ্য তারা দিতে পারেননি।

প্রতিবেশীরা জানান, ছেলেটার বাড়ি সাতক্ষীরার শ্যামনগর ও মেয়েটা এখানকার গৃহবধূ। এই জায়গায় কিভাবে ছেলেটা এলো, আর কিভাবে কি হলো, তা রহস্যজনক। বিষয়টি তদন্তের দাবি জানান তারা।কলারোয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মীর খায়রুল কবির জানান, মরদেহ দুটি উদ্ধার করা হয়েছে। আত্মহত্যা না হত্যাকাণ্ড সেটি এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘যুবকের শরীরে আমরা কোন আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। তবে গৃহবধূর মুখে ও গলায় আঁচড়ের দাগ রয়েছে। মরদেহ দুটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।’