ঢাকা ০৮:২০ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২
সংবাদ শিরোনাম ::
ফুলবাড়ী উপজেলা স্কাউটস ভবন কাজের ভিত্তি স্থাপন ও শীতকালী ক্রীড়া প্রতিযোগীর শুভ উদ্বোধন লক্ষ্মীপুরে ভাইয়ের হাতে ভাই খুন,ঘাতক ভাই আটক জমি বিরোধের জের- বৃদ্ধকে কুপিয়ে হত্যা পুলিশের অসহযোগীর অভিযোগ ওয়াজ মাহফিল ইসলাম প্রচারের চমৎকার এক মাধ্যম: মাওলানা আব্দুল কাইয়ূম সাহেব বশেমুরবিপ্রবিতে সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে মতবিনিময় সভা দাউদকান্দি হাইওয়েতে সড়ক দুর্ঘটনায় একজনের মৃত্যু চট্রগ্রামের আলিচিত আয়াত হত্যা দেহের দুই টুকরার খোঁজ মিলেছে সাগরপাড়ে তারাকান্দায় জেলা প্রশাসকের বদলি জনিত বিদায় সংবর্ধনা নৌবাহিনী তে চাকুরীর প্রলোভনে ৩ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন ইব্রাহিম দুলাল আশুলিয়ায় চাঁদা না পেয়ে নির্মানকাজে বাঁধা, নির্মানসামগ্রী লুট

রোজায় ইসুবগুলের ভূষির যত উপকারিতা

সময়ের কন্ঠ রিপোর্ট।।

রোজা থাকলে শরীরে পানিস্বল্পতা দেখা দেয়। এজন্য প্রত্যেক রোজাদার ইফতারে শরবত পান করেন। নানা রকম ফল ও ভেষজ উপাদানে এসব শরবত তৈরি হয়। তবে শরবতের মধ্যে সবচেয়ে প্রচলিত ইসুবগুলের ভূষি।

বারডেম হাসপাতালের চিফ নিউট্রিশন অফিসার এবং হেড অব ডিপার্টমেন্ট অব নিউট্রিশন (অব.) আখতারুন নাহার আলো জানিয়েছেন, ভিজিয়ে খাওয়ার চেয়ে শুকনা ইসুবগুলের ভূষি বেশি কার্যকর।

তিনি বলেন, ইসুবগুলের ভূষি উদ্ভিদজাত উপাদান এবং এটি আমাদের দেশে উৎপাদিত হয় না। অন্য দেশ থেকে আমদানি করা হয়। কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা যাদের আছে, তাদের জন্য এ ভূষি খুবই উপকারি।

কারণ হিসেবে আখতারুন নাহার জানান, ইসুবগুলের ভূষির বৈশিষ্ট্য হলো, এটি দেহে এক ধরনের শীতল আমেজ দেয়। এজন্য রোজা রেখে ইফতারে ভূষির শরবত খেলে ভালো লাগে। ইসুবগুলের ভূষির ভেতর পানি ধারণক্ষমতা অনেক বেশি। এজন্য ভূষি খেলে আমাদের ক্ষুদ্রান্তে বাড়তি একটা চাপ তৈরি। ফলে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়।

এখন কথা হলো কখন ভূষি খেতে হবে এবং কীভাবে? এ বিষয়ে আখতারুন নাহারের পরামর্শ, কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা থাকলে খাবার গ্রহণের দুই ঘণ্টা আগে খেতে হবে। আর যদি ওজন কমানোর জন্য কেউ খেতে চান, খাবারের আগে আগে খেলেই হবে। এক গ্লাস পানিতে দুই চা চামচ ভূষি মিশিয়ে সকাল-বিকাল খেতে হবে। এতে খাবারের প্রতি রুচিও বাড়বে।

সব থেকে বড় বিষয়, ইসুবগুলের ভূষির কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বা অপকারিতা নেই। এটি শুকনা খেতে পারলে খুবই উপকার। মুখের মধ্যে কিছু দানা রেখে হালকা গরম পানি খাবেন। ঠান্ডা পানির চেয়ে গরম পানিতে ইসুবগুলের ভূষির গুণাগুণ অনেক বেড়ে যায়।

আরো খবর.......
আপলোডকারীর তথ্য

ফুলবাড়ী উপজেলা স্কাউটস ভবন কাজের ভিত্তি স্থাপন ও শীতকালী ক্রীড়া প্রতিযোগীর শুভ উদ্বোধন

রোজায় ইসুবগুলের ভূষির যত উপকারিতা

আপডেট টাইম : ০১:০০:৪৫ অপরাহ্ণ, রবিবার, ১৮ এপ্রিল ২০২১

সময়ের কন্ঠ রিপোর্ট।।

রোজা থাকলে শরীরে পানিস্বল্পতা দেখা দেয়। এজন্য প্রত্যেক রোজাদার ইফতারে শরবত পান করেন। নানা রকম ফল ও ভেষজ উপাদানে এসব শরবত তৈরি হয়। তবে শরবতের মধ্যে সবচেয়ে প্রচলিত ইসুবগুলের ভূষি।

বারডেম হাসপাতালের চিফ নিউট্রিশন অফিসার এবং হেড অব ডিপার্টমেন্ট অব নিউট্রিশন (অব.) আখতারুন নাহার আলো জানিয়েছেন, ভিজিয়ে খাওয়ার চেয়ে শুকনা ইসুবগুলের ভূষি বেশি কার্যকর।

তিনি বলেন, ইসুবগুলের ভূষি উদ্ভিদজাত উপাদান এবং এটি আমাদের দেশে উৎপাদিত হয় না। অন্য দেশ থেকে আমদানি করা হয়। কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা যাদের আছে, তাদের জন্য এ ভূষি খুবই উপকারি।

কারণ হিসেবে আখতারুন নাহার জানান, ইসুবগুলের ভূষির বৈশিষ্ট্য হলো, এটি দেহে এক ধরনের শীতল আমেজ দেয়। এজন্য রোজা রেখে ইফতারে ভূষির শরবত খেলে ভালো লাগে। ইসুবগুলের ভূষির ভেতর পানি ধারণক্ষমতা অনেক বেশি। এজন্য ভূষি খেলে আমাদের ক্ষুদ্রান্তে বাড়তি একটা চাপ তৈরি। ফলে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়।

এখন কথা হলো কখন ভূষি খেতে হবে এবং কীভাবে? এ বিষয়ে আখতারুন নাহারের পরামর্শ, কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা থাকলে খাবার গ্রহণের দুই ঘণ্টা আগে খেতে হবে। আর যদি ওজন কমানোর জন্য কেউ খেতে চান, খাবারের আগে আগে খেলেই হবে। এক গ্লাস পানিতে দুই চা চামচ ভূষি মিশিয়ে সকাল-বিকাল খেতে হবে। এতে খাবারের প্রতি রুচিও বাড়বে।

সব থেকে বড় বিষয়, ইসুবগুলের ভূষির কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বা অপকারিতা নেই। এটি শুকনা খেতে পারলে খুবই উপকার। মুখের মধ্যে কিছু দানা রেখে হালকা গরম পানি খাবেন। ঠান্ডা পানির চেয়ে গরম পানিতে ইসুবগুলের ভূষির গুণাগুণ অনেক বেড়ে যায়।