ঢাকা ১০:২৮ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
কোটা সংস্কারের পক্ষে সরকার নীতিগতভাবে একমত: আইনমন্ত্রী ঘোষণার পর মানছেন না কোটা আন্দোলনকারীরা আমার ভাইদের ফেরত দেওয়া হোক আগে রায়পুরে বালু উত্তোলনে ভাঙন আতঙ্ক সরকারের কাছ থেকে দৃশ্যমান পদক্ষেপ ও সমাধানের পথ তৈরির প্রত্যাশা করে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন শনির আখড়া-যাত্রাবাড়ী সড়কে চলছে সংঘর্ষ, যান চলালাচল অচল করে দিচ্ছেন ফেসবুক লাইভে এসে পদত্যাগের ঘোষণা ছাত্রলীগ নেতার উত্তরায় গুলিতে নর্দান বিশ্ববিদ্যালয়ের ২ শিক্ষার্থী নিহত কমপ্লিট শাটডাউন ঢাকার সঙ্গে সব জেলার যোগাযোগ বন্ধ, টার্মিনাল থেকে ছাড়ছে না কোনো বাস ফুলবাড়ীর দৌলতপুর ইউনিয়নে গরু চুরির হিড়িক দেশবাসীর প্রতি মির্জা ফখরুলের আহ্বান, শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়ান অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঢাবি, ৬টার মধ্যে হল ছাড়ার নির্দেশ

কুমিল্লায় অপারেশনের পাঁচ মাস পর পেটের ভিতর থেকে গজ (ব্যান্ডেজ) উদ্ধার!

সময়ের কন্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট টাইম : ১০:৪৫:৪৪ পূর্বাহ্ণ, বুধবার, ৭ এপ্রিল ২০২১
  • / ২৮১ ৫০০.০০০ বার পাঠক

সাইফুল ইসলাম বিপ্লবী বিশেষ  প্রতিনিধি।।

কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলায় অপারেশনের ৫ মাস পর শারমিন নামের এক রোগির পেটে পাওয়া গেল গজ কাপড়। যেখানে ইনফেকশন হয়ে গেছে। সিজার অপারেশনের সময় চিকিৎসকের ভুলে রেখে দেওয়া এই গজ কাপড় এই রোগিকে ভুগিয়েছে ৫ মাস ধরে।

রোগির ভাই মোঃ রুহুল আমিন জানান, প্রায় ৫ মাস আগে দেবিদ্বার আল-ইসলাম হসপিটাল এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে আমার বোন শারমিনের সিজার হয় । সার্জন ছিল ডাঃ রোজিনা আক্তার। সিজারের দিন থেকেই পেটে ব্যাথা শুরু হয়। ব্যাথা নিয়েই আমার বোনকে রিলিজ দেয়া হয়। বলা হয়েছিল কোন সমস্যা নাই ঠিক হয়ে যাবে।

কিছুদিন পরে ডাক্তার দেখানোর পর আল্ট্রা করে জানালো কোন প্রকার সমস্যা নেই। তাই কিছু ঔষধ দিয়ে দিল। ব্যাথা দিনদিন বেড়েই চলেছে। আবার দেখানো হলো। আবার আল্ট্রা করে সব দেখেশুনে বললো কোন সমস্যা নেই। কিছু ব্যাথার এবং গ্যাস্ট্রিকের ঔষধ দিয়ে বললো ব্যথা সেরে যাবে। এবার আর তাদের উপর ভরসা না করে ঢাকায় নিয়ে আসা হলো। দিনে দিনে ব্যাথা তীব্র হচ্ছে। আল্ট্রা করা হচ্ছে, বিভিন্ন রকম টেস্ট করা হচ্ছে। একেকবার একেকরকম কথা বলা হচ্ছে। পেটে পানি জমেছে, গ্যাস জমেছে, এই সেই নানান কিছু বলে ১৪ দিনের ঔষধ, ২১ দিনের ঔষধ খেয়ে আবার আসবেন এইসব চলতেছিল। এর মধ্যে তীব্র ব্যাথার কারনে হাসপাতালে ভর্তিও ছিল বেশ কয়েকদিন।

ব্যাথাও কমছেনা, ডাক্তাররাও সমস্যা ডায়াগনোসিস করতে পারতেছেনা, এত এত টেস্ট করার পরেও এক প্রকার আন্দাজে চিকিৎসা চলতেছিল।  সর্বশেষ অন্য একটি হাসপাতালে একজন ডাক্তার দেখানোর পর আল্ট্রায় যা দেখা গেল তাতে কপালের চক্ষু মাথায় উঠার কথা। গত কয়মাসে অন্তত ১৫-২০ বার আল্ট্রা করা হয়েছে। কোনবারই আল্ট্রায় কেউ যা দেখে নাই আজকে ডাক্তার থমকে গেলো তা দেখে। পেটের ভিতরে সিজারের সময়ের গজ রয়ে গেছে আর সেখানে ইনফেকশন হয়েছে। প্রায় ৫ টা মাস পেটে গজ নিয়ে আমার বোন অসহ্য ব্যাথায় কাতরাচ্ছিল।

এতবার ডাক্তার দেখানো হলো, এতবার আল্ট্রা করানো হলো! উন্নত যন্ত্রে আধুনিক আল্ট্রায় ও কেউ সেটা বুঝতে পারলোনা কেন?

আধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থার এই সময়ে এসেও ৫ মাস ধরে পেটে গজ নিয়ে ডাক্তারদের ধারেধারে ঘুরেও যদি তা ডায়াগনোসিস করতে না পারে সে দুঃখ কারে বলি? এই বেদনা কারে বলি?

হয়তো আমার বোনের অনেক বড় ক্ষতি হয়ে গেল। আমি চাই না পৃথিবীর আর কোন বোন আমার বোনের মতো এতো বড় ক্ষতির সম্মুখীন হোক। আমি চাই এই জ্ঞানহীন ডাক্তারদের চিকিৎসা বিভাগ থেকে বহির্ভূত করা হোক। যেন আর কারো ক্ষতি করতে না পারে।

আরো খবর.......

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

কুমিল্লায় অপারেশনের পাঁচ মাস পর পেটের ভিতর থেকে গজ (ব্যান্ডেজ) উদ্ধার!

আপডেট টাইম : ১০:৪৫:৪৪ পূর্বাহ্ণ, বুধবার, ৭ এপ্রিল ২০২১

সাইফুল ইসলাম বিপ্লবী বিশেষ  প্রতিনিধি।।

কুমিল্লার দেবিদ্বার উপজেলায় অপারেশনের ৫ মাস পর শারমিন নামের এক রোগির পেটে পাওয়া গেল গজ কাপড়। যেখানে ইনফেকশন হয়ে গেছে। সিজার অপারেশনের সময় চিকিৎসকের ভুলে রেখে দেওয়া এই গজ কাপড় এই রোগিকে ভুগিয়েছে ৫ মাস ধরে।

রোগির ভাই মোঃ রুহুল আমিন জানান, প্রায় ৫ মাস আগে দেবিদ্বার আল-ইসলাম হসপিটাল এন্ড ডায়াগনষ্টিক সেন্টারে আমার বোন শারমিনের সিজার হয় । সার্জন ছিল ডাঃ রোজিনা আক্তার। সিজারের দিন থেকেই পেটে ব্যাথা শুরু হয়। ব্যাথা নিয়েই আমার বোনকে রিলিজ দেয়া হয়। বলা হয়েছিল কোন সমস্যা নাই ঠিক হয়ে যাবে।

কিছুদিন পরে ডাক্তার দেখানোর পর আল্ট্রা করে জানালো কোন প্রকার সমস্যা নেই। তাই কিছু ঔষধ দিয়ে দিল। ব্যাথা দিনদিন বেড়েই চলেছে। আবার দেখানো হলো। আবার আল্ট্রা করে সব দেখেশুনে বললো কোন সমস্যা নেই। কিছু ব্যাথার এবং গ্যাস্ট্রিকের ঔষধ দিয়ে বললো ব্যথা সেরে যাবে। এবার আর তাদের উপর ভরসা না করে ঢাকায় নিয়ে আসা হলো। দিনে দিনে ব্যাথা তীব্র হচ্ছে। আল্ট্রা করা হচ্ছে, বিভিন্ন রকম টেস্ট করা হচ্ছে। একেকবার একেকরকম কথা বলা হচ্ছে। পেটে পানি জমেছে, গ্যাস জমেছে, এই সেই নানান কিছু বলে ১৪ দিনের ঔষধ, ২১ দিনের ঔষধ খেয়ে আবার আসবেন এইসব চলতেছিল। এর মধ্যে তীব্র ব্যাথার কারনে হাসপাতালে ভর্তিও ছিল বেশ কয়েকদিন।

ব্যাথাও কমছেনা, ডাক্তাররাও সমস্যা ডায়াগনোসিস করতে পারতেছেনা, এত এত টেস্ট করার পরেও এক প্রকার আন্দাজে চিকিৎসা চলতেছিল।  সর্বশেষ অন্য একটি হাসপাতালে একজন ডাক্তার দেখানোর পর আল্ট্রায় যা দেখা গেল তাতে কপালের চক্ষু মাথায় উঠার কথা। গত কয়মাসে অন্তত ১৫-২০ বার আল্ট্রা করা হয়েছে। কোনবারই আল্ট্রায় কেউ যা দেখে নাই আজকে ডাক্তার থমকে গেলো তা দেখে। পেটের ভিতরে সিজারের সময়ের গজ রয়ে গেছে আর সেখানে ইনফেকশন হয়েছে। প্রায় ৫ টা মাস পেটে গজ নিয়ে আমার বোন অসহ্য ব্যাথায় কাতরাচ্ছিল।

এতবার ডাক্তার দেখানো হলো, এতবার আল্ট্রা করানো হলো! উন্নত যন্ত্রে আধুনিক আল্ট্রায় ও কেউ সেটা বুঝতে পারলোনা কেন?

আধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থার এই সময়ে এসেও ৫ মাস ধরে পেটে গজ নিয়ে ডাক্তারদের ধারেধারে ঘুরেও যদি তা ডায়াগনোসিস করতে না পারে সে দুঃখ কারে বলি? এই বেদনা কারে বলি?

হয়তো আমার বোনের অনেক বড় ক্ষতি হয়ে গেল। আমি চাই না পৃথিবীর আর কোন বোন আমার বোনের মতো এতো বড় ক্ষতির সম্মুখীন হোক। আমি চাই এই জ্ঞানহীন ডাক্তারদের চিকিৎসা বিভাগ থেকে বহির্ভূত করা হোক। যেন আর কারো ক্ষতি করতে না পারে।