1. [email protected] : admi2017 :
মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২, ০৩:১১ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
নোয়াখালী জেলায় জাতির পিতা ও প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাঙচুর যুবলীগ অফিস লুটপাট কাবাবী হাড্ডি বেনাপোল সাদিপুর সীমান্ত থেকে ভারতীয় পিস্তল গুলিসহ দুই অস্ত্র ব্যবসায়ী আটক মোংলায় একাত্তরের ভয়াবহ দামেরখন্ড গণহত্যা দিবস পালন নওগাঁর আত্রাইয়ে অভিযান চালিয়ে ১১ জনকে গ্রেফতার করেছে আত্রাই থানা পুলিশ আত্রাই স্টেশনে ট্রেনের ধাক্কায় এক বৃদ্ধর মৃত্যু পাথরঘাটার রায়হানপুরে কুকুরের কামড়ে ৩ বছরের শিশু আহত ১১ দিনের ব্যবধানে ফুলবাড়ীর দু’টি হত্যা মামলায় ৬ জনের ফাঁসি,৪ জনের যাবজ্জীবন ঠাকুরগাঁওয়ের সাংবাদিকের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার দাবিতে মানববন্ধন ঠাকুরগাঁওয়ে বিএনপি’র বিক্ষোভ, পুলিশের বাঁধা

আমি খুন হওয়ার শঙ্কায় মেয়েকেও মেয়র প্রার্থী হিসেবে রেখেছি। 

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৩ জানুয়ারি, ২০২১, ৪.১৪ অপরাহ্ণ
  • ২১৫ বার পঠিত

নুরুল আমিন( মল্লিক ) বরগুনা থেকে।। বরগুনা পৌরসভার বর্তমান মেয়র ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী  খুন হওয়ার শঙ্কায় মেয়েকেও মেয়র প্রার্থী হিসেবে রেখেছেন। বর্তমান মেয়র

শাহাদাত হোসেন  সময়ের কন্ঠকে বলেন, ‘গত নির্বাচনে আমি দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিত হয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করেছিলাম। ওই নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী কামরুল আহসান মহারাজের সমর্থকরা আমি ও আমার পরিবারের ওপর একাধিক বার হামলা চালিয়েছিল। ওই নির্বাচনের প্রচারণায় নৌকার প্রার্থীর সমর্থকদের হামলার শিকার হয়ে আমার অন্তত ১০ জন কর্মী আহত হয়েছিল।

যেকোনো সময় মেরে ফেলা হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন বরগুনার পৌর মেয়র ও আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী শাহাদাত হোসেন। এ শঙ্কা থেকে নিজের পাশাপাশি মেয়েকে দিয়েও মনোনয়নপত্র দাখিল করাতে বাধ্য হয়েছেন বলে জানিয়েছেন তিনি। বাবা-মেয়ের মেয়র প্রার্থী হওয়ার এ ঘটনা এখন পৌর শহরের আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে। শাহাদাত হোসেন পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। আগেও তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মেয়র নির্বাচিত হন। জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার শেষ দিন পর্যন্ত মেয়র পদে নয় জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। তারা হলেন, আওয়ামী লীগের মো. কামরুল আহসান মহারাজ, বিএনপির আবদুল হালিম, জাতীয় পার্টির আবদুল জলিল হাওলাদার, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের জালাল উদ্দিন এবং স্বতন্ত্র শাহাদাত হোসেন (আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী), মো. শাহাবুদ্দিন, জসীম উদ্দিন, ছিদ্দিকুর রহমান পান্না, নিজাম উদ্দিন ও মহসিনা মিতুল। প্রাণনাশের আশঙ্কার কারণ সম্পর্কে জানতে চাইলে মেয়র শাহাদাত হোসেন  সময়েরকন্ঠ কে বলেন, ‘গত নির্বাচনে আমি দলীয় মনোনয়ন বঞ্চিত হয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করেছিলাম। ওই নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী কামরুল আহসান মহারাজের সমর্থকরা আমি ও আমার পরিবারের ওপর একাধিক বার হামলা চালিয়েছিল। তিনি আরও বলেন, ‘শুধু তাই নয়, নির্বাচনের দিন ভোর থেকে তারা কেন্দ্রে কেন্দ্রে লাঠিসোঁটা ও দেশি অস্ত্র নিয়ে ভোট ডাকাতির চেষ্টা করে। এতে এক জন নিহতও হয়েছিল। গত নির্বাচনের অভিজ্ঞতা ও মনোনয়ন পাওয়ার পর নৌকা সমর্থকদের আচরণে আমার মনে হয়েছে, যেকোনো সময় তারা আমার ওপর হামলা করতে পারে, মেরে ফেলতে পারে। এ কারণে আমার মেয়েকে দিয়ে মনোনয়নপত্র দাখিল করাতে বাধ্য হয়েছি। মেয়রের মেয়ে মহসিনা মিতুল বলেন, ‘মনোনয়নপত্র কেনার আগেই আমাদের বাসার সামনে এসে হুমকি-ধমকি দেয়া হয়েছিল, যাতে আমার বাবা নির্বাচনে প্রার্থী না হন। আমরা এ ঘটনায় বরগুনা থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছি। আমাদের বাসার সামনে গত নির্বাচনে ক্রোক স্কুলে সভা চলাকালে আমার ওপর হামলা হয়েছিল। এবারও আমরা শঙ্কায় আছি, আমার বাবা বা আমাদের পরিবারের কেউ নিরাপদ বোধ করছি না। সে কারণেই আমিও মেয়র পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছি। এ বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক গোলাম সরোয়ার টুকু বলেন, মেয়র শাহাদাত হোসেন বরগুনা পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। ২০১৫ সালেও মেয়র পদে দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন। টাকার জোরে নির্বাচনের দিন বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে দলীয় প্রার্থীকে আহত করে ভোট কেটে মেয়র নির্বাচিত হয়েছেন।

তিনি বলেন, এবারও শাহাদাত হোসেন দলীয় মনোনয়নবঞ্চিত হয়ে নিজে স্বতন্ত্র, মেয়ে মিতু ও তার সমর্থক নিজাম উদ্দিনকে দিয়ে স্বতন্ত্র মনোনয়নপত্র দাখিল করিয়েছেন। গত ১০ বছরে তিনি ও তার অনুসারীরা পৌরসভা লুটপাট করেছেন। পৌরসভার মেয়র হওয়া তার কাছে এক ধরনের বাণিজ্য। এ কারণে এবারও টাকার জোরে মেয়র হওয়ার জন্য মাঠে নেমেছেন।

তিনি আরও বলেন, ‘বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচনি প্রচার চালানোয় প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। তবে কেউ যদি জল ঘোলা করে ফায়দা নিতে চেষ্টা করে, আমরা সেটাও প্রতিহত করতে চেষ্টা করব। এবার দলের সব নেতা-কর্মী ঐক্যবদ্ধ। তার (শাহাদাত) সব ষড়যন্ত্র এবার মোকাবিলা করা হবে। দলের পদে থেকে দলের বিরুদ্ধে নির্বাচন করা প্রসঙ্গে মেয়র শাহাদাত হোসেন বলেন, ‘আমি নৌকাকে ভালোবাসি। তারপরও জনগণের কথা চিন্তা করে আমাকে নির্বাচন করতে হচ্ছে। জনগণ আমাকে চায়। জনগণ আমার জন্য নীরবে কাঁদে। বড়িয়ালপাড়ার লোকজনের ঘরবাড়ি যখন ডিসি ভেঙে ফেলে, তখন তো দলের লোকজন তাদের রক্ষা করেনি। আমি ঢাকা থেকে এসে ঘরবাড়ি রক্ষা করেছি।

বরগুনা পৌরসভায় ভোটার সংখ্যা ২৫ হাজার। মেয়র পদে নয়, সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩৫ ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১৪

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazarsomoyer14
M/s,National,Somoyerkontha website:-DailySomoyerkontha.com