ঢাকা ০৫:৩৭ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২২ জুন ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
তথ্য প্রকাশ হওয়ার পর রাজস্ব কর্মকর্তার মতিউর রহমানের অবৈধ সম্পদের খোঁজ মিলেছে এবার দুদক ভারতের সঙ্গে সই হতে পারে ১০টির বেশি চুক্তি ও এমওইউ প্রধানমন্ত্রী নয়াদিল্লি যাচ্ছে সুইজারল্যান্ডের ব্যাংক থেকে বাংলাদেশিদের অর্থ তুলে নেওয়ার হার গত কয়েক বছর ধরে বাড়ছে ভাঙা কালভার্টের সড়কে ঝুঁকি নিয়ে চলছে যানবাহন সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় কৃতি শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠিত দেশের ক্ষতি চায় বিএনপি’ভারতের সঙ্গে বৈরী সম্পর্ক সৃষ্টি করে রাশিয়ার দুটি জ্বালানি ডিপোতে ড্রোন হামলায় আগুন যা বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বেনজীর ও আছাদুজ্জামানের সম্পদ নিয়ে এবার মুখ খুললেন বছরে ৯২ হাজার কোটি টাকা পাচার হয়: সাবেক পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী মতিউর রহমান একজন জাতীয় রাজস্ব কর্মকর্তা। বর্তমানে কাস্টমস তার বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদের পাহাড় রয়েছে

বাড়িওয়ালা-ভাড়াটিয়ার আইনি অধিকার ও প্রতিকার

  • সময়ের কন্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট টাইম : ০৭:১৪:০১ পূর্বাহ্ণ, শুক্রবার, ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১
  • ৩৪৪ ০.০০০ বার পাঠক

নিজস্ব প্রতিবেদ।।।
বাড়ি ভাড়া আইন, ১৯৯১ একটি বিশেষ আইন। বিশেষ আইন অন্য সব সাধারণ আইনের ওপর প্রাধান্য লাভ করে থাকে। এটিই আইনের বিধান। যদিও বাস্তব প্রেক্ষাপটে আমরা এই বিশেষ আইনের তোয়াক্কা না করেই ভাড়াটিয়ারা বিশেষত বাড়িওয়ালারা নিজেদের ইচ্ছেমতো এমন অনেক কিছুই করি যেটা আইন সিদ্ধ নয়। এমন কাজের জন্য বাড়িওয়ালা বা ভাড়াটিয়ারা আইনগতভাবে প্রতিকার পেতে সহকারী জজ আদালতে মামলা দায়ের করতে পারেন।বাড়ি ভাড়া আইন অনুযায়ী একজন ভাড়াটিয়া বা বাড়িওয়ালারা আইনগত কতগুলো দায়িত্ব, অধিকার ও প্রতিকার রয়েছে। আইনগত সুরক্ষা পেতে বাড়ির মালিক ও ভাড়াটিয়ার মধ্যে বাড়ি ভাড়া নেওয়ার আগেই কতগুলো বিষয়ে ঝামেলা মিটিয়ে নিতে হয়। তবেই পরবর্তীতে আইনি সুরক্ষার ক্ষেত্রে কোনো ঝামেলা পোহাতে হবে না।মালিক ও ভারাটিয়ার মধ্যে একটি চুক্তিনামা তৈরি করতে হবে। যেই চুক্তিনামায় মালিক ও ভাড়াটিয়ার মধ্যে বিস্তারিত সুযোগ-সুবিধা করণীয় বর্জনীয়সহ নানা বিষয়ের বিবরণাদি থাকবে। এই চুক্তিনামা ৩০০ টাকার নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে লিখিত হতে হবে। দরকার হলে চুক্তিনামাটি রেজিস্ট্রি করা যেতে পারে। সম্পত্তি হস্তান্তর আইনের ১০৭ ধারা মোতাবেক যদি রেজিস্ট্রি করা না হয় তবে সেটি এক বছরের জন্য করা হয়েছে বলে গণ্য হবে।

একজন ভারাটিয়া বাড়িওয়ালার কাছে জিম্মি নন। তার কতগুলো আইনগত অধিকার রয়েছে। বাড়িওয়ালা ইচ্ছে করলেই ভাড়াটিয়ার কাছ থেকে মাসিক ভাড়া ব্যতিত অন্য কোনো প্রিমিয়াম, সালামি, অগ্রিম জামানত গ্রহণ করতে পারবেন না। মাসিক ভাড়া ছাড়া যদি কোনো অগ্রিম জামানত গ্রহণ করেন তাহলে ১৪ (২) উপ-ধারা অনুযায়ী সহাকারী জজ আদালতে ভাড়াটিয়া মামলা দায়ের করতে পারেন। এক্ষেত্রে বাড়ির মালিক ইচ্ছে করলেই ভাড়াটিয়াকে উচ্ছেদের মামলা করতে পারেন না। মালিক যদি বাড়ি ভাড়ার টাকা গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানায়। তবে ভাড়াটিয়া মালিককে ডাক মানি অর্ডারের মাধ্যমে টাকা পাঠাবেন।

তবে বাড়িওয়ালারও বাড়ি ভাড়া আইনে কিছু অধিকার রয়েছে। যদি ভাড়াটিয়া প্রতিমাসে নিয়মিতভাবে ভাড়া পরিশোধ না করেন তবে সম্পত্তি হস্তান্তর আইনের ১০৬ এবং ১০৮ (গ) উপ-ধারা অনুযায়ী উচ্ছেদের নোটিশ দিয়ে ভাড়াটিয়ার বিরুদ্ধে মামলা করা যায়। যৌক্তিকতার নিরুপনে প্রতি দুই বছর পর পর মানসম্মতভাবে ভাড়া বাড়াতে পারেন। এছাড়াও বাড়ির মালিকের অনুমোদন ব্যতিত যদি সাবলেট কিংবা বাড়ির গঠনগত কোনো বড় পরিবর্তন কিংবা পার্শ্ববর্তী বাড়ির দখলকারী কোনো ব্যক্তিবর্গকে যদি উৎপাত, উত্যক্ত বা বিরক্ত করে থাকলে ভাড়াটিয়ার বিরুদ্ধে আইনগ ব্যবস্থা নিতে পারেন।

আরো খবর.......

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

তথ্য প্রকাশ হওয়ার পর রাজস্ব কর্মকর্তার মতিউর রহমানের অবৈধ সম্পদের খোঁজ মিলেছে এবার দুদক

বাড়িওয়ালা-ভাড়াটিয়ার আইনি অধিকার ও প্রতিকার

আপডেট টাইম : ০৭:১৪:০১ পূর্বাহ্ণ, শুক্রবার, ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদ।।।
বাড়ি ভাড়া আইন, ১৯৯১ একটি বিশেষ আইন। বিশেষ আইন অন্য সব সাধারণ আইনের ওপর প্রাধান্য লাভ করে থাকে। এটিই আইনের বিধান। যদিও বাস্তব প্রেক্ষাপটে আমরা এই বিশেষ আইনের তোয়াক্কা না করেই ভাড়াটিয়ারা বিশেষত বাড়িওয়ালারা নিজেদের ইচ্ছেমতো এমন অনেক কিছুই করি যেটা আইন সিদ্ধ নয়। এমন কাজের জন্য বাড়িওয়ালা বা ভাড়াটিয়ারা আইনগতভাবে প্রতিকার পেতে সহকারী জজ আদালতে মামলা দায়ের করতে পারেন।বাড়ি ভাড়া আইন অনুযায়ী একজন ভাড়াটিয়া বা বাড়িওয়ালারা আইনগত কতগুলো দায়িত্ব, অধিকার ও প্রতিকার রয়েছে। আইনগত সুরক্ষা পেতে বাড়ির মালিক ও ভাড়াটিয়ার মধ্যে বাড়ি ভাড়া নেওয়ার আগেই কতগুলো বিষয়ে ঝামেলা মিটিয়ে নিতে হয়। তবেই পরবর্তীতে আইনি সুরক্ষার ক্ষেত্রে কোনো ঝামেলা পোহাতে হবে না।মালিক ও ভারাটিয়ার মধ্যে একটি চুক্তিনামা তৈরি করতে হবে। যেই চুক্তিনামায় মালিক ও ভাড়াটিয়ার মধ্যে বিস্তারিত সুযোগ-সুবিধা করণীয় বর্জনীয়সহ নানা বিষয়ের বিবরণাদি থাকবে। এই চুক্তিনামা ৩০০ টাকার নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে লিখিত হতে হবে। দরকার হলে চুক্তিনামাটি রেজিস্ট্রি করা যেতে পারে। সম্পত্তি হস্তান্তর আইনের ১০৭ ধারা মোতাবেক যদি রেজিস্ট্রি করা না হয় তবে সেটি এক বছরের জন্য করা হয়েছে বলে গণ্য হবে।

একজন ভারাটিয়া বাড়িওয়ালার কাছে জিম্মি নন। তার কতগুলো আইনগত অধিকার রয়েছে। বাড়িওয়ালা ইচ্ছে করলেই ভাড়াটিয়ার কাছ থেকে মাসিক ভাড়া ব্যতিত অন্য কোনো প্রিমিয়াম, সালামি, অগ্রিম জামানত গ্রহণ করতে পারবেন না। মাসিক ভাড়া ছাড়া যদি কোনো অগ্রিম জামানত গ্রহণ করেন তাহলে ১৪ (২) উপ-ধারা অনুযায়ী সহাকারী জজ আদালতে ভাড়াটিয়া মামলা দায়ের করতে পারেন। এক্ষেত্রে বাড়ির মালিক ইচ্ছে করলেই ভাড়াটিয়াকে উচ্ছেদের মামলা করতে পারেন না। মালিক যদি বাড়ি ভাড়ার টাকা গ্রহণ করতে অস্বীকৃতি জানায়। তবে ভাড়াটিয়া মালিককে ডাক মানি অর্ডারের মাধ্যমে টাকা পাঠাবেন।

তবে বাড়িওয়ালারও বাড়ি ভাড়া আইনে কিছু অধিকার রয়েছে। যদি ভাড়াটিয়া প্রতিমাসে নিয়মিতভাবে ভাড়া পরিশোধ না করেন তবে সম্পত্তি হস্তান্তর আইনের ১০৬ এবং ১০৮ (গ) উপ-ধারা অনুযায়ী উচ্ছেদের নোটিশ দিয়ে ভাড়াটিয়ার বিরুদ্ধে মামলা করা যায়। যৌক্তিকতার নিরুপনে প্রতি দুই বছর পর পর মানসম্মতভাবে ভাড়া বাড়াতে পারেন। এছাড়াও বাড়ির মালিকের অনুমোদন ব্যতিত যদি সাবলেট কিংবা বাড়ির গঠনগত কোনো বড় পরিবর্তন কিংবা পার্শ্ববর্তী বাড়ির দখলকারী কোনো ব্যক্তিবর্গকে যদি উৎপাত, উত্যক্ত বা বিরক্ত করে থাকলে ভাড়াটিয়ার বিরুদ্ধে আইনগ ব্যবস্থা নিতে পারেন।