ঢাকা ০১:০০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
ভাঙা কালভার্টের সড়কে ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত দেশের ক্ষতি চায় বিএনপি’ভারতের সঙ্গে বৈরী সম্পর্ক সৃষ্টি করে রাশিয়ার দুটি জ্বালানি ডিপোতে ড্রোন হামলায় আগুন যা বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বেনজীর ও আছাদুজ্জামানের সম্পদ নিয়ে এবার মুখ খুললেন বছরে ৯২ হাজার কোটি টাকা পাচার হয়: সাবেক পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী মতিউর রহমান একজন জাতীয় রাজস্ব কর্মকর্তা। বর্তমানে কাস্টমস তার বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদের পাহাড় রয়েছে সাবেক পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামানের দুর্নীতি তদন্তে নামছে দুদক? বেনজীর সময় পাবেনা আর জানালেন দুদক আইনজীবী রাজধানী যাত্রাবাড়ীতে স্ত্রীর লাশ ঘরে, পার্কিংয়ে স্বামীর লাশ

ভন্ড কবিরাজ তান্ত্রিকদের দৌরাত্ম 

  • সময়ের কন্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট টাইম : ০৯:১৬:১৪ পূর্বাহ্ণ, বৃহস্পতিবার, ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১
  • ১৩৮০ ০.০০০ বার পাঠক

এস.এম মনির,স্টাফ রিপোর্টার।।

যার একিন আছে তার সেফা আছে ” এমন মন গোলানো শিরোনামে বিজ্ঞাপন প্রায় দেখা যায়, বিভিন্ন জায়গায় ভন্ড তান্ত্রিক কবিরাজদের দৌরাত্ম বেড়েই চলছে। কুমিল্লা বুড়িচং থানায় এমন এক ভন্ড তান্ত্রিক কবিরাজের খোজ পাওয়া গেছে যিনি গ্যারান্টি দিয়া বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের কথা বলে সাধারন মানুষের সাথে প্রতারনা করে লক্ষ্য লক্ষ্য টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। সাধারণ মানুষ স্বল্প টাকায় রোগ সাড়ানোর জন্য, কঠিন সমস্যা সমাধানের জন্য কবিরাজের কাছে গেলে ভুক্তভোগীর দুর্বলতাকে কাজে লাগিয়ে লক্ষ্য লক্ষ্য টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। বিলকিস নামে এক ভুক্তভোগীর সাথে কথা বললে তিনি বলেন যে আমার স্বামী পর নারীর প্রতি আসক্ত, আমাকে ইকটুও ভালো কয় না এই সমস্যার জন্য তার কাছে গেছিলাম কবিরাজ আমার কাছে বিশ হাজার টাকা দাবি করে আমি স্বামী কে বশে আনার জন্য আমার একমাত্র সম্বল হাতের রোলি বিক্রি করে কবিরাজ কে দেই কিন্তু স্বামী আমার আজও বশে আসনি। কবিরাজের সাথে আবার দেখা করলে আমাকে জানায় যে আমার স্বামী কে নাকি কোন মেয়ে জ্বিন চালান দিয়েছে তাই আমাকে দেখতে পারে না এই জ্বিন তার থেকে সাড়াতে হলে আরো ৩০ হাজার টাকা দিতে হবে।

রহিম নামে এক ভুক্তভোগীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি দীর্ঘ দিন যাবৎ বিদেশে চেষ্টা করেও যেতে পারছিলাম না তারপর এক ভাইয়ের পরামর্শে এই কবিরাজের কাছে আসি সে আমার কাছে চল্লিশ হাজার টাকা দাবি করে আমি বিদেশ যাওয়ার লোভে জমি বিক্রি করে তাকে টাকা টা দেই কিন্তু এখনো আমার বিদেশ যাওয়া হয়নি আর কবে তাও জানি না।

নাম না প্রকাশে এক বয়স্ক মহিলা জানান তার মেয়ের বিয়ে হচ্ছিলো না তাই মেয়ে কে নিয়া কবিরাজের কাছে নিয়ে গেছিলাম তার পর কি হলো আমার মেয়ে আর ঘরে থাকে না ২৪ ঘন্টা ওই কবিরাজের ওখানেই থাকে বাসায় আসে না আমাদের সাথেও যোগাযোগ রাখে না এভাবে আরো অনেক মেয়েকে তার দরবারে এনেছে। আর রাত হলে তার দরবারে বিভিন্ন পুরুষের আনা-গনা বেরে যায়। আরেক সন্তান হাড়া মা আমাদের জানায় তার ছেলেকে নাকি এই কবিরাজ কুফরি করে বান মেরে হত্যা করেছে।

সরজমিনে কবিরাজের কথা বললে কবিরাজ জানান যে আমি অনেক সাধনা করে এই অলৌকিক শক্তি অর্জন করেছি,আল্লাহর কালাম পরে জার ফোক দেই, আর আমি গ্যারান্টি দিয়া কাজ করি, কাজ না হলে টাকা ফিরত দেই, কিছু লোক আমার সাফল্য দেখে আমার ষড়যন্ত্র করছে।

এলাকার কিছু মানুষ আমাদের জানান যে এই কবিরাজ মহিলা ভন্ড, ভূয়া ওনার তিন চার বিয়ে হয়েছে কোন স্বামীর সাথেই সে সংসার করতে পারেনি, ওনি দীর্ঘ দিন নিখোঁজ ছিলো হঠাৎ করে এলাকায় এসে নিজেকে একজন কবিরাজ দাবি করে, তার এই কাজ সফল ভাবে চালিয়ে যাওয়ার জন্য এলাকার কিছু লোক কে হাত করে নিয়েছে এবং তার কিছু পুরুষ- মহিলা আছে যারা বিভিন্ন  জায়গায় তার কবিরাজির ব্যাপারে প্রচার করে এবং মানুষ কে তার কাছে আসতে উৎসাহিত করে। অনুসন্ধান চলছে…

আরো খবর.......

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

ভাঙা কালভার্টের সড়কে ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন

ভন্ড কবিরাজ তান্ত্রিকদের দৌরাত্ম 

আপডেট টাইম : ০৯:১৬:১৪ পূর্বাহ্ণ, বৃহস্পতিবার, ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১

এস.এম মনির,স্টাফ রিপোর্টার।।

যার একিন আছে তার সেফা আছে ” এমন মন গোলানো শিরোনামে বিজ্ঞাপন প্রায় দেখা যায়, বিভিন্ন জায়গায় ভন্ড তান্ত্রিক কবিরাজদের দৌরাত্ম বেড়েই চলছে। কুমিল্লা বুড়িচং থানায় এমন এক ভন্ড তান্ত্রিক কবিরাজের খোজ পাওয়া গেছে যিনি গ্যারান্টি দিয়া বিভিন্ন সমস্যার সমাধানের কথা বলে সাধারন মানুষের সাথে প্রতারনা করে লক্ষ্য লক্ষ্য টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। সাধারণ মানুষ স্বল্প টাকায় রোগ সাড়ানোর জন্য, কঠিন সমস্যা সমাধানের জন্য কবিরাজের কাছে গেলে ভুক্তভোগীর দুর্বলতাকে কাজে লাগিয়ে লক্ষ্য লক্ষ্য টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। বিলকিস নামে এক ভুক্তভোগীর সাথে কথা বললে তিনি বলেন যে আমার স্বামী পর নারীর প্রতি আসক্ত, আমাকে ইকটুও ভালো কয় না এই সমস্যার জন্য তার কাছে গেছিলাম কবিরাজ আমার কাছে বিশ হাজার টাকা দাবি করে আমি স্বামী কে বশে আনার জন্য আমার একমাত্র সম্বল হাতের রোলি বিক্রি করে কবিরাজ কে দেই কিন্তু স্বামী আমার আজও বশে আসনি। কবিরাজের সাথে আবার দেখা করলে আমাকে জানায় যে আমার স্বামী কে নাকি কোন মেয়ে জ্বিন চালান দিয়েছে তাই আমাকে দেখতে পারে না এই জ্বিন তার থেকে সাড়াতে হলে আরো ৩০ হাজার টাকা দিতে হবে।

রহিম নামে এক ভুক্তভোগীর কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি দীর্ঘ দিন যাবৎ বিদেশে চেষ্টা করেও যেতে পারছিলাম না তারপর এক ভাইয়ের পরামর্শে এই কবিরাজের কাছে আসি সে আমার কাছে চল্লিশ হাজার টাকা দাবি করে আমি বিদেশ যাওয়ার লোভে জমি বিক্রি করে তাকে টাকা টা দেই কিন্তু এখনো আমার বিদেশ যাওয়া হয়নি আর কবে তাও জানি না।

নাম না প্রকাশে এক বয়স্ক মহিলা জানান তার মেয়ের বিয়ে হচ্ছিলো না তাই মেয়ে কে নিয়া কবিরাজের কাছে নিয়ে গেছিলাম তার পর কি হলো আমার মেয়ে আর ঘরে থাকে না ২৪ ঘন্টা ওই কবিরাজের ওখানেই থাকে বাসায় আসে না আমাদের সাথেও যোগাযোগ রাখে না এভাবে আরো অনেক মেয়েকে তার দরবারে এনেছে। আর রাত হলে তার দরবারে বিভিন্ন পুরুষের আনা-গনা বেরে যায়। আরেক সন্তান হাড়া মা আমাদের জানায় তার ছেলেকে নাকি এই কবিরাজ কুফরি করে বান মেরে হত্যা করেছে।

সরজমিনে কবিরাজের কথা বললে কবিরাজ জানান যে আমি অনেক সাধনা করে এই অলৌকিক শক্তি অর্জন করেছি,আল্লাহর কালাম পরে জার ফোক দেই, আর আমি গ্যারান্টি দিয়া কাজ করি, কাজ না হলে টাকা ফিরত দেই, কিছু লোক আমার সাফল্য দেখে আমার ষড়যন্ত্র করছে।

এলাকার কিছু মানুষ আমাদের জানান যে এই কবিরাজ মহিলা ভন্ড, ভূয়া ওনার তিন চার বিয়ে হয়েছে কোন স্বামীর সাথেই সে সংসার করতে পারেনি, ওনি দীর্ঘ দিন নিখোঁজ ছিলো হঠাৎ করে এলাকায় এসে নিজেকে একজন কবিরাজ দাবি করে, তার এই কাজ সফল ভাবে চালিয়ে যাওয়ার জন্য এলাকার কিছু লোক কে হাত করে নিয়েছে এবং তার কিছু পুরুষ- মহিলা আছে যারা বিভিন্ন  জায়গায় তার কবিরাজির ব্যাপারে প্রচার করে এবং মানুষ কে তার কাছে আসতে উৎসাহিত করে। অনুসন্ধান চলছে…