ঢাকা ১০:২২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন ২০২২
সংবাদ শিরোনাম ::
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রেলস্টেশনে আইসি সালাউদ্দিন খান নোমান যোগদানের পর ব্লেকারদের ছড়াছড়ি রাজবাড়ীর সরকারি কলেজে ইতিহাস টঙ্গীতে মাদক কারবারির বিরুদ্ধে সংবাদ প্রকাশ করায় সাংবাদিককে প্রাণনাশের হুমকি বাংলাদেশ স্কাউটস ফুলবাড়ী উপজেলা শাখার ত্রি বার্ষিক সাধারন সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে পীরগঞ্জে সাড়ে এগারোশ কেজি ওজনের গরু, দাম ১৫ লাখ লক্ষ্মীপুরে আদালতের হত্যা মামলায় যুবকের যাবজ্জীবন ফুলবাড়ীতে নারী সহিংসতা বন্ধে নেটওয়ার্ক সভা অনুষ্ঠিত ঈদ মোবারক , ঈদ মোবারক , ঈদ মোবারক , চট্রগ্রাম বন্দরকে পিছনে ফেলে সর্বোচ্চ রেকর্ড গড়লো মোংলা বন্দর বিরামপুরে তথ্যসংগ্রহকারী ও সুপারভাইজারের প্রশিক্ষণ কর্মশালা

এফডিসিতে ৪৯ বছর ঝালমুড়ি বিক্রির পর বাড়ি ফিরছেন মোল্লা

সময়ের কন্ঠ রিপোর্ট।।

রাজ্জাক, শাবানা, আলমগীর, সালমান শাহ, মান্না থেকে শুরু করে বর্তমান সময়ের সকল তারকা ও এফডিসির কলাকুশলীদের অনেক দিনের চেনা ঝালমুড়ি বিক্রেতা মোল্লা। বর্তমানে তিনি অসুস্থ, হাত-পা আগের মতো সচল নেই। এক হাত অবশ। অন্য হাত দিয়েই সাড়তে হয় কাজ।

Nogod

জীবন সায়াহ্নে এসে বাড়ি ফিরতে চান মোল্লা। বাড়ি ফিরে জীবন ধারণের জন্য দরকার তো টাকার। কিন্তু একজন ঝালমুড়ি বিক্রেতার সেই সামর্থ্যই বা কোথায়? এজন্য তাকে সসম্মানে ফেরত পাঠানোর উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। তার জন্য আয়োজন করা হয় ‘মোল্লা যাবে বাড়ি, মোল্লা মুড়ি উৎসব’। শুক্রবার শুরু হয়ে ‘মোল্লা মুড়ি উৎসব’ চলবে রবিবার পর্যন্ত। প্রতিদিন বিকেল ৩টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত তারকা ও এফডিসির কলাকুশলীরা মোল্লাকে বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করছেন। এখান থেকে যে টাকা আসবে তা নিয়েই গ্রামে ফিরে যাবেন মোল্লা।

এফডিসির সুপরিচিত এই ঝালমুড়ি বিক্রেতার গ্রামের বাড়ি কুমিল্লা জেলার মনোহারগঞ্জ থানার মির্জাপুর গ্রামে। তিন ছেলে ও তিনি মেয়ের জনক তিনি। ছেলে-মেয়েরা তারা তাদের সংসার নিয়ে আলাদা। ছোট ছেলেটা এখনো পড়া-লেখা করছে।

আরও পড়ুন: এপ্রিলে চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির নির্বাচন

মোল্লা জানান, ‘সেই ১৯৭২ সাল থেকে আমি এখানে ঝালমুড়ি বিক্রি করি। দেশের এমন কোনো তারকা নেই যে আমার মুড়ি খাননি। পাশাপাশি এফডিসির মসজিদে ইমাম হিসেবেও কাজ করেছি। এখন বয়স হয়েছে। ঠিকমতো কাজ করতে পারি না। আগে বিক্রি করতাম ৩ কেজি মুড়ি আর এখন বিক্রি করি ১ কেজি মুড়ি। এই টাকা দিয়ে আমার ভাতের পয়সাই হয় না। তাই গ্রামের বাড়ি যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সেখানে গিয়ে দোকান করার চিন্তা করেছি। এজন্য তো টাকার দরকার। আমার বাড়ি যাওয়ার কথা শুনে ছেলেরা এই আয়োজন করেছে। চলচ্চিত্র প্রযোজক, পরিচালক, শিল্পীসহ চলচ্চিত্র কলাকুশলী আমাকে সহযোগিতা করছে।’

তার কথায়, ‘এফডিসিতেই কেটে গেছে প্রায় ৪৯ বছর। দীর্ঘদিন ধরে এখানে থাকায় অনেক মায়া জন্মেছে। এই মায়া ছেড়ে আমি যেতে যাই নি। প্রথম অবস্থায় অনেক খারাপ লাগবে। কিন্তু এফডিসিকে আমি আমার নিজের ঘরবাড়ি মনে করি। যখন খারাপ লাগবে তখন আবার চলে আসবো।’

আগামী শনি ও রবিবার, বিকাল ৩টা- রাত ৮টা পর্যন্ত বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন সংস্থায় (বিএফডিসি) এই আয়োজন করা হয়। উৎসব আয়োজনে রয়েছেন মাজহার বাবু, আহম্মেদ তেপান্তর, রাহাত সাইফুল, এ.এইচ.মুরাদ, আসিফ আলম, রঞ্জু সরকার, রুহুল আমিন ভূঁইয়া প্রমুখ।

আয়োজকরা জানান, আমরা চেষ্টা করছি সম্মানের সহিত মোল্লা ভাইকে বাড়িতে ফেরত পাঠাতে। তাই এই আয়োজন। আশা করি চলচ্চিত্র শিল্পী ও কলাকুশলীরা শেষবারের মতো মোল্লার মুড়ি খেতে আসবেন। এবং বাড়িয়ে দেবেন সাহায্যের হাত।

জাতীয় আরো খবর.......
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় রেলস্টেশনে আইসি সালাউদ্দিন খান নোমান যোগদানের পর ব্লেকারদের ছড়াছড়ি

এফডিসিতে ৪৯ বছর ঝালমুড়ি বিক্রির পর বাড়ি ফিরছেন মোল্লা

আপডেট টাইম : ১২:১৭:৫৪ অপরাহ্ণ, শুক্রবার, ২৯ জানুয়ারি ২০২১

সময়ের কন্ঠ রিপোর্ট।।

রাজ্জাক, শাবানা, আলমগীর, সালমান শাহ, মান্না থেকে শুরু করে বর্তমান সময়ের সকল তারকা ও এফডিসির কলাকুশলীদের অনেক দিনের চেনা ঝালমুড়ি বিক্রেতা মোল্লা। বর্তমানে তিনি অসুস্থ, হাত-পা আগের মতো সচল নেই। এক হাত অবশ। অন্য হাত দিয়েই সাড়তে হয় কাজ।

Nogod

জীবন সায়াহ্নে এসে বাড়ি ফিরতে চান মোল্লা। বাড়ি ফিরে জীবন ধারণের জন্য দরকার তো টাকার। কিন্তু একজন ঝালমুড়ি বিক্রেতার সেই সামর্থ্যই বা কোথায়? এজন্য তাকে সসম্মানে ফেরত পাঠানোর উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। তার জন্য আয়োজন করা হয় ‘মোল্লা যাবে বাড়ি, মোল্লা মুড়ি উৎসব’। শুক্রবার শুরু হয়ে ‘মোল্লা মুড়ি উৎসব’ চলবে রবিবার পর্যন্ত। প্রতিদিন বিকেল ৩টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত তারকা ও এফডিসির কলাকুশলীরা মোল্লাকে বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করছেন। এখান থেকে যে টাকা আসবে তা নিয়েই গ্রামে ফিরে যাবেন মোল্লা।

এফডিসির সুপরিচিত এই ঝালমুড়ি বিক্রেতার গ্রামের বাড়ি কুমিল্লা জেলার মনোহারগঞ্জ থানার মির্জাপুর গ্রামে। তিন ছেলে ও তিনি মেয়ের জনক তিনি। ছেলে-মেয়েরা তারা তাদের সংসার নিয়ে আলাদা। ছোট ছেলেটা এখনো পড়া-লেখা করছে।

আরও পড়ুন: এপ্রিলে চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির নির্বাচন

মোল্লা জানান, ‘সেই ১৯৭২ সাল থেকে আমি এখানে ঝালমুড়ি বিক্রি করি। দেশের এমন কোনো তারকা নেই যে আমার মুড়ি খাননি। পাশাপাশি এফডিসির মসজিদে ইমাম হিসেবেও কাজ করেছি। এখন বয়স হয়েছে। ঠিকমতো কাজ করতে পারি না। আগে বিক্রি করতাম ৩ কেজি মুড়ি আর এখন বিক্রি করি ১ কেজি মুড়ি। এই টাকা দিয়ে আমার ভাতের পয়সাই হয় না। তাই গ্রামের বাড়ি যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সেখানে গিয়ে দোকান করার চিন্তা করেছি। এজন্য তো টাকার দরকার। আমার বাড়ি যাওয়ার কথা শুনে ছেলেরা এই আয়োজন করেছে। চলচ্চিত্র প্রযোজক, পরিচালক, শিল্পীসহ চলচ্চিত্র কলাকুশলী আমাকে সহযোগিতা করছে।’

তার কথায়, ‘এফডিসিতেই কেটে গেছে প্রায় ৪৯ বছর। দীর্ঘদিন ধরে এখানে থাকায় অনেক মায়া জন্মেছে। এই মায়া ছেড়ে আমি যেতে যাই নি। প্রথম অবস্থায় অনেক খারাপ লাগবে। কিন্তু এফডিসিকে আমি আমার নিজের ঘরবাড়ি মনে করি। যখন খারাপ লাগবে তখন আবার চলে আসবো।’

আগামী শনি ও রবিবার, বিকাল ৩টা- রাত ৮টা পর্যন্ত বাংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন সংস্থায় (বিএফডিসি) এই আয়োজন করা হয়। উৎসব আয়োজনে রয়েছেন মাজহার বাবু, আহম্মেদ তেপান্তর, রাহাত সাইফুল, এ.এইচ.মুরাদ, আসিফ আলম, রঞ্জু সরকার, রুহুল আমিন ভূঁইয়া প্রমুখ।

আয়োজকরা জানান, আমরা চেষ্টা করছি সম্মানের সহিত মোল্লা ভাইকে বাড়িতে ফেরত পাঠাতে। তাই এই আয়োজন। আশা করি চলচ্চিত্র শিল্পী ও কলাকুশলীরা শেষবারের মতো মোল্লার মুড়ি খেতে আসবেন। এবং বাড়িয়ে দেবেন সাহায্যের হাত।