1. [email protected] : admi2017 :
মঙ্গলবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২২, ০৯:০৬ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::

পার্লামেন্টে নিজদলীয় এমপির তোপের মুখে ইমরান খান

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৫ জানুয়ারি, ২০২২, ১০.১৫ পূর্বাহ্ণ
  • ৮ বার পঠিত

আন্তর্জাতিক রিপোর্ট।।

নিজদলের এমপি ও প্রতিরক্ষামন্ত্রীর তোপের মুখে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। শুক্রবার জাতীয় পরিষদে খাইবার পখতুনখাওয়া প্রদেশকে অবজ্ঞা করার জন্য সরকারের বিরুদ্ধে সমালোচনার তীর মারেন ক্ষমতাসীন পাকিস্তান তেহরিকে ইনসাফের (পিটিআই) সদস্য নূর আলম খান। প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানসহ মন্ত্রীপরিষদের শীর্ষ সদস্যদেরকে এক্সিট কন্ট্রোল লিস্টে (বিদেশ গমনে নিষেধাজ্ঞা তালিকা) রাখার দাবি তোলেন তিনি। জাতীয় পরিষদে এই পার্লামেন্ট সদস্য বলেন, পার্লামেন্টের প্রথম তিনটি সারি দখল করে আছেন যারা, তারাই দেশের বিশৃংখলার মূল কালপ্রিট। তাই তাদের নাম এক্সিট কন্ট্রোল লিস্টে তোলা উচিত। তাতে রক্ষা পাবে পাকিস্তান। তিনি পার্লামেন্টের সামনে ট্রেজারি বেঞ্চকে উদ্দেশ্য করে এ কথা বলেন। এই বেঞ্চেই বসেন পার্লামেন্ট নেতা ও প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

ঢাকা, ১৫ জানুয়ারি ২০২২, শনিবার , ১ মাঘ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১১ জমাদিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

পার্লামেন্টে নিজদলীয় এমপির তোপের মুখে ইমরান খান

বিশ্বজমিন

 

মানবজমিন ডেস্ক
(২ ঘন্টা আগে) জানুয়ারি ১৫, ২০২২, শনিবার, ২:০৯ অপরাহ্ন

নিজদলের এমপি ও প্রতিরক্ষামন্ত্রীর তোপের মুখে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। শুক্রবার জাতীয় পরিষদে খাইবার পখতুনখাওয়া প্রদেশকে অবজ্ঞা করার জন্য সরকারের বিরুদ্ধে সমালোচনার তীর মারেন ক্ষমতাসীন পাকিস্তান তেহরিকে ইনসাফের (পিটিআই) সদস্য নূর আলম খান। প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানসহ মন্ত্রীপরিষদের শীর্ষ সদস্যদেরকে এক্সিট কন্ট্রোল লিস্টে (বিদেশ গমনে নিষেধাজ্ঞা তালিকা) রাখার দাবি তোলেন তিনি। জাতীয় পরিষদে এই পার্লামেন্ট সদস্য বলেন, পার্লামেন্টের প্রথম তিনটি সারি দখল করে আছেন যারা, তারাই দেশের বিশৃংখলার মূল কালপ্রিট। তাই তাদের নাম এক্সিট কন্ট্রোল লিস্টে তোলা উচিত। তাতে রক্ষা পাবে পাকিস্তান। তিনি পার্লামেন্টের সামনে ট্রেজারি বেঞ্চকে উদ্দেশ্য করে এ কথা বলেন। এই বেঞ্চেই বসেন পার্লামেন্ট নেতা ও প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

এ খবর দিয়েছে অনলাইন ডন।

এর আগের দিন প্রতিরক্ষামন্ত্রী পারভেজ খাত্তাক সমালোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের। তার মতোই খাইবার পখতুনখাওয়ায়, বিশেষ করে প্রাদেশিক রাজধানী পেশোয়ারে নতুন একটি গ্যাস সংযোগ বাতিল করার ইস্যুতে পার্লামেন্ট গরম করে তোলেন পিটিআইয়ের এমএনএ নূর আলম খান। তিনি বলেন, মনে হচ্ছে পেশোয়ার পাকিস্তানের কোনো জেলা নয়। কিন্তু মিয়াওয়ালি এবং সোয়াত হলো পাকিস্তানের অংশ।
জাতীয় পরিষদের ২৭ নম্বর আসন থেকে নির্বাচিত নূর আলম খান। তিনি নিজের শহরকে প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনী আসনের সঙ্গে তুলনা করে এ কথা বলেন।

নূর আলম খান বলেন, তার নির্বাচনী আসনে সেইসব মানুষের বসবাস, যারা মৌলিক সুযোগ সুবিধাবঞ্চিত হয়ে আসছেন। এর মধ্যে আছে গ্যাস এবং বিদ্যুত। সরকারের কোনো ব্যক্তির নাম উল্লেখ না করে তিনি শাসকদেরকে বিলাসিতার খোলস থেকে বেরিয়ে আসার আহ্বান জানান এবং মানুষের দুর্ভোগ দেখার আহ্বান জানান। তার ভাষায়, দয়া করে আপনাদের এয়ারক্রাফট, ল্যান্ডক্রুজার, বিএমডব্লিউ থেকে বেরিয়ে আসুন। দেখুন মানুষ কি অবর্ণনীয় দুর্ভোগে ভুগছে।এ সময় বিরোধী দলগুলোও ক্ষমতাসীন পিটিআইকে ঘায়েল করার চেষ্টা করে। শুক্রবার টেলিভিশনে দেয়া এক সাক্ষাতকারে পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজের (পিএমএলএন) নেতা আহসান ইকবাল বলেন, পিটিআইয়ের ভিতরেই ধ্বংস শুরু হয়ে গেছে।

ওদিকে বৃহস্পতিবারে ক্ষতাসীন জোটের পার্লামেন্টারি দলের এক বৈঠক করেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী পারভেজ খাত্তাক। সেখানে তিনি বলেন, আমি কি কোনো পাকিস্তানি নই? আমি কি এ দেশে শুধু আমার ভোট দেয়ার জন্য? তিনিও এ সময় অভিযোগ তুলে ধরেন যে, খাইবার পখতুনখাওয়া প্রদেশের মানুষের মৌলিক সুযোগ সুবিধা দেয়নি সরকার। প্রদেশটির সঙ্গে নতুন গ্যাস সংযোগে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন, যদি তার প্রদেশের এসব সমস্যার সমাধান করা না হয় তাহলে তিনি আর প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে ভোট দেবেন না। তার এমন বক্তব্যের জবাবে ইমরান খান বলেছেন, আমাকে ব্লাকমেইল করবেন না।

ওদিকে শুক্রবার বানার থেকে নির্বাচিত পিটিআই দলের আরেক নেতা শের আকবর খান মালাকান্ড বিভাগে অতিরিক্ত বিল আদায়ের অভিযোগ উত্থাপন করেন এবং জ্বালানির মূল্য ঠিকঠাক করে অতিরিক্ত চার্জ প্রত্যাহার দাবি করেন তিনি। তিনি বলেন, উপজাতিদের সাবেক এলাকা এবং মালাকান্দ বিভাগকে এর আগে আয়করমুক্ত এলাকা ঘোষণা করা হয়েছিল। কিন্তু এখন এই এলাকার জনগণ নানা রকম ট্যাক্সের অভিযোগ করছেন এবং তারা এই ট্যাক্স দিচ্ছেন।

তার সঙ্গে যোগ দেন উত্তর ওয়াজিরিস্তানের এমএনএ মোহসিন দাওয়ার। তিনি বলেন, তার সংসদীয় আসনের জনগণ গ্যাসের অভাবে কান্নাকাটি করছে। কিন্তু সরকার খাইবার পখতুনখাওয়া এলাকায় গ্যাসের বিষয়ে সরকার পার্লামেন্টকে বোকা বানাচ্ছে। ওই প্রদেশে যে গ্যাস উত্তোলন করা হচ্ছে, তা এর নিজস্ব জনগোষ্ঠীর কাছে ব্যবহার করতে দেয়া হচ্ছে না। তা পৌঁছে দেয়া হচ্ছে দেশের অন্য স্থানগুলোতে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazarsomoyer14
© All rights reserved  2019-2021

Dailysomoyerkontha.com