ঢাকা ১১:৪৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ জুন ২০২২
সংবাদ শিরোনাম ::
নান্দাইলে প্রতিবন্ধি নজরুলকে হুইলচেয়ার উপহার পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে ইপিজেড থানা জাতীয় শ্রমিকলীগের উদগ্যে মোটরসাইকেল র‌্যালী ও মিষ্টি বিতরণ অনুষ্ঠিত আমার টাকায় আমার সেতু, বাংলাদেশ পদ্মা সেতু প্রতিপাদ্য কে সমনে রেখে মেহেন্দিগঞ্জ থানা পুলিশ বাহিনীর আয়োজন নান্দাইলে পদ্মাসেতু উদ্বোধন উপলক্ষে উপজেলা আ’লীগের আনন্দ র্যালী অনুষ্ঠিত বিসিএস ডাক্তারের বিরুদ্ধে শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনের অভিযোগ দ্বিতীয় স্ত্রীর এক নজরে পদ্মা সেতু নাম : পদ্মা সেতু, আছ সফল দক্ষিণ অঞ্চলের জনগণ পদ্ম সেতু উদ্বোধন উপলক্ষ্যে বিরামপুরে আনন্দ র‍্যালী পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে মোংলা উপজেলা প্রশাসনের আনন্দ মিছিল পাথরঘাটার রায়হানপুরে গভীর রাতে ডাকাতে হামলা, আহত -৪ পদ্মা সেতু পারাপারে প্রথম টোল প্রদান করলেন সেতুর স্থপতি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

জায়েদের বিরুদ্ধে ওমর সানীর অভিযোগ নিয়ে যা বললেন। ইলিয়াস কাঞ্চন

হঠাৎ করেই চিত্রনায়ক জায়েদ খানের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ তুললেন ঢাকাই ছবির আরেক চিত্রনায়ক ওমর সানী।

অভিযোগগুলোর সবই চিত্রনায়িকা মৌসুমীকে ঘিরে; জায়েদ খান সানী-মৌসুমীর সুখের সংসারে ভাঙনের চেষ্টা করছেন, মৌসুমীকে গত ৪ মাস ধরে বিরক্ত করছেন জায়েদ।

আর এসব অভিযোগ নিয়ে শিল্পী সমিতির সভাপতি ইলিয়াস কাঞ্চন বরাবর অভিযোগপত্রও লিখেছেন সানী।

বিষয়টি নিয়ে যখন উত্তাল সিনেপাড়া তখন ওমর সানীর অভিযোগপত্র নিয়ে কথা বললেন  শিল্পী সমিতির সভাপতি ইলিয়াস কাঞ্চন।

এ চিত্রনায়ক গণমাধ্যমকে বলেন, ‘ওমর সানীর দেয়া লিখিত অভিযোগের চিঠি হাতে পেয়েছি। এই বিষয়ে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির আগামী সভায় কথা হবে। তারপর সম্পাদক ও কার্যনির্বাহী সদস্যরা মিলে আমরা এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেব। অল্প কিছুদিন আগেই একটি সভা হয়ে গেছে। সভার নির্ধারিত তারিখ ঠিক করা হয়নি এখনো।’

মূলত: ঘটনার সূত্রপাত গত ১০ জুন রাতে অভিনেতা মনোয়ার হোসেন ডিপজলের ছেলের বিয়ের অনুষ্ঠানে।

রাজধানীর একটি কনভেনশন সেন্টারের সেই অনুষ্ঠানে জায়েদকে চড় মারেন সানী। জায়েদ পিস্তল দেখিয়ে গুলি কর দেবেন বলে হুমকি দেন সানীকে। এরপর দুজনেই খাবার না খেয়ে বেরিয়ে যান।

যদিও চড়-পিস্তলের বিষয়টি রীতিমতো অস্বীকার করে আসছেন জায়েদ খান ও ডিপজল।

তবে এরপরই জায়েদের বিরুদ্ধে সংসার ভাঙা ও তাকে হত্যার হুমকির অভিযোগ এনে শিল্পী সমিতির কাছে বিচার চান ওমর সানী।

ওই অভিযোগপত্রে ইলিয়াস কাঞ্চন বরাবর ওমর সানী লিখেছেন, ‘জায়েদ খান দ্বারা আমার সংসার ভাঙা এবং আমাকে পিস্তল বের করে মেরে ফেলার হুমকি প্রসঙ্গে অভিযোগ।’

ওমর সানী লেখেন, ‘আমি ওমর সানি অত্র সমিতির একজন সদস্য এবং সাবেক কমিটির সহ-সভাপতি ছিলাম। দীর্ঘ ৩২ বছর ধরে চলচ্চিত্রে অভিনয় করে আসছি। কিন্তু দুঃখের বিষয় এই যে, সমিতির সদস্য জায়েদ খান চার মাস ধরে আমার স্ত্রী আরিফা পারভীন জামান মৌসুমীকে নানাভাবে হয়রানি ও বিরক্ত করে আসছে। আমার সুখের সংসার ভাঙার জন্য বিভিন্ন কৌশলে তাকে হেয়প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করে আসছে। এ ব্যাপারে তাকে হোয়াটসঅ্যাপে মেসেজ দিয়ে বারবার বোঝানো চেষ্টা করেছি।

তার প্রমাণ আমার এবং আমার ছেলের কাছেও আছে। তাছাড়া মুরুব্বি হিসেবে আমি ডিপজল ভাইয়ের কাছে এ বিষয়ে অভিযোগ করেছি। কিন্তু ওই বিষয়ের কোনো সমাধান হয়নি। ডিপজল ভাইয়ের ছেলের বিয়েতে জায়েদ খানের সাথে দেখা হলে এ বিষয়ে সংযত হওয়ার জন্য আমি অনুরোধ করি। এতে সে আমার ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে এবং হঠাৎ করে তার পিস্তল বের করে আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।

অতএব আমি মনে করি এমন একজন পিস্তলধারী সন্ত্রাসী বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সদস্য থাকতে পারে না। উল্লেখিত বিষয়ে বিশেষভাবে বিবেচনা-পূর্বক জায়েদ খানের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আমি বিনীত অনুরোধ করছি।

জাতীয় আরো খবর.......
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

নান্দাইলে প্রতিবন্ধি নজরুলকে হুইলচেয়ার উপহার

জায়েদের বিরুদ্ধে ওমর সানীর অভিযোগ নিয়ে যা বললেন। ইলিয়াস কাঞ্চন

আপডেট টাইম : ০৬:৪৮:০৬ অপরাহ্ণ, মঙ্গলবার, ১৪ জুন ২০২২

হঠাৎ করেই চিত্রনায়ক জায়েদ খানের বিরুদ্ধে গুরুতর অভিযোগ তুললেন ঢাকাই ছবির আরেক চিত্রনায়ক ওমর সানী।

অভিযোগগুলোর সবই চিত্রনায়িকা মৌসুমীকে ঘিরে; জায়েদ খান সানী-মৌসুমীর সুখের সংসারে ভাঙনের চেষ্টা করছেন, মৌসুমীকে গত ৪ মাস ধরে বিরক্ত করছেন জায়েদ।

আর এসব অভিযোগ নিয়ে শিল্পী সমিতির সভাপতি ইলিয়াস কাঞ্চন বরাবর অভিযোগপত্রও লিখেছেন সানী।

বিষয়টি নিয়ে যখন উত্তাল সিনেপাড়া তখন ওমর সানীর অভিযোগপত্র নিয়ে কথা বললেন  শিল্পী সমিতির সভাপতি ইলিয়াস কাঞ্চন।

এ চিত্রনায়ক গণমাধ্যমকে বলেন, ‘ওমর সানীর দেয়া লিখিত অভিযোগের চিঠি হাতে পেয়েছি। এই বিষয়ে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির আগামী সভায় কথা হবে। তারপর সম্পাদক ও কার্যনির্বাহী সদস্যরা মিলে আমরা এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেব। অল্প কিছুদিন আগেই একটি সভা হয়ে গেছে। সভার নির্ধারিত তারিখ ঠিক করা হয়নি এখনো।’

মূলত: ঘটনার সূত্রপাত গত ১০ জুন রাতে অভিনেতা মনোয়ার হোসেন ডিপজলের ছেলের বিয়ের অনুষ্ঠানে।

রাজধানীর একটি কনভেনশন সেন্টারের সেই অনুষ্ঠানে জায়েদকে চড় মারেন সানী। জায়েদ পিস্তল দেখিয়ে গুলি কর দেবেন বলে হুমকি দেন সানীকে। এরপর দুজনেই খাবার না খেয়ে বেরিয়ে যান।

যদিও চড়-পিস্তলের বিষয়টি রীতিমতো অস্বীকার করে আসছেন জায়েদ খান ও ডিপজল।

তবে এরপরই জায়েদের বিরুদ্ধে সংসার ভাঙা ও তাকে হত্যার হুমকির অভিযোগ এনে শিল্পী সমিতির কাছে বিচার চান ওমর সানী।

ওই অভিযোগপত্রে ইলিয়াস কাঞ্চন বরাবর ওমর সানী লিখেছেন, ‘জায়েদ খান দ্বারা আমার সংসার ভাঙা এবং আমাকে পিস্তল বের করে মেরে ফেলার হুমকি প্রসঙ্গে অভিযোগ।’

ওমর সানী লেখেন, ‘আমি ওমর সানি অত্র সমিতির একজন সদস্য এবং সাবেক কমিটির সহ-সভাপতি ছিলাম। দীর্ঘ ৩২ বছর ধরে চলচ্চিত্রে অভিনয় করে আসছি। কিন্তু দুঃখের বিষয় এই যে, সমিতির সদস্য জায়েদ খান চার মাস ধরে আমার স্ত্রী আরিফা পারভীন জামান মৌসুমীকে নানাভাবে হয়রানি ও বিরক্ত করে আসছে। আমার সুখের সংসার ভাঙার জন্য বিভিন্ন কৌশলে তাকে হেয়প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করে আসছে। এ ব্যাপারে তাকে হোয়াটসঅ্যাপে মেসেজ দিয়ে বারবার বোঝানো চেষ্টা করেছি।

তার প্রমাণ আমার এবং আমার ছেলের কাছেও আছে। তাছাড়া মুরুব্বি হিসেবে আমি ডিপজল ভাইয়ের কাছে এ বিষয়ে অভিযোগ করেছি। কিন্তু ওই বিষয়ের কোনো সমাধান হয়নি। ডিপজল ভাইয়ের ছেলের বিয়েতে জায়েদ খানের সাথে দেখা হলে এ বিষয়ে সংযত হওয়ার জন্য আমি অনুরোধ করি। এতে সে আমার ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে এবং হঠাৎ করে তার পিস্তল বের করে আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।

অতএব আমি মনে করি এমন একজন পিস্তলধারী সন্ত্রাসী বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সদস্য থাকতে পারে না। উল্লেখিত বিষয়ে বিশেষভাবে বিবেচনা-পূর্বক জায়েদ খানের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আমি বিনীত অনুরোধ করছি।