ঢাকা ০৭:০২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
মোংলায় দারুল আমীন নূরানী মাদ্রাসার আয়োজনে ১ম বার্ষিক ক্রীড়া সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত ময়মনসিংহ ডিবি পুলিশের অভিযানে ২৫০ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ গ্রেফতার-০১ ফুলপুরে ৮ বোতল বিদেশি মদ সহ এক মাদক কারবারী আটক নওগাঁর মহাদেবপুর এ ২০০ বছরের পুরাতন মসজিদের সন্ধান মিলেছে জামালপুরের রানীগঞ্জ বাজার ঐতিহ্য হারিয়ে ফেলেছে পানি নিস্কাশনের রাস্তা বন্ধ করে পুকুর নির্মানের কারনে প্রায় শত বিঘা ফসলী জমি পানির নীচে ইবি শিক্ষার্থীকে গলাটিপে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে তদন্ত কমিটি গঠন কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলায় বেগম জাহানারা হান্নান উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩য় বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্টিত জামালপুরে ভেজাল কীটনাশকে বাজার সয়লাব, কৃষি শিল্প ধ্বংসের পাঁয়তারা মোংলায় সিবিএ নির্বাচন নিয়ে শ্রমিক-কর্মচারীদের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে

ডিজিটার নিরাপত্তা আইনের সংস্কারের দাবিতে (এফবিজেও)’র মানববন্ধন

  • সময়ের কন্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট টাইম : ১১:২৬:০৩ পূর্বাহ্ণ, বৃহস্পতিবার, ১৮ নভেম্বর ২০২১
  • ২১৩ ০.০০০ বার পাঠক

মোঃ শহিদুল ইসলাম (শহিদ)

বিভাগীয় ব্যুরো প্রধানঃ।।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনের দাবিতে এফবিজেওর মানববন্ধন
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধন ও গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদসংক্রান্ত মামলার বিচারিক ক্ষমতা কেবল প্রেস কাউন্সিলকে দেওয়ার দাবি জানিয়েছে ফেডারেশন অব বাংলাদেশ জার্নালিস্ট অর্গানাইজেশন (এফবিজেও)। সংগঠনটির দাবি, দেশের বিভিন্ন খাতের উন্নয়নের মতো সাংবাদিকদের উন্নয়নেও পৃথক বাজেট দিতে হবে। আজ বুধবার সকালে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধনে এ দাবি জানানো হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, যেকোনো গণমাধ্যমের ওয়েবসাইটে কোনো প্রতিবেদন বা সংবাদ প্রকাশের পর কেউ ক্ষুব্ধ হলে মামলা করার আগে সম্পাদক বরাবর প্রতিবাদপত্র দিতে হবে। সম্পাদক সেটি আমলে নিয়ে তা নিষ্পত্তির ব্যবস্থা করবেন। তাতেও সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি সন্তুষ্ট না হলে তিনি আদালতে মামলা করতে পারবেন। মামলা হওয়ার পর সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদক ও সম্পাদক বরাবর সমন জারি করবেন আদালত। প্রতিবেদক ও সম্পাদক আদালতে হাজির হলে তাঁদের জামিন দিতে হবে। অর্থাৎ এটিকে জামিনযোগ্য মামলা হিসেবে আইনে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

 

সংগঠনটির সদস্যরা মানববন্ধন থেকে নয়টি দাবি তুলে ধরেন। দাবিগুলোর মধ্য আছে সংবিধান মোতাবেক ৪র্থ স্তম্ভ হিসেবে স্বীকৃত সংবাদমাধ্যমকর্মীদের রাষ্ট্রের ১ম, ২য় ও ৩য় স্তরের সঙ্গে (১ম জাতীয় সংসদ, ২য় প্রশাসন বিভাগ, ৩য় বিচার বিভাগ) তুলনামূলক মূল্যায়ন ও সুযোগ–সুবিধা দিতে হবে। সাংবাদিক ও সাংবাদিকদের সংগঠনগুলোকে তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন প্রেস কাউন্সিলের মাধ্যমে নিবন্ধন করা, রাষ্ট্রীয়ভাবে ৩ মে বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস পালন, সাংবাদিকদের অধিকার রক্ষায় প্রেস কাউন্সিলকে শক্তিশালী করার জন্য যুগোপযোগী আইন প্রণয়ন করতে হবে। এ ছাড়া স্নাতক ছাড়া সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের সদস্য না করার আইনটি বাতিলেরও দাবি জানানো হয়েছে।

মানববন্ধনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা ও ফেডারেশনের স্থায়ী পরিষদের চেয়ারম্যান লায়ন মোঃ নুর ইসলাম আরও উপস্থিত ছিলেন এফবিজেও’র চেয়ারম্যান নাইমুল ইসলাম আহ্বায়ক এস এম মোরশেদ, সদস্যসচিব হানিফ আলী প্রমুখ।

আরো খবর.......

জনপ্রিয় সংবাদ

মোংলায় দারুল আমীন নূরানী মাদ্রাসার আয়োজনে ১ম বার্ষিক ক্রীড়া সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত

ডিজিটার নিরাপত্তা আইনের সংস্কারের দাবিতে (এফবিজেও)’র মানববন্ধন

আপডেট টাইম : ১১:২৬:০৩ পূর্বাহ্ণ, বৃহস্পতিবার, ১৮ নভেম্বর ২০২১

মোঃ শহিদুল ইসলাম (শহিদ)

বিভাগীয় ব্যুরো প্রধানঃ।।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনের দাবিতে এফবিজেওর মানববন্ধন
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধন ও গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদসংক্রান্ত মামলার বিচারিক ক্ষমতা কেবল প্রেস কাউন্সিলকে দেওয়ার দাবি জানিয়েছে ফেডারেশন অব বাংলাদেশ জার্নালিস্ট অর্গানাইজেশন (এফবিজেও)। সংগঠনটির দাবি, দেশের বিভিন্ন খাতের উন্নয়নের মতো সাংবাদিকদের উন্নয়নেও পৃথক বাজেট দিতে হবে। আজ বুধবার সকালে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধনে এ দাবি জানানো হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, যেকোনো গণমাধ্যমের ওয়েবসাইটে কোনো প্রতিবেদন বা সংবাদ প্রকাশের পর কেউ ক্ষুব্ধ হলে মামলা করার আগে সম্পাদক বরাবর প্রতিবাদপত্র দিতে হবে। সম্পাদক সেটি আমলে নিয়ে তা নিষ্পত্তির ব্যবস্থা করবেন। তাতেও সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি সন্তুষ্ট না হলে তিনি আদালতে মামলা করতে পারবেন। মামলা হওয়ার পর সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদক ও সম্পাদক বরাবর সমন জারি করবেন আদালত। প্রতিবেদক ও সম্পাদক আদালতে হাজির হলে তাঁদের জামিন দিতে হবে। অর্থাৎ এটিকে জামিনযোগ্য মামলা হিসেবে আইনে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে।

 

সংগঠনটির সদস্যরা মানববন্ধন থেকে নয়টি দাবি তুলে ধরেন। দাবিগুলোর মধ্য আছে সংবিধান মোতাবেক ৪র্থ স্তম্ভ হিসেবে স্বীকৃত সংবাদমাধ্যমকর্মীদের রাষ্ট্রের ১ম, ২য় ও ৩য় স্তরের সঙ্গে (১ম জাতীয় সংসদ, ২য় প্রশাসন বিভাগ, ৩য় বিচার বিভাগ) তুলনামূলক মূল্যায়ন ও সুযোগ–সুবিধা দিতে হবে। সাংবাদিক ও সাংবাদিকদের সংগঠনগুলোকে তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন প্রেস কাউন্সিলের মাধ্যমে নিবন্ধন করা, রাষ্ট্রীয়ভাবে ৩ মে বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস পালন, সাংবাদিকদের অধিকার রক্ষায় প্রেস কাউন্সিলকে শক্তিশালী করার জন্য যুগোপযোগী আইন প্রণয়ন করতে হবে। এ ছাড়া স্নাতক ছাড়া সাংবাদিক কল্যাণ ট্রাস্টের সদস্য না করার আইনটি বাতিলেরও দাবি জানানো হয়েছে।

মানববন্ধনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা ও ফেডারেশনের স্থায়ী পরিষদের চেয়ারম্যান লায়ন মোঃ নুর ইসলাম আরও উপস্থিত ছিলেন এফবিজেও’র চেয়ারম্যান নাইমুল ইসলাম আহ্বায়ক এস এম মোরশেদ, সদস্যসচিব হানিফ আলী প্রমুখ।