1. [email protected] : admi2017 :
বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০৪:১৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
ই-পেপার আজকের মোংলায় ’দুর্নীতিকে না বলুন’ শ্লোগানে দুর্নীতি বিরোধী দিবস পালন নমিনেশন পেপার্স জমা দিতেই ব্যাপক আনন্দ উদ্দীপনায় সিক্ত মেম্বার আব্দুল খালেক গাজীপুরের কাশিমপুর সুরাবাড়ী এলাকায় ২৬ টি অবৈধ গ্যাস সংযোগ বিচ্ছিন্ন, ফোর্বসের প্রভাবশালী নারীর তালিকায় ৪৩তম শেখ হাসিনা ১০৮৬ জনকে চাকরি দেবে বাংলাদেশ রেলওয়ে আসন্ন রায়পুরা পৌরসভা নির্বাচনে ৪,৫ও ৬নং ওয়ার্ডের সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদপ্রার্থী তমা আক্তারকে সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর করতে চান “ওয়ার্ডবাসী” এনবিসি ইউকে “ইস্ট লন্ডন” শাখার কমিটি গঠন মাল্টিপারপাস সেডে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের ডিসেম্বরের মাসিক কল্যাণ সভা অনুষ্ঠিত মোংলায় ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে তিন তলাবিশিষ্ট “শ্রম কল্যাণ কেন্দ্র” উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী থেমে নেই কোভিট ১৯ এড সার্ভিস খেশরা এর কার্যক্রম

নকল মাস্ক সরবরাহ ॥ শারমিন জাহানের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন পেছাল

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৯ মার্চ, ২০২১, ৮.১৫ এএম
  • ৯৪ বার পঠিত

সময়ের কন্ঠ রিপোর্টার।।

নকল এন-৯৫ মাস্ক সরবরাহের মামলায় অপরাজিতা ইন্টারন্যাশনালের মালিক শারমিন জাহানের বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ পিছিয়েছে। পরবর্তী প্রতিবেদনের জন্য ২৬ এপ্রিল দিন ধার্য করেছেন আদালত।

আজ মঙ্গলবার মামলাটি তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য ছিল। কিন্তু মামলার তদন্ত কর্মকর্তা প্রতিবেদন জমা না দেওয়ায় ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আবুবকর সিদ্দিক প্রতিবেদনের নতুন তারিখ ধার্য করেন।

গত বছর ২৩ জুলাই রাতে নকল মাস্ক সরবরাহের ঘটনায় বিএসএমএমইউয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ডা. মোজাফফর আহমেদ বাদী হয়ে শাহবাগ থানায় প্রতারণার অভিযোগে মামলাটি করেন। মামলায় এন-৯৫ মাস্ক সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান অপরাজিতা ইন্টারন্যাশনালের মালিক শারমিন জাহানকে আসামি করা হয়।

মামলার অভিযোগে বিএসএমএমইউয়ের প্রক্টর মো. মোজাফফর আহমেদ বলেন, গত ২৭ জুন শারমিন জাহানকে ১১ হাজার মাস্ক সরবরাহের কার্যাদেশ দেয় বিশ্ববিদ্যালয়। কার্যাদেশের বিপরীতে ৩০ জুন প্রথম দফায় এক হাজার ৩০০টি, ২ জুলাই দ্বিতীয় ও তৃতীয় দফায় ৪৬০টি ও এক হাজার এবং ১৩ জুলাই চতুর্থ দফায় ৭০০টি মাস্ক সরবরাহ করা হয়।

প্রথম ও দ্বিতীয় লটের মাস্কে কোনও সমস্যা ছিল না। তৃতীয় ও চতুর্থ দফায় লটের মাস্কে বিতরণ ও ব্যবহারে ত্রুটি পাওয়া যায়। মাস্কের গুণগত মান ভালো পাওয়া যায়নি। কোনও মাস্কের ফিতা ছিঁড়ে গেছে, কোনও মাস্কের ছাপানো লেখায় ত্রুটিপূর্ণ ইংরেজি লেখা পাওয়া যায়। কোনও কোনও মাস্কের নিরাপত্তা কোড ও লট নম্বর প্রস্তুতকারক প্রতিষ্ঠানের ওয়েবসাইটে গিয়ে নকল বলে জানা গেছে। কর্তৃপক্ষ বুঝতে পারে যে মাস্কের গুণগত মান নিম্নমানের ছিল।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazarsomoyer14
© All rights reserved  2019-2021 somoyerkontha.com