ঢাকা ১১:৫৪ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২৩
সংবাদ শিরোনাম ::
ভারতবাসীকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে শহীদ পরিবারের পাশে থাকার আহবান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী হোমনায় ইয়াবা ব্যবসায়ী,সন্ত্রাসী ও চাঁদাবাজিদের গ্রেফতারের দাবিতে মানববন্ধন লামা বনবিভাগের সাড়াশি ৯ টি ব্রীকফিল্ডের প্রায় ৯ হাজার ঘনফুট গাছ জব্দ বর্তমান সরকার উন্নয়ন বান্ধব সরকার এই সরকারের সময় গ্রামীণ অবকাঠামোয় ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে বাশিস পীরগঞ্জ শাখার নবনির্বাচিতদের শপথ পাঠ করা হয়েছে খুলনা নগরের-খাঁন এ সবুর রোড-(আপার যশোর রোড)-এ-চলছে-রাস্তা সম্পসারনের কাজ রাঙামাটিতে উপজাতীয় সন্ত্রাসীদের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধে নিহত-১ সন্দ্বীপের বানীরহাটে একরাতে ১৮দোকান চুরি মেট্রোপলিটন পুলিশ (ট্রাফিক) বন্দর বিভাগের আয়োজনে সচেতনতামূলক সভা তারাকান্দায় গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী জন্মদিন উদযাপন

ভালুকা আবেদন আলী সেক ও তার ছেলেদের জমির জাল কাগজের অনুসন্ধান চলছ

ময়মনসিংহ ভালুকা উপজেলাধীন আকালিয়ায় আগত ত্রিশাল উপজেলার নারায়নপুর গ্রামের আবেদ আলীর পুত্র নুরে আলম সিদ্দিকীও তার ভাই জয়নাল আবেদীন গং। নুবে আলম সিদ্দিকী পিতা আবেদ আলী সেক,তার  পিতা মৃত ছমে সেক এর  নামে জমির জাল কাগজের ফটো কপি পাওয়ার গেছে। এই  কাগজে উল্লেখ,আবেদ আলী সেক পিতা মৃত ছমে সেক সাংনারায়নপুর ত্রিশাল -হাঃসাং আকালিয়াপাড়া ধামশুর ভালুকা ঠিকানা।যার খতিয়ান ১৭-২১, দাগ নং ১২০৭,জমির পরি.৫ একর ৩০ শতাংশ। তথ্য অনুসন্ধান কারী জানান১৭সিএস খতিয়ান-দাগ  ১২০৭ মোট জমি ৩১ একর ১৫ শতাংশ  কৃষ্ণ গোবিন্দ গুপ্তরায় পিতা কালি নারায়নগুপ্ত রায়ের নাম লিপিবদ্ধ রয়েছে । এ দাগ খতিয়ানে আবেদ আলী পিতা ছমে সেক নামের কাগজের অস্তিত্ব নেই। নুরে আলম সিদ্দিক গং সুকৌশলে জাল  কাগজ সৃষ্টি করে আরেক একটি জাল জরিপ পর্চা করেন ১৯৪২ ডিপি। এই সব ভুয়া কাগজে দেখায়ে অন্যের জমি বিক্রয় করছেন অবাধে। এই জমি বিক্রয় কারী ১। নুরে আলম সিদ্দিকী ২। ওয়াজেদ আলী ৩।  মোঃ জয়নাল আবেদীন। বিক্রিত জমির সাবেক ১২০৭ দাগ- হাল ১০৪৪১-১০৪৪২- ১০৪৪৩-১০৪৪৪ মৌজা ধামশুর ভালুকা,ময়মনসিংহ। জালিয়াত চক্রের সদস্যদের নামে ধামশুর মৌজা সঠিক দলিল পর্চায় নেই । দাগে আবু সাঈদ ঢালী সহ কয়েটি আর,ও আর এবং ভূমিহীনবন্দোবস্তের কয়েকটি কাগজ রয়েছে ভূমি অফিসে লিপিবদ্ধ। তাহাতে নিশ্চিত প্রতিয়মান হচ্ছে নুরে আলম সিদ্দিকীর কাগজ গুলো জাল ও ভিত্তিহীন। এ ছাড়া দাগেে যাদের নামে আর ও আর-বা ভূমিহীন রয়েছে  তাদের নিকট থেকে নুরে আলম সিদ্দিকী গং  রেজিষ্ট্রি কোন দলিল করেনি। তবে ভুয়া কাগজ নাম ধারীদের বিরুদ্ধে মামলা হবে। কারণ হলো নাছির উদ্দিন কুমার আবু সাঈদ ঢালীর নিকট যে জমি খরিদ করছেন সে ভুমির চৌহদ্দি দিয়ে জালিয়াত চক্রের সদস্য জয়নাল আবেদীন গং জনৈক প্রভাবশালীর নিকট জমি বিক্রি দিচ্ছে।  যাদের কোন কাগজের  ভিত্তি  এই ১২০৭ দাগে নেই তারা কি ভাবে জমি বিক্রয় করতে সাহস পেলেন ? আবুল ঢালীর নিকট থেকে যে না দাবী দলিল করছেন জালিয়াত নুরে আলম সিদ্দিক গং এর ভিত্তি নেই। এই জন্য ভিত্তি নাই, যেখানে আবুল ঢালীর জমির সত্ব নিহীত নেই দাগে,সেই না দাবী দলিল মুল্যহীন ? সত্ত্বের আড়ালে জাল কাগজ সৃষ্টি কারী চক্র বিরুদ্ধেঅনুসন্ধান চলছে। অনুসন্ধান শেষ হওয়ার পর জালিয়াত আইনের ধারাও অন্যের জমি বিক্রি করার কারনে মামলা দেয়ার প্রস্ততি নিচ্ছেন।
আরো খবর.......
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

ভারতবাসীকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে শহীদ পরিবারের পাশে থাকার আহবান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী

ভালুকা আবেদন আলী সেক ও তার ছেলেদের জমির জাল কাগজের অনুসন্ধান চলছ

আপডেট টাইম : ০৬:০০:২৯ অপরাহ্ণ, বৃহস্পতিবার, ৫ জানুয়ারি ২০২৩
ময়মনসিংহ ভালুকা উপজেলাধীন আকালিয়ায় আগত ত্রিশাল উপজেলার নারায়নপুর গ্রামের আবেদ আলীর পুত্র নুরে আলম সিদ্দিকীও তার ভাই জয়নাল আবেদীন গং। নুবে আলম সিদ্দিকী পিতা আবেদ আলী সেক,তার  পিতা মৃত ছমে সেক এর  নামে জমির জাল কাগজের ফটো কপি পাওয়ার গেছে। এই  কাগজে উল্লেখ,আবেদ আলী সেক পিতা মৃত ছমে সেক সাংনারায়নপুর ত্রিশাল -হাঃসাং আকালিয়াপাড়া ধামশুর ভালুকা ঠিকানা।যার খতিয়ান ১৭-২১, দাগ নং ১২০৭,জমির পরি.৫ একর ৩০ শতাংশ। তথ্য অনুসন্ধান কারী জানান১৭সিএস খতিয়ান-দাগ  ১২০৭ মোট জমি ৩১ একর ১৫ শতাংশ  কৃষ্ণ গোবিন্দ গুপ্তরায় পিতা কালি নারায়নগুপ্ত রায়ের নাম লিপিবদ্ধ রয়েছে । এ দাগ খতিয়ানে আবেদ আলী পিতা ছমে সেক নামের কাগজের অস্তিত্ব নেই। নুরে আলম সিদ্দিক গং সুকৌশলে জাল  কাগজ সৃষ্টি করে আরেক একটি জাল জরিপ পর্চা করেন ১৯৪২ ডিপি। এই সব ভুয়া কাগজে দেখায়ে অন্যের জমি বিক্রয় করছেন অবাধে। এই জমি বিক্রয় কারী ১। নুরে আলম সিদ্দিকী ২। ওয়াজেদ আলী ৩।  মোঃ জয়নাল আবেদীন। বিক্রিত জমির সাবেক ১২০৭ দাগ- হাল ১০৪৪১-১০৪৪২- ১০৪৪৩-১০৪৪৪ মৌজা ধামশুর ভালুকা,ময়মনসিংহ। জালিয়াত চক্রের সদস্যদের নামে ধামশুর মৌজা সঠিক দলিল পর্চায় নেই । দাগে আবু সাঈদ ঢালী সহ কয়েটি আর,ও আর এবং ভূমিহীনবন্দোবস্তের কয়েকটি কাগজ রয়েছে ভূমি অফিসে লিপিবদ্ধ। তাহাতে নিশ্চিত প্রতিয়মান হচ্ছে নুরে আলম সিদ্দিকীর কাগজ গুলো জাল ও ভিত্তিহীন। এ ছাড়া দাগেে যাদের নামে আর ও আর-বা ভূমিহীন রয়েছে  তাদের নিকট থেকে নুরে আলম সিদ্দিকী গং  রেজিষ্ট্রি কোন দলিল করেনি। তবে ভুয়া কাগজ নাম ধারীদের বিরুদ্ধে মামলা হবে। কারণ হলো নাছির উদ্দিন কুমার আবু সাঈদ ঢালীর নিকট যে জমি খরিদ করছেন সে ভুমির চৌহদ্দি দিয়ে জালিয়াত চক্রের সদস্য জয়নাল আবেদীন গং জনৈক প্রভাবশালীর নিকট জমি বিক্রি দিচ্ছে।  যাদের কোন কাগজের  ভিত্তি  এই ১২০৭ দাগে নেই তারা কি ভাবে জমি বিক্রয় করতে সাহস পেলেন ? আবুল ঢালীর নিকট থেকে যে না দাবী দলিল করছেন জালিয়াত নুরে আলম সিদ্দিক গং এর ভিত্তি নেই। এই জন্য ভিত্তি নাই, যেখানে আবুল ঢালীর জমির সত্ব নিহীত নেই দাগে,সেই না দাবী দলিল মুল্যহীন ? সত্ত্বের আড়ালে জাল কাগজ সৃষ্টি কারী চক্র বিরুদ্ধেঅনুসন্ধান চলছে। অনুসন্ধান শেষ হওয়ার পর জালিয়াত আইনের ধারাও অন্যের জমি বিক্রি করার কারনে মামলা দেয়ার প্রস্ততি নিচ্ছেন।