ঢাকা ০৮:৩৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২
সংবাদ শিরোনাম ::
দাউদকান্দি হাইওয়েতে সড়ক দুর্ঘটনায় একজনের মৃত্যু চট্রগ্রামের আলিচিত আয়াত হত্যা দেহের দুই টুকরার খোঁজ মিলেছে সাগরপাড়ে তারাকান্দায় জেলা প্রশাসকের বদলি জনিত বিদায় সংবর্ধনা নৌবাহিনী তে চাকুরীর প্রলোভনে ৩ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন ইব্রাহিম দুলাল আশুলিয়ায় চাঁদা না পেয়ে নির্মানকাজে বাঁধা, নির্মানসামগ্রী লুট বিজিবি এ্যাথলেটিকস্ প্রতিযোগীতায় ২০২২ ইং আত্রাইয়ে ধর্ষণের শিকার ৬ বছরের শিশু , মামলা হয়েছে থানায় জনগনের চলাচলের ব্যবস্থা সুগম করতে নিরালস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন মেম্বার শফি উদ্দিন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জনসভার নিরাপত্তায় থাকবে সাড়ে সাত হাজার পুলিশ বাহিনী প্রভাবশালীদের মেঘনার চর দখলের মহোৎসব

লালমনিরহাটে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বীর মুক্তিযোদ্ধাকে  নির্যাতনের ঘটনায় তদন্তে সত্যতা পায়নি তদন্ত কমিটি। 

লালমনিরহাট রিপোর্টার।।
লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার ভেলাগুড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মহির উদিনের বিরুদ্ধে বীর মুক্তিযোদ্ধাকে চেয়ারের সাথে বেঁধে নির্যাতনের ঘটনার অভিযোগের তদন্তে সত্যতা খুজে পায়নি তদন্ত কমিটি। এ সংক্রান্ত একটি তদন্ত প্রতিবেদন লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবু জাফরের কাছে প্রেরণ করেন ওই ঘটনার  তদন্তকারী কর্মকর্তা ও অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট টি.এম.এ মমিন।
 এর আগে চলতি বছরের ৬ ফেব্রুয়ারী জেলার হাতীবান্ধা উপজেলার ভেলাগুড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মহির উদ্দিনের বিরুদ্ধে ওই এলাকার বীর মুক্তিযোদ্ধা আকবর আলী ধনীকে গরু চুরির অপরাধে চেয়াররের সাথে দড়ি দিয়ে বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ  তুলে জেলা প্রশাসক বরাবর একটি অভিযোগ করেন মোহর উদ্দিন নামের এক মুক্তিযোদ্ধার সন্তান।
প্রাপ্ত প্রাথমিক তদন্ত প্রতিবেদন উল্লেখ করা হয়েছে, যে  গত ৬ ফেব্রয়ারী ভেলাগুড়ি ইউনিয়নের বীর মুক্তিযোদ্ধা আকবর আলী ধনীকে গরু চুরির অপরাধে চেয়াররের সাথে দড়ি দিয়ে বেঁধে নির্যাতনের যে অভিযোগ ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মহির উদ্দিনের বিরুদ্ধে করা হয়েছে তা তদন্তে সত্যতা মিলেনি।
তদন্ত প্রতিবেদনে আরো উল্লেখ করা হয়েছে,  বীর মুক্তিযোদ্ধা আকবর আলী ধনীর পুত্র হারুনুর রশীদ ওরফে আবু গরু চুরির সাথে জড়িত ছিলেন । বীর মুক্তিযোদ্ধা আকবর আলী ধনী তার পুত্রের চুরিকৃত গরু বিক্রয়ের ১০ হাজার টাকা নিজ হাতে গ্রহন করেছেন। তবে ওই তদন্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, চেয়ারম্যান তার নিজ বাড়িতে ওই বীর মুক্তিযোদ্ধাকে ডেকে নিয়ে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন মাত্র।
এ বিষয়ে তদন্তকারী কর্মকর্তা ও অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট টি.এম.এ মমিন বলেন, গত ২২ ফেব্রয়ারী অভিযোগের ভিত্তিতে সড়ে জমিন তদন্ত করি। এ সময় গোপনে ও প্রকাশ্যে বিভিন্ন জনের সাক্ষ্য গ্রহন করে গত ৩ মার্চ তদন্ত প্রতিবেদন জেলা প্রশাসক বরাবর জমা দিয়েছি।
লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবু জাফর বলেন, তদন্ত প্রতিবেদন পেয়েছি। যেহেতু এ ঘটনায় ফৌজদারী মামলা রয়েছে, সেহেতু আদালতের রায়ের পর যদি প্রয়োজনে মন হয় তাহলে আইন মোতাবেক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
আরো খবর.......
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

দাউদকান্দি হাইওয়েতে সড়ক দুর্ঘটনায় একজনের মৃত্যু

লালমনিরহাটে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বীর মুক্তিযোদ্ধাকে  নির্যাতনের ঘটনায় তদন্তে সত্যতা পায়নি তদন্ত কমিটি। 

আপডেট টাইম : ০৪:৫৫:২০ অপরাহ্ণ, রবিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২১
লালমনিরহাট রিপোর্টার।।
লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার ভেলাগুড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ মহির উদিনের বিরুদ্ধে বীর মুক্তিযোদ্ধাকে চেয়ারের সাথে বেঁধে নির্যাতনের ঘটনার অভিযোগের তদন্তে সত্যতা খুজে পায়নি তদন্ত কমিটি। এ সংক্রান্ত একটি তদন্ত প্রতিবেদন লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবু জাফরের কাছে প্রেরণ করেন ওই ঘটনার  তদন্তকারী কর্মকর্তা ও অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট টি.এম.এ মমিন।
 এর আগে চলতি বছরের ৬ ফেব্রুয়ারী জেলার হাতীবান্ধা উপজেলার ভেলাগুড়ি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মহির উদ্দিনের বিরুদ্ধে ওই এলাকার বীর মুক্তিযোদ্ধা আকবর আলী ধনীকে গরু চুরির অপরাধে চেয়াররের সাথে দড়ি দিয়ে বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ  তুলে জেলা প্রশাসক বরাবর একটি অভিযোগ করেন মোহর উদ্দিন নামের এক মুক্তিযোদ্ধার সন্তান।
প্রাপ্ত প্রাথমিক তদন্ত প্রতিবেদন উল্লেখ করা হয়েছে, যে  গত ৬ ফেব্রয়ারী ভেলাগুড়ি ইউনিয়নের বীর মুক্তিযোদ্ধা আকবর আলী ধনীকে গরু চুরির অপরাধে চেয়াররের সাথে দড়ি দিয়ে বেঁধে নির্যাতনের যে অভিযোগ ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মহির উদ্দিনের বিরুদ্ধে করা হয়েছে তা তদন্তে সত্যতা মিলেনি।
তদন্ত প্রতিবেদনে আরো উল্লেখ করা হয়েছে,  বীর মুক্তিযোদ্ধা আকবর আলী ধনীর পুত্র হারুনুর রশীদ ওরফে আবু গরু চুরির সাথে জড়িত ছিলেন । বীর মুক্তিযোদ্ধা আকবর আলী ধনী তার পুত্রের চুরিকৃত গরু বিক্রয়ের ১০ হাজার টাকা নিজ হাতে গ্রহন করেছেন। তবে ওই তদন্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে, চেয়ারম্যান তার নিজ বাড়িতে ওই বীর মুক্তিযোদ্ধাকে ডেকে নিয়ে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন মাত্র।
এ বিষয়ে তদন্তকারী কর্মকর্তা ও অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট টি.এম.এ মমিন বলেন, গত ২২ ফেব্রয়ারী অভিযোগের ভিত্তিতে সড়ে জমিন তদন্ত করি। এ সময় গোপনে ও প্রকাশ্যে বিভিন্ন জনের সাক্ষ্য গ্রহন করে গত ৩ মার্চ তদন্ত প্রতিবেদন জেলা প্রশাসক বরাবর জমা দিয়েছি।
লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবু জাফর বলেন, তদন্ত প্রতিবেদন পেয়েছি। যেহেতু এ ঘটনায় ফৌজদারী মামলা রয়েছে, সেহেতু আদালতের রায়ের পর যদি প্রয়োজনে মন হয় তাহলে আইন মোতাবেক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।