ঢাকা ০২:১০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
কোটা সংস্কারের পক্ষে সরকার নীতিগতভাবে একমত: আইনমন্ত্রী ঘোষণার পর মানছেন না কোটা আন্দোলনকারীরা আমার ভাইদের ফেরত দেওয়া হোক আগে রায়পুরে বালু উত্তোলনে ভাঙন আতঙ্ক সরকারের কাছ থেকে দৃশ্যমান পদক্ষেপ ও সমাধানের পথ তৈরির প্রত্যাশা করে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন শনির আখড়া-যাত্রাবাড়ী সড়কে চলছে সংঘর্ষ, যান চলালাচল অচল করে দিচ্ছেন ফেসবুক লাইভে এসে পদত্যাগের ঘোষণা ছাত্রলীগ নেতার উত্তরায় গুলিতে নর্দান বিশ্ববিদ্যালয়ের ২ শিক্ষার্থী নিহত কমপ্লিট শাটডাউন ঢাকার সঙ্গে সব জেলার যোগাযোগ বন্ধ, টার্মিনাল থেকে ছাড়ছে না কোনো বাস ফুলবাড়ীর দৌলতপুর ইউনিয়নে গরু চুরির হিড়িক দেশবাসীর প্রতি মির্জা ফখরুলের আহ্বান, শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়ান অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঢাবি, ৬টার মধ্যে হল ছাড়ার নির্দেশ

উচ্ছেদ অভিযানে ক্ষতিগ্রস্থদের পুনর্বাসনের দাবি মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের

সময়ের কন্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট টাইম : ০২:১১:১২ অপরাহ্ণ, সোমবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২১
  • / ৩১৭ ৫০০.০০০ বার পাঠক

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার ॥

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের উচ্ছেদ অভিযানে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের পুনর্বাসনের দাবিতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

আজ ২৫ জানুয়ারী সোমবার বিকাল ৩টায় শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক উচ্ছেদ অভিযানে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের ও সাধারণ মানুষদের পুনর্বাসন ও ক্ষতিপূরণ প্রদানের দাবিতে ভুক্তভোগী পরিবারদের সাথে নিয়ে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ, কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো: আল মামুনের সঞ্চালনায় উক্ত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন মঞ্চের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল। আরোও বক্তব্য রাখেন ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার সদস্য নাসিম মিয়া, ওয়ালীউল্লাহ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সনেট মাহমুদসহ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ এর দুই দফা হলোঃ করোনা সংকটকালীন ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক উচ্ছেদ অভিযানে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষদেরকে পুর্নবাসন এবং ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। করোনা সংকটে মানবিক দিক বিবেচনা করে ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনের সকল উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা বন্ধ করতে হবে।

আমিনুল ইসলাম বুলবুল বলেন, “সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন জায়গায় স্থাপিত অবৈধ দোকান ও বাড়ি উচ্ছেদ করা সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষের নৈতিক দায়িত্ব। আমরাও চাই ঢাকা শহরসহ সমগ্র দেশে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হোক। কিন্তু সেই উচ্ছেদ অভিযানগুলো করোনা সংকট বিবেচনা করে যৌক্তিক সময়ে পরিচালনা করা উচিত ছিল।

করোনা ভাইরাস সংকট বিবেচনা না করে, কোন যৌক্তিক সময় না দিয়ে এবং মানবিক দিক বিবেচনা না করেই ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন অবৈধ উচ্ছেদের মাধ্যমে বুলডোজার দিয়ে হাজার হাজার দোকান গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে যার ফলশ্রুতিতে গুড়িয়ে দেয়া দোকানগুলোর মালিক ও কর্মচারীরা স্বপরিবারে পথে বসে গেছেন।”

মো: আল মামুন বলেন, “ঢাকার দুই মেয়রকে মনে রাখতে হবে যে, জনগণই কিন্তু সকল ক্ষমতার উৎস। জনগণই কিন্তু আপনাদের ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছেন। জনগণের ট্যাক্সের টাকায় এই রাষ্ট্র পরিচালিত হয়।

সুতরাং জনগণের স্বার্থকে প্রাধান্য দিয়েই আপনাদেরকে দায়িত্ব পালন করতে হবে। করোনা দুর্যোগকালীন দুই সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষকে জনগণের সুবিধা-অসুবিধার কথা বিবেচনা করেই উচ্ছেদ অভিযানের সিদ্ধান্ত নেয়া উচিত ছিল। কারণ দুই সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষের অমানবিক ও অযৌক্তিক সিদ্ধান্ত অনেক পরিবারের স্বপ্ন ভেঙ্গে দিয়েছে, পরিবারগুলোর দুঃখ-কষ্ট বাড়িয়ে দিয়েছে।

আরো খবর.......

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

উচ্ছেদ অভিযানে ক্ষতিগ্রস্থদের পুনর্বাসনের দাবি মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চের

আপডেট টাইম : ০২:১১:১২ অপরাহ্ণ, সোমবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২১

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার ॥

ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের উচ্ছেদ অভিযানে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের পুনর্বাসনের দাবিতে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

আজ ২৫ জানুয়ারী সোমবার বিকাল ৩টায় শাহবাগ জাতীয় জাদুঘরের সামনে ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক উচ্ছেদ অভিযানে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীদের ও সাধারণ মানুষদের পুনর্বাসন ও ক্ষতিপূরণ প্রদানের দাবিতে ভুক্তভোগী পরিবারদের সাথে নিয়ে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ।

বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ, কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো: আল মামুনের সঞ্চালনায় উক্ত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন মঞ্চের সভাপতি আমিনুল ইসলাম বুলবুল। আরোও বক্তব্য রাখেন ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার সদস্য নাসিম মিয়া, ওয়ালীউল্লাহ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি সনেট মাহমুদসহ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ এর দুই দফা হলোঃ করোনা সংকটকালীন ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক উচ্ছেদ অভিযানে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ী ও সাধারণ মানুষদেরকে পুর্নবাসন এবং ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। করোনা সংকটে মানবিক দিক বিবেচনা করে ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশনের সকল উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা বন্ধ করতে হবে।

আমিনুল ইসলাম বুলবুল বলেন, “সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন জায়গায় স্থাপিত অবৈধ দোকান ও বাড়ি উচ্ছেদ করা সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষের নৈতিক দায়িত্ব। আমরাও চাই ঢাকা শহরসহ সমগ্র দেশে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হোক। কিন্তু সেই উচ্ছেদ অভিযানগুলো করোনা সংকট বিবেচনা করে যৌক্তিক সময়ে পরিচালনা করা উচিত ছিল।

করোনা ভাইরাস সংকট বিবেচনা না করে, কোন যৌক্তিক সময় না দিয়ে এবং মানবিক দিক বিবেচনা না করেই ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন অবৈধ উচ্ছেদের মাধ্যমে বুলডোজার দিয়ে হাজার হাজার দোকান গুড়িয়ে দেয়া হয়েছে যার ফলশ্রুতিতে গুড়িয়ে দেয়া দোকানগুলোর মালিক ও কর্মচারীরা স্বপরিবারে পথে বসে গেছেন।”

মো: আল মামুন বলেন, “ঢাকার দুই মেয়রকে মনে রাখতে হবে যে, জনগণই কিন্তু সকল ক্ষমতার উৎস। জনগণই কিন্তু আপনাদের ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছেন। জনগণের ট্যাক্সের টাকায় এই রাষ্ট্র পরিচালিত হয়।

সুতরাং জনগণের স্বার্থকে প্রাধান্য দিয়েই আপনাদেরকে দায়িত্ব পালন করতে হবে। করোনা দুর্যোগকালীন দুই সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষকে জনগণের সুবিধা-অসুবিধার কথা বিবেচনা করেই উচ্ছেদ অভিযানের সিদ্ধান্ত নেয়া উচিত ছিল। কারণ দুই সিটি কর্পোরেশন কর্তৃপক্ষের অমানবিক ও অযৌক্তিক সিদ্ধান্ত অনেক পরিবারের স্বপ্ন ভেঙ্গে দিয়েছে, পরিবারগুলোর দুঃখ-কষ্ট বাড়িয়ে দিয়েছে।