1. [email protected] : admi2017 :
রবিবার, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ০২:০৪ অপরাহ্ন

হিলি বন্দর দিয়ে চাল আমদানি বন্ধ

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ১৭ জানুয়ারী, ২০২১, ৬.৫৮ এএম
  • ৫৯ বার পঠিত

সময়ের কন্ঠ রিপোর্টার।।

দিনাজপুরের হাকিমপুর উপজেলার হিলি স্থলবন্দর দিয়ে গত বুধবার থেকে ভারত থেকে চাল আমদানি বন্ধ হয়ে গেছে। গত মঙ্গলবার সর্বশেষ এই বন্দর দিয়ে চাল আমদানি করা হয়।

Nogod

বন্দরের আমদানি-রপ্তানিকারক গ্রুপের সভাপতি হারুন উর রশিদ জানান, বাংলাদেশে কোন পণ্য আমদানি করার ক্ষেত্রে একটি সুনির্দিষ্ট এইচএস কোড থাকে। চাল আমদানির ক্ষেত্রেও একই নিয়ম। আমরা ভারত থেকে সিদ্ধ চাল (নন-বাসমতি) আমদানি করার জন্য ১০০৬.২০-০০ নম্বর বিশিষ্ট এইচএস কোড ব্যবহার করে আমদানি করছি। এরফলে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে ওই এইচএস কোডে চাল আমদানি করা হচ্ছে। গত মঙ্গলবার ভারতের চাল রপ্তানিকারকরা তাদের সরকার ১০০৬.৩০.৯০ এইচএস কোড ছাড়া চাল রপ্তানি করবে না বলে জানান। ফলে পূর্বের ১০০৬.২০-০০ এইচএস কোড অকার্যকর হয়ে পড়ে। এ কারণে গত বুধবার থেকে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে দেশে চাল আমদানি বন্ধ হয়ে গেছে। এ ব্যাপারে ভারতের ব্যবসায়ীদের সাথে আলোচনা চলছে। তবে খুব তাড়াতাড়ি সমাধান হয়ে যাবে বলে আমরা আশা করছি।

বন্দরে চাল খালাস কাজে নিয়োজিত সিএন্ডএফ এজেন্ট সেরেগুল ইসলাম জানান, বর্তমানে যে এইচএস কোডের মাধ্যমে ভারত থেকে চাল আমদানি করা হচ্ছিলো এবং এখন যে এইচএস কোডের মাধ্যমে আমদানির কথা বলা হচ্ছে তা প্রায় একই এইচএস কোড হিসেবে বিবেচিত। এই দুই এইচএস কোডের মধ্যে তেমন কোন পার্থক্য হয় না। সবই হাসকিং মিলের সিদ্ধ চাল এবং একই গুণগত মানের। ভারত সরকার চালের রপ্তানি মূল্য বাড়ানোর জন্য এই ফন্দি করছে। এর আগেও গম আমদানি করা হচ্ছিল। কিন্তু একপর্যায়ে গম রপ্তানি বন্ধ করে দিয়ে তারা তাদের পছন্দের লোকদের দিয়ে সমুদ্রপথে রপ্তানি শুরু করে। যাতে অন্য কেউ ব্যবসা করতে না পারে। চালের ক্ষেত্রেও তারা এই কৌশল করছে।

বন্দরের পানামা হিলি পোর্টের জনসংযোগ কর্মকর্তা সোহরাব হোসেন মল্লিক জানান, গত ৯-১২ জানুয়ারি পর্যন্ত ভারত থেকে ৫৪ টি ট্রাকে মোট ২ হাজার ১৩৩ মেট্রিকটন সিদ্ধ চাল আমদানি করা হয়েছে। এরপর থেকে এই বন্দর দিয়ে চাল আমদানি বন্ধ আছে।

বন্দরের কাস্টমস কার্যালয় বলছে, দীর্ঘ বছর পর গত ৯ জানুয়ারি থেকে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে ভারত থেকে চাল আমদানি শুরু হয়। বন্দরের আমদানিকারকেরা প্রতি মেট্রিক টন নন-বাসমতি চাল ৩৫৬ ডলারে আমদানি করছেন। এর ফলে বন্দরের ব্যবসায়ী, সিএন্ডএফ এজেন্ট ও কুলি-শ্রমিকসহ সংশ্লিষ্টদের মধ্যে কর্মচাঞ্চল্যতা শুরু হয়।

এদিকে সাম্প্রতিককালে দেশে চালের বাজার অস্থিতিশীল হয়ে উঠে। সরকার দামের ঊর্ধ্বগতি ঠেকাতে ভারত থেকে বেসরকারি পর্যায়ে চাল আমদানি করার সিদ্ধান্ত নেয়। এ কারণে হিলিসহ দেশের বিভিন্ন এলাকার আমদানিকারকরা ভারত থেকে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে দেশে চাল আমদানি শুরু হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazarsomoyer14
© All rights reserved  2019-2021 somoyerkontha.com