ঢাকা ১২:৪২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৩
সংবাদ শিরোনাম ::
শেরপুরে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ছাত্রদের মাঝে পুনাকের খাদ্যসামগ্রী ও শীতবস্ত্র বিতরণ বিট পুলিশিং বাড়ি-বাড়ি, নিরাপদ সমাজ গড়ি”- এই স্লোগানকে সামনে রেখে ময়মনসিংহ জেলার পাগলা থানা পুলিশের আয়োজনে গোবিন্দগঞ্জে দেড় হাজার পিস নেশাজাতীয় ইনজেকশনসহ স্বামী-স্ত্রী গ্রেফতার চট্রগ্রামের শ্রমিক ইউনিয়নের নাম ভাঙ্গিয়ে কয়েক লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে কিছু অসাধু শ্রমিক নেতা খুলনা সরকারী মহিলা কলেজের পিঠা উৎসবে কেএমপি’র কমিশনার নওগাঁর বদলগাছীতে বিষাক্ত গ‍্যাস ট‍্যাবলেট খেয়ে পৃথক পৃথক স্থানে সোমা আক্তার (১৮) ও পান্না হোসেন (৬০) নামের দুই জন ব্যক্তি আত্মহত্যা করেছে এবার কলকাতায় বাংলাদেশিদের জন্য নিয়ে এল নতুন রসনার রেস্টুরেন্ট ও খাবারের হোটেল মসিকের ৩০ কিলোমিটার রাস্তায় সড়কবাতি উদ্বোধন করেছেন মেয়র মোংলার যৌনপল্লীর কর্মীরা এখন মানবেতর জীবনযাপন করছে পীরগঞ্জের কৃতি সন্তান নাজমুলের সপ্ন পুরন

পাথরঘাটা ৬ নং কাকচিড়ায় বিকাশ প্রতারনার শিকার প্রতিবন্ধী ব্যাবসায়ী

পাথরঘাটা প্রতিনিধি।

অসহায় পরিবারের মধ্য দিয়ে জুলহাস(২৯) নামের ব্যাবসায়ী এজেন্ট এর নতুন ব্যাবসা নেয়ার এক সপ্তাহের মধ্যেই প্রায় ১,২৩,০০০ টাকা প্রতারকের কাছে চলে গেছে।

ঘটনাটি ঘটেছে পাথরঘাটা উপজেলা কাকচিড়া ইউনিয়নের কাটাখালী বাজারে। শামছুল হক আকন এর ছেলে মোঃ জুলহাস মিয়া মধ্য রুপধন এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা।

ঐ ব্যাবসায়ীর কাছ থেকে জানা যায় ১৪ ই ডিসেম্বর রোজ সোমবার বিকাশ কোম্পানির কাছ থেকে বামনার ডি এস মোঃ রুবেল এর কাছ থেকে একটি এজেন্ট সিম নিয়ে ব্যাবসা শুরু করে। বৃহস্পতিবার পাথরঘাটার ডি এস মোঃ সোহেল এর কাছে এজেন্ট সিম থেকে ১০,০০০ টাকা পেমেন্ট করে কিন্তু নগদ টাকা দেয়নি শনিবারেও।

রবিবার ২০ শে ডিসেম্বর অপরিচিত রবি নাম্বার থেকে কল আসে জিজ্ঞেস করে নতুন বিকাশ এজেন্ট নিয়েছেন কেমন চলে কোনো সমস্যা আছে কিনা লেনদেন কেনো কম করেন আরও বেশী করতে হবে ইত্যাদি। আরও বলে আপনাকে এখন অফিস থেকে ওয়েটিং এ কল দিবে যা জিজ্ঞেস করে সঠিক তথ্য দিবেন।

ইতিমধ্যে ডি এস রুবেল এর নাম্বার থেকে কল আসে রিসিভ করলে অফিসের স্যার কথা বলে এবং জিজ্ঞেস করে আপনাকে সব কাগজপএ দিয়েছে? জুহাস ব্যাবসায়ী বলেন – না। বিকাশ অফিসের স্যার বলেন আপনার বিকাশ এজেন্ট তো বন্ধ হয়ে যাবে। আপনার পারসোনাল সিম যেকয়টি আছে তার টাকা এবং এজেন্ট এর সব টাকা একটি পারসোনাল সিমে সেন্ড করে নিন।

যখন সব টাকা একটি সিমে নেয়া হয় ৬ সংখ্যার নাম্বার নিয়ে ঐ প্রতারক সেন্ডমানি ও পেমেন্ট এর মাধ্যমে মোট ১,২২,৭৪২ টাকা নিয়ে যায়।

এ ঘটনার পর মঙ্গলবার ২২ শে ডিসেম্বর পাথরঘাটা থানায় জিডি করেন (জিডি নং- ৮২৮) ডিউটি অফিসার ইন্দ্রজিৎ কুমার বলেন, এ ঘটনার জন্য বিকাশ কোম্পানি সরাসরি দায়ী। কারন বিকাশ কোম্পানির সাহায্য ছাড়া কোনো প্রতারক এ্যাকাউন্ট এর টাকার খবর জানতে পারে না।এই ধরনের ঘটনা আমাদের সমাজে প্রায়ই হয়ে থাকে।

আরো খবর.......
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

শেরপুরে দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ছাত্রদের মাঝে পুনাকের খাদ্যসামগ্রী ও শীতবস্ত্র বিতরণ

পাথরঘাটা ৬ নং কাকচিড়ায় বিকাশ প্রতারনার শিকার প্রতিবন্ধী ব্যাবসায়ী

আপডেট টাইম : ০৯:১৯:৫৯ পূর্বাহ্ণ, রবিবার, ৩ জানুয়ারি ২০২১

পাথরঘাটা প্রতিনিধি।

অসহায় পরিবারের মধ্য দিয়ে জুলহাস(২৯) নামের ব্যাবসায়ী এজেন্ট এর নতুন ব্যাবসা নেয়ার এক সপ্তাহের মধ্যেই প্রায় ১,২৩,০০০ টাকা প্রতারকের কাছে চলে গেছে।

ঘটনাটি ঘটেছে পাথরঘাটা উপজেলা কাকচিড়া ইউনিয়নের কাটাখালী বাজারে। শামছুল হক আকন এর ছেলে মোঃ জুলহাস মিয়া মধ্য রুপধন এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা।

ঐ ব্যাবসায়ীর কাছ থেকে জানা যায় ১৪ ই ডিসেম্বর রোজ সোমবার বিকাশ কোম্পানির কাছ থেকে বামনার ডি এস মোঃ রুবেল এর কাছ থেকে একটি এজেন্ট সিম নিয়ে ব্যাবসা শুরু করে। বৃহস্পতিবার পাথরঘাটার ডি এস মোঃ সোহেল এর কাছে এজেন্ট সিম থেকে ১০,০০০ টাকা পেমেন্ট করে কিন্তু নগদ টাকা দেয়নি শনিবারেও।

রবিবার ২০ শে ডিসেম্বর অপরিচিত রবি নাম্বার থেকে কল আসে জিজ্ঞেস করে নতুন বিকাশ এজেন্ট নিয়েছেন কেমন চলে কোনো সমস্যা আছে কিনা লেনদেন কেনো কম করেন আরও বেশী করতে হবে ইত্যাদি। আরও বলে আপনাকে এখন অফিস থেকে ওয়েটিং এ কল দিবে যা জিজ্ঞেস করে সঠিক তথ্য দিবেন।

ইতিমধ্যে ডি এস রুবেল এর নাম্বার থেকে কল আসে রিসিভ করলে অফিসের স্যার কথা বলে এবং জিজ্ঞেস করে আপনাকে সব কাগজপএ দিয়েছে? জুহাস ব্যাবসায়ী বলেন – না। বিকাশ অফিসের স্যার বলেন আপনার বিকাশ এজেন্ট তো বন্ধ হয়ে যাবে। আপনার পারসোনাল সিম যেকয়টি আছে তার টাকা এবং এজেন্ট এর সব টাকা একটি পারসোনাল সিমে সেন্ড করে নিন।

যখন সব টাকা একটি সিমে নেয়া হয় ৬ সংখ্যার নাম্বার নিয়ে ঐ প্রতারক সেন্ডমানি ও পেমেন্ট এর মাধ্যমে মোট ১,২২,৭৪২ টাকা নিয়ে যায়।

এ ঘটনার পর মঙ্গলবার ২২ শে ডিসেম্বর পাথরঘাটা থানায় জিডি করেন (জিডি নং- ৮২৮) ডিউটি অফিসার ইন্দ্রজিৎ কুমার বলেন, এ ঘটনার জন্য বিকাশ কোম্পানি সরাসরি দায়ী। কারন বিকাশ কোম্পানির সাহায্য ছাড়া কোনো প্রতারক এ্যাকাউন্ট এর টাকার খবর জানতে পারে না।এই ধরনের ঘটনা আমাদের সমাজে প্রায়ই হয়ে থাকে।