ঢাকা ০১:৫৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
ইসরাইলের বাধা, কুরবানি দিতে পারেননি গাজাবাসীর অনেকেই দলীয় নেতাদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করলেন প্রধানমন্ত্রী কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেসে মালগাড়ির ধাক্কা, নিহত ৫ জাতীয় ঈদগাহে ঈদের প্রধান জামাতে অংশ নেন হাজারো তাসলিমা স্ত্রীর বিরুদ্ধে লিঙ্গ কাটার অভিযোগে সাংবাদিক সম্মেলন ঈদ উপলক্ষ্যে ঘরমুখী মানুষ ঝুঁকি নিয়ে পিকআপ ট্রাক ও বাসের ছাদে ঢাকা মহানগর পুলিশের দুই কর্মকর্তা বদলি গতকাল শুক্রবার বিকেল চারটায় উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান রিয়াজ উদ্দিন আহমেদের গাড়ি্ বহরে সন্ত্রাসী হামলা হয়েছে বিএমপি কাউনিয়া থানার অভিযানে ০৫ কেজি গাঁজাসহ আটক ০১ জন লাব্বাঈক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক’এই ধনীতে প্রকম্পিত আরাফাতের ময়দান

চাটমোহরে পাশাপাশি তিন বাড়িতে ৩০ মৌচাক

  • সময়ের কন্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট টাইম : ০৬:০৮:৪৩ পূর্বাহ্ণ, রবিবার, ৩১ জানুয়ারি ২০২১
  • ২৪৪ ০.০০০ বার পাঠক

পাবনা রিপোর্টার।।
চাটমোহর-ফৈলজানা সড়কের পাশে মূলগ্রাম ইউনিয়নের শাহপুর গ্রামে পাশাপাশি তিনটি বাড়ি এখন যেন মৌবাড়িতে পরিণত হয়েছে। একটি বাড়ির ছাদের কার্নিশ জুড়ে, দরজা-জানালার সঙ্গে, একটি বাড়ির চালের সঙ্গে, বাঁশের সঙ্গে এবং অন্য একটি বাড়ির দরজা-জানালা আর আঙিনায় ছোট আমগাছসহ বিভিন্ন গাছে ঝুলছে ৩০টি মৌচাক। ছোট ছোট আরো দুই-তিনটি মৌচাকও রয়েছে।

এর মধ্যে ইন্তার আলী নামের এক ব্যক্তির পরিত্যক্ত পাকা বাড়ি রয়েছে। অন্য দুটি বাড়ির এসব মৌচাকের লাখো মৌমাছির সঙ্গেই বসবাস করছেন বাড়ির লোকজন। বাড়ির মালিক আ. মজিদ ও জাকির হোসেন। চাটমোহর উপজেলা সদর থেকে সাত-আট কিলোমিটার দূরে মূলগ্রামের শাহপুর গ্রামের তিনটি বাড়িতে এ দৃশ্য দেখা গেছে। সরেজমিনে শাহপুর গ্রামের ঐ তিন বাড়ির চারদিক ঘুরে দেখা গেছে কেবল মৌচাক আর মৌচাক।

আরও পড়ুন: এক বাড়িতে ২০টি মৌচাক

বাড়ির মালিক জাকির হোসেন জানান, এর আগে বাড়িটিতে প্রতি বছর দুই-একটা মৌচাক বসত। তবে এবার এত মৌচাক বসবে তা তিনি কল্পনাও করেননি। পাশের ইন্তার আলীর পরিত্যক্ত বাড়িটিই মূলত মৌমাছির ঘাঁটি। সেখান থেকেই আমাদের পাশের দুই বাড়িতে এর বিস্তার।

তিনি বলেন, ‘গ্রামের বাড়ি বলে সবার কাজকর্ম একটু বেশিই। মৌমাছিরও তো ছোটাছুটির অন্ত নেই। কাজ করতে গেলেই মৌমাছির সঙ্গে ধাক্কা লাগে। মৌমাছিগুলো যেন তাদের পরিবারেরই সদস্য হয়ে গেছে। এই গ্রামে কখনো এক বাড়িতে একসঙ্গে এত মৌচাক তৈরি হয়নি বলে জানিয়েছেন মূলগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান রাশেদুল ইসলাম বকুল।’

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এ এ মাসুম বিল্লাহ জানান, মধুর সন্ধানে মৌমাছি বনে গিয়ে মৌচাক তৈরি করে। বাড়ি বা বাড়ির পাশের গাছে মৌচাক থাকে। কিন্তু যদি এত পরিমাণ মৌচাক একসঙ্গে থাকে, তাহলে সত্যিই বিস্ময়কর। এলাকাটি সরিষা চাষ প্রধান হওয়ায় মৌমাছি এখানে ভিড় করেছে।

আরো খবর.......

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

ইসরাইলের বাধা, কুরবানি দিতে পারেননি গাজাবাসীর অনেকেই

চাটমোহরে পাশাপাশি তিন বাড়িতে ৩০ মৌচাক

আপডেট টাইম : ০৬:০৮:৪৩ পূর্বাহ্ণ, রবিবার, ৩১ জানুয়ারি ২০২১

পাবনা রিপোর্টার।।
চাটমোহর-ফৈলজানা সড়কের পাশে মূলগ্রাম ইউনিয়নের শাহপুর গ্রামে পাশাপাশি তিনটি বাড়ি এখন যেন মৌবাড়িতে পরিণত হয়েছে। একটি বাড়ির ছাদের কার্নিশ জুড়ে, দরজা-জানালার সঙ্গে, একটি বাড়ির চালের সঙ্গে, বাঁশের সঙ্গে এবং অন্য একটি বাড়ির দরজা-জানালা আর আঙিনায় ছোট আমগাছসহ বিভিন্ন গাছে ঝুলছে ৩০টি মৌচাক। ছোট ছোট আরো দুই-তিনটি মৌচাকও রয়েছে।

এর মধ্যে ইন্তার আলী নামের এক ব্যক্তির পরিত্যক্ত পাকা বাড়ি রয়েছে। অন্য দুটি বাড়ির এসব মৌচাকের লাখো মৌমাছির সঙ্গেই বসবাস করছেন বাড়ির লোকজন। বাড়ির মালিক আ. মজিদ ও জাকির হোসেন। চাটমোহর উপজেলা সদর থেকে সাত-আট কিলোমিটার দূরে মূলগ্রামের শাহপুর গ্রামের তিনটি বাড়িতে এ দৃশ্য দেখা গেছে। সরেজমিনে শাহপুর গ্রামের ঐ তিন বাড়ির চারদিক ঘুরে দেখা গেছে কেবল মৌচাক আর মৌচাক।

আরও পড়ুন: এক বাড়িতে ২০টি মৌচাক

বাড়ির মালিক জাকির হোসেন জানান, এর আগে বাড়িটিতে প্রতি বছর দুই-একটা মৌচাক বসত। তবে এবার এত মৌচাক বসবে তা তিনি কল্পনাও করেননি। পাশের ইন্তার আলীর পরিত্যক্ত বাড়িটিই মূলত মৌমাছির ঘাঁটি। সেখান থেকেই আমাদের পাশের দুই বাড়িতে এর বিস্তার।

তিনি বলেন, ‘গ্রামের বাড়ি বলে সবার কাজকর্ম একটু বেশিই। মৌমাছিরও তো ছোটাছুটির অন্ত নেই। কাজ করতে গেলেই মৌমাছির সঙ্গে ধাক্কা লাগে। মৌমাছিগুলো যেন তাদের পরিবারেরই সদস্য হয়ে গেছে। এই গ্রামে কখনো এক বাড়িতে একসঙ্গে এত মৌচাক তৈরি হয়নি বলে জানিয়েছেন মূলগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান রাশেদুল ইসলাম বকুল।’

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা এ এ মাসুম বিল্লাহ জানান, মধুর সন্ধানে মৌমাছি বনে গিয়ে মৌচাক তৈরি করে। বাড়ি বা বাড়ির পাশের গাছে মৌচাক থাকে। কিন্তু যদি এত পরিমাণ মৌচাক একসঙ্গে থাকে, তাহলে সত্যিই বিস্ময়কর। এলাকাটি সরিষা চাষ প্রধান হওয়ায় মৌমাছি এখানে ভিড় করেছে।