ঢাকা ০৪:৩১ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
পানি নিস্কাশনের রাস্তা বন্ধ করে পুকুর নির্মানের কারনে প্রায় শত বিঘা ফসলী জমি পানির নীচে ইবি শিক্ষার্থীকে গলাটিপে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে তদন্ত কমিটি গঠন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় বেগম জাহানারা হান্নান উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩য় বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্টিত জামালপুরে ভেজাল কীটনাশকে বাজার সয়লাব, কৃষি শিল্প ধ্বংসের পাঁয়তারা মোংলায় সিবিএ নির্বাচন নিয়ে শ্রমিক-কর্মচারীদের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে নওগাঁ প্রাইভেট কার থেকে ৭২ কেজি গাঁজাসহ এক জন গ্রেপ্তার ভাষা সৈনিক মোস্তফা এম এ মতিন সাহিত্য পুরস্কার পেলেন হোসেনপুরের কবি শাহ আলম বিল্লাল গুজরাটের পোরবন্দরের জলসীমায় ২২০০০হাজার, কোটি টাকার মাদকদ্রব্য আটক করেছে নৌবাহিনী ও এনসিবি, গ্রেপ্তার পাঁচ পাক নাগরিক রায়পুরে অসামাজিক কার্যকলাপে আটক ৫ রাজধানীর ৪ হাসপাতালে র‍্যাবের অভিযান

নবীনগরে মেয়ের জন্ম নিবন্ধন করতে গিয়ে মা ফিরলেন লাশ হয়ে।

স্টাফ রিপোর্টার বাবু কাহারুল ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর।। কোম্পানীগঞ্জ সড়কে গাড়ির জন্য অপেক্ষা করছিলেন রহিমা বেগম। এ সময় সড়কের পাশ থাকা একটি মরা গাছ ভেঙে মা-মেয়েসহ ৪ জন গুরুতর আহত হয়, আশপাশের লোকজন তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পথেই রহিমা বেগম মারা যায়।

নবীনগর পৌর এলাকার ভোলাচং গ্রামের মৃত- আব্দুল কাদির মিয়ার স্ত্রী। সোমবার দুপুরে নবীনগর উপজেলার ভোলাচং এলাকার গড়েরপাড় ব্রিজের কাছে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নবীনগর পৌর এলাকার ভোলাচং গ্রামের মৃত- আব্দুল কাদির মিয়ার স্ত্রী রহিমা বেগম (৬৫) সোমবার দুপুরে তার মেয়ে বিলকিস বেগমের নিবন্ধন করতে আরো দুই প্রতিবেশী, সখিনা বেগম ও শরীফ মিয়া নবীনগর যেতে, বাড়ির সামনে নবীনগর কোম্পানিগঞ্জ সড়কে গাড়ির জন্য অপেক্ষা করছিল, এ সময় রাস্তার পাশে থাকা একটি মরা গাছের অংশ হঠাৎ করে ভেঙে তাদের সকলের উপর পরে গুরুতর আহত হন, গাছের নিচে চাপা পরে মাথায় গুরুতর আঘাত পান রহিমা বেগম। পরে আশপাশের লোকজন আহতের উদ্ধার উদ্ধার করে নবীনগর সরকারি হাসপাতালে নিয়ে গেলে রহিমা বেগমকে মৃত বলে ঘোষণা করেন ডাক্তার।স্থানীয়রা জানান, নবীনগর-কোম্পানীগঞ্জ সড়কের দুইপাশে সওজের দুই পাশের মরা গাছের ঢালপালা ভেঙে পরার কারণে প্রায় সময় এমন দুর্ঘটনায় ঘটনায় বহু লোক আহত হয়ে থাকে।
নবীনগর পৌর মেয়র অ্যাডভোকেট শিব শংকর দাস বলেন, ঘটনাটি খুবই মর্মান্তিক ও বেদনাদায়ক, নিহতের বাড়িতে গিয়ে পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা ও পৌরসভার পক্ষ থেকে আর্থিক সহযোগিতা করা হয়েছে।
তিনি আরো বলেন, দ্রুত সওজের এই মরা গাছগুলো কাটার উদ্যোগ করার দাবি করছি, এক বছরের তিনটি বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটেছে মরা গাছ ভেঙে।
নবীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একরামুল ছিদ্দিক বলেন, দুর্ঘটনার সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে ও নিহতের বাড়িতে গিয়েছি, নিহতের লাশ দাফন কাফনের জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২০ হাজার টাকা আর্থিক অনুদান দেয়া হয়েছে। সড়কের পাশের মরা গাছগুলো খুবই ঝুকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। এ নিয়ে সওজের কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলেছি, গাছ কাটার বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া জন্য বলেছি।
এ বিষয়ে সওজের ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নির্বাহী পরিচালক পংকজ ভৌমিক বলেন, দ্রুত সময়ের মাঝে ঝুঁকিপূর্ণ মরা গাছগুলো গাছ কাটার বিষয়ে সার্ভে শুরু করা হবে। তিনি আরো বলেন, মানবিক কারণে নিহতের পরিবারকে ও আহতের চিকিৎসার জন্য কিভাবে সহযোগিতা করা যায় এই বিষয়টি দেখবো।

আরো খবর.......

জনপ্রিয় সংবাদ

পানি নিস্কাশনের রাস্তা বন্ধ করে পুকুর নির্মানের কারনে প্রায় শত বিঘা ফসলী জমি পানির নীচে

নবীনগরে মেয়ের জন্ম নিবন্ধন করতে গিয়ে মা ফিরলেন লাশ হয়ে।

আপডেট টাইম : ০২:৩৭:০৮ অপরাহ্ণ, সোমবার, ৬ ডিসেম্বর ২০২১

স্টাফ রিপোর্টার বাবু কাহারুল ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর।। কোম্পানীগঞ্জ সড়কে গাড়ির জন্য অপেক্ষা করছিলেন রহিমা বেগম। এ সময় সড়কের পাশ থাকা একটি মরা গাছ ভেঙে মা-মেয়েসহ ৪ জন গুরুতর আহত হয়, আশপাশের লোকজন তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পথেই রহিমা বেগম মারা যায়।

নবীনগর পৌর এলাকার ভোলাচং গ্রামের মৃত- আব্দুল কাদির মিয়ার স্ত্রী। সোমবার দুপুরে নবীনগর উপজেলার ভোলাচং এলাকার গড়েরপাড় ব্রিজের কাছে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, নবীনগর পৌর এলাকার ভোলাচং গ্রামের মৃত- আব্দুল কাদির মিয়ার স্ত্রী রহিমা বেগম (৬৫) সোমবার দুপুরে তার মেয়ে বিলকিস বেগমের নিবন্ধন করতে আরো দুই প্রতিবেশী, সখিনা বেগম ও শরীফ মিয়া নবীনগর যেতে, বাড়ির সামনে নবীনগর কোম্পানিগঞ্জ সড়কে গাড়ির জন্য অপেক্ষা করছিল, এ সময় রাস্তার পাশে থাকা একটি মরা গাছের অংশ হঠাৎ করে ভেঙে তাদের সকলের উপর পরে গুরুতর আহত হন, গাছের নিচে চাপা পরে মাথায় গুরুতর আঘাত পান রহিমা বেগম। পরে আশপাশের লোকজন আহতের উদ্ধার উদ্ধার করে নবীনগর সরকারি হাসপাতালে নিয়ে গেলে রহিমা বেগমকে মৃত বলে ঘোষণা করেন ডাক্তার।স্থানীয়রা জানান, নবীনগর-কোম্পানীগঞ্জ সড়কের দুইপাশে সওজের দুই পাশের মরা গাছের ঢালপালা ভেঙে পরার কারণে প্রায় সময় এমন দুর্ঘটনায় ঘটনায় বহু লোক আহত হয়ে থাকে।
নবীনগর পৌর মেয়র অ্যাডভোকেট শিব শংকর দাস বলেন, ঘটনাটি খুবই মর্মান্তিক ও বেদনাদায়ক, নিহতের বাড়িতে গিয়ে পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা ও পৌরসভার পক্ষ থেকে আর্থিক সহযোগিতা করা হয়েছে।
তিনি আরো বলেন, দ্রুত সওজের এই মরা গাছগুলো কাটার উদ্যোগ করার দাবি করছি, এক বছরের তিনটি বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটেছে মরা গাছ ভেঙে।
নবীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা একরামুল ছিদ্দিক বলেন, দুর্ঘটনার সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে ও নিহতের বাড়িতে গিয়েছি, নিহতের লাশ দাফন কাফনের জন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২০ হাজার টাকা আর্থিক অনুদান দেয়া হয়েছে। সড়কের পাশের মরা গাছগুলো খুবই ঝুকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। এ নিয়ে সওজের কর্মকর্তাদের সাথে কথা বলেছি, গাছ কাটার বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়া জন্য বলেছি।
এ বিষয়ে সওজের ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার নির্বাহী পরিচালক পংকজ ভৌমিক বলেন, দ্রুত সময়ের মাঝে ঝুঁকিপূর্ণ মরা গাছগুলো গাছ কাটার বিষয়ে সার্ভে শুরু করা হবে। তিনি আরো বলেন, মানবিক কারণে নিহতের পরিবারকে ও আহতের চিকিৎসার জন্য কিভাবে সহযোগিতা করা যায় এই বিষয়টি দেখবো।