ঢাকা ০৯:৪৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
ইংল্যান্ড বিএনপি’র সভাপতির সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন পিসা বিএনপি’র আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পারভেজ মোশারফ কোস্টগার্ড কর্তৃক বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান কিশোরগঞ্জে দৈনিক নাগরিক ভাবনার ৪র্থ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত যুব উন্নয়ন থেকে দর্জি বিজ্ঞান প্রশিক্ষণ নিয়ে জামালপুরের যুব মহিলারা আত্ম নির্ভরশীল এমপি হবার শিক্ষাগত যোগ্যতার প্রতিপাদ্য নিয়ে ময়মনসিংহ রেলওয়ে ষ্টেশনে চাঞ্চল্যকর খুনের প্রধান আসামী মোহাম্মদ আলী গ্রেফতার ইপিজেড থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানে(দুইশত চার) পিস ইয়াবা ট্যাবলেট সহ এক মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার পাকুন্দিয়ায় ৬ষ্ট বার্ষিকী ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্টিত টঙ্গীতে কিশোর গ্যাং লিডার মাইদুল গ্রেফতার তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে অস্ট্রিয়াতে দুই বাংলাদেশী প্রবাসীর মধ্যে মারামারি গ্রেফতার এক

বাঘায় ইউপি নির্বাচন: কোমর বেঁধে মাঠে আ’লীগ প্রার্থীরা বিদ্রোহীর ভিড়ে জয়ের সুযোগ স্বতন্ত্র প্রার্থীদের

  • সময়ের কন্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট টাইম : ০৫:৪৫:০৯ অপরাহ্ণ, শুক্রবার, ২৪ ডিসেম্বর ২০২১
  • ২১৬ ০.০০০ বার পাঠক

বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি।।

চতুর্থ ধাপে ( ২৬ ডিসেম্বর) রাজশাহীর বাঘা উপজেলার তিন ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ইউনিয়নগুলো হলো- আড়ানী,বাউসা ও যোগাযোগ বিছিন্ন পদ্মার চরাঞ্চলের চকরাজাপুর। ইউনিয়ন ৩টিতে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বদ্বিতা করছেন আওয়ামী লীগের দলীয় ৩ প্রার্থীসহ ৮ প্রার্থী। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর বিপরীতে দলীয় হাইকমান্ডের সিদ্ধান্ত অবজ্ঞা করে দুটি ইউনিয়নে নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন ২ বিদ্রোহী প্রার্থী। বিএনপি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন বর্জন করলেও স্বতন্ত্রের আড়ালে দুইটি ইউনিয়নে নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন বিএনপির দুই প্রার্থীরা।
আড়ানী ইউনিয়নে চার চেয়ারম্যান প্রার্থী হলো-বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী, সাবেক চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম (নৌকা), বিএনপি দলীয় স্বতন্ত্র প্রার্থী ,সাবেক চেয়ারম্যান নাসির উদ্দীন (আনারস),বাংলাদেশ ওয়াকার্স পার্টির এনামুল হক (হাতুড় মার্কা) স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহাতাব আলী (মোটরসাইকেল) ।
বাউসায় ৩জন হলো- বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী শফিকুর রহমান (নৌকা), বিএনপি দলীয় স্বতন্ত্র প্রার্থী আনোয়ার হোসেন (আনারস) ও আ’লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ নূর মোহাম্মদ (মোটরসাইকেল)। চকরাজাপুরে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী ডিএম বাবুল মনোয়ার (নৌকা), আ’লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান আজিজুল আযম (আনারস)। দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় আ’লীগের দুই নেতা নুর মোহাম্মদ ও আজিজুল আযমকে দল থেকে বহিস্কার করা হয়েছে।
তবে আত্মীয়তার বন্ধন ও গোষ্ঠীতন্ত্রের কারণে বিএনপি ও বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে অবস্থান নিয়ে গোপনে নির্বাচনী কার্যক্রম পরিচালনা করছেন কেউ কেউ। এতে ভোটের সমীকরণে আওয়ামী লীগের গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছেন বিদ্রোহী প্রার্থী। নাম প্রকাশ না করার শর্তে অনেকে বলেন, ৩টি ইউনিয়নের দু-একটি ছাড়া আওয়ামী লীগের বিপর্যয় ঘটতে পারে। আর এই সুযোগটিকেই সম্ভাবনা হিসেবে কাজে লাগাতে মরিয়া স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।
চকরাজাপুর ইউনিয়নের আহম্মদ আলী বলেন, প্রতীক দেখে নয়,ব্যক্তি দেখে ভোট দিবেন। ওই ইউনিয়নের মন্টু নামের একজন বলেন,আ’লীগ করি, তাই প্রতীক দেখে ভোট দিবেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিএনপির সর্মথকরা বলেছেন ব্যক্তি দেখে ভোট দেওয়ার কথা। তাদের কথায় কেই কারো চাইতে পিছিয়ে নেই। সবাই সমান সমান।
এদিকে বিজয়ের সম্ভাবনাকে হাতছাড়া না করে, আওয়ামী লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের জেলা ও উপজেলা কমিটির শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা প্রায় প্রতিদিন ইউনিয়নে ইউনিয়নে প্রচার কার্যক্রমে অংশ নিচ্ছেন।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আশরাফুর ইসলাম বাবুল জানান, দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গকারী দুইজনের বিরুদ্ধে দলগত সিদ্ধান্তে আওয়ামী লীগের হাইকমান্ডের নির্দেশমতে বহিস্কার করা হয়েছে। দলের সব নেতা-কর্মী নৌকার প্রার্থীর পক্ষে কাজ করছেন। জয়ের আশা তাদেরই।
উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ফকরুল হাসান বাবুলের কাছে দলীয় সিদ্ধান্ত সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ইউপি নির্বাচনে অংশ নিতে দলীয় নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তবে গোষ্ঠীগত ও আঞ্চলিকতার কারণে কেউ যদি চতুর্থ ধাপের এই নির্বাচনে অংশ নেন সেক্ষেত্রে কাউকে নিষেধ করা হয়নি।
রাজশাহী জেলা প্রশাসক,পুলিশ সুপার ও নির্বাচন অফিসার বলেছেন,ভোট কেন্দ্রে ও ভোটারদের নিরাপত্তার স্বার্থে সকল ধরনের ব্যবস্থা নিয়েছেন। তাই শঙ্কার কোন কারন নেই।

উল্লেখ্য,অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনে ৮ চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ আড়ানি ইউনিয়নে সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ৮ জন, সাধারণ সদস্য পদে ২৭ জন, বাউসায় সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ১২ জন, সাধারণ সদস্য পদে ৩৭ জন ও চকরাজাপুর ইউনিয়নে সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ১০ জন সাধারণ সদস্য পদে ২৬ জন ও প্রার্থী প্রতিদ্ব›দ্বীতা করছেন।
নির্বাচন কার্যালয় সুত্রে জানা গেছে,তিনটি ইউনিয়নের মধ্যে, আড়ানী ইউনিয়নে সম্ভব্য মোট ভোটার সংখ্যা ৮ হাজার ৮৮৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ৪ হাজার ৪১৩ ও নারী ৪ হাজার ৪৭১ জন। বাউসা ইউনিয়নে সম্ভব্য মোট ভোটার সংখ্যা ২৪ হাজার ৭৫ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১২ হাজার ৩১ ও নারী ১২ হাজার ৪৪ জন। চকরাজাপুর ইউনিয়নে সম্ভব্য মোট ভোটার সংখ্যা ৯ হাজার ৭১৩ জন। এর মধ্যে পুরুষ ৪ হাজার ৯৫৬ ও নারী ৪ হাজার ৭৫৪ জন।##

আরো খবর.......

জনপ্রিয় সংবাদ

ইংল্যান্ড বিএনপি’র সভাপতির সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন পিসা বিএনপি’র আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পারভেজ মোশারফ

বাঘায় ইউপি নির্বাচন: কোমর বেঁধে মাঠে আ’লীগ প্রার্থীরা বিদ্রোহীর ভিড়ে জয়ের সুযোগ স্বতন্ত্র প্রার্থীদের

আপডেট টাইম : ০৫:৪৫:০৯ অপরাহ্ণ, শুক্রবার, ২৪ ডিসেম্বর ২০২১

বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি।।

চতুর্থ ধাপে ( ২৬ ডিসেম্বর) রাজশাহীর বাঘা উপজেলার তিন ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ইউনিয়নগুলো হলো- আড়ানী,বাউসা ও যোগাযোগ বিছিন্ন পদ্মার চরাঞ্চলের চকরাজাপুর। ইউনিয়ন ৩টিতে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বদ্বিতা করছেন আওয়ামী লীগের দলীয় ৩ প্রার্থীসহ ৮ প্রার্থী। এর মধ্যে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর বিপরীতে দলীয় হাইকমান্ডের সিদ্ধান্ত অবজ্ঞা করে দুটি ইউনিয়নে নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন ২ বিদ্রোহী প্রার্থী। বিএনপি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন বর্জন করলেও স্বতন্ত্রের আড়ালে দুইটি ইউনিয়নে নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন বিএনপির দুই প্রার্থীরা।
আড়ানী ইউনিয়নে চার চেয়ারম্যান প্রার্থী হলো-বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী, সাবেক চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম (নৌকা), বিএনপি দলীয় স্বতন্ত্র প্রার্থী ,সাবেক চেয়ারম্যান নাসির উদ্দীন (আনারস),বাংলাদেশ ওয়াকার্স পার্টির এনামুল হক (হাতুড় মার্কা) স্বতন্ত্র প্রার্থী মাহাতাব আলী (মোটরসাইকেল) ।
বাউসায় ৩জন হলো- বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী শফিকুর রহমান (নৌকা), বিএনপি দলীয় স্বতন্ত্র প্রার্থী আনোয়ার হোসেন (আনারস) ও আ’লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ নূর মোহাম্মদ (মোটরসাইকেল)। চকরাজাপুরে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থী ডিএম বাবুল মনোয়ার (নৌকা), আ’লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান আজিজুল আযম (আনারস)। দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে নির্বাচনে অংশ নেওয়ায় আ’লীগের দুই নেতা নুর মোহাম্মদ ও আজিজুল আযমকে দল থেকে বহিস্কার করা হয়েছে।
তবে আত্মীয়তার বন্ধন ও গোষ্ঠীতন্ত্রের কারণে বিএনপি ও বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থীর পক্ষে অবস্থান নিয়ে গোপনে নির্বাচনী কার্যক্রম পরিচালনা করছেন কেউ কেউ। এতে ভোটের সমীকরণে আওয়ামী লীগের গলার কাঁটা হয়ে দাঁড়িয়েছেন বিদ্রোহী প্রার্থী। নাম প্রকাশ না করার শর্তে অনেকে বলেন, ৩টি ইউনিয়নের দু-একটি ছাড়া আওয়ামী লীগের বিপর্যয় ঘটতে পারে। আর এই সুযোগটিকেই সম্ভাবনা হিসেবে কাজে লাগাতে মরিয়া স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।
চকরাজাপুর ইউনিয়নের আহম্মদ আলী বলেন, প্রতীক দেখে নয়,ব্যক্তি দেখে ভোট দিবেন। ওই ইউনিয়নের মন্টু নামের একজন বলেন,আ’লীগ করি, তাই প্রতীক দেখে ভোট দিবেন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিএনপির সর্মথকরা বলেছেন ব্যক্তি দেখে ভোট দেওয়ার কথা। তাদের কথায় কেই কারো চাইতে পিছিয়ে নেই। সবাই সমান সমান।
এদিকে বিজয়ের সম্ভাবনাকে হাতছাড়া না করে, আওয়ামী লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের জেলা ও উপজেলা কমিটির শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা প্রায় প্রতিদিন ইউনিয়নে ইউনিয়নে প্রচার কার্যক্রমে অংশ নিচ্ছেন।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক আশরাফুর ইসলাম বাবুল জানান, দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গকারী দুইজনের বিরুদ্ধে দলগত সিদ্ধান্তে আওয়ামী লীগের হাইকমান্ডের নির্দেশমতে বহিস্কার করা হয়েছে। দলের সব নেতা-কর্মী নৌকার প্রার্থীর পক্ষে কাজ করছেন। জয়ের আশা তাদেরই।
উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান ফকরুল হাসান বাবুলের কাছে দলীয় সিদ্ধান্ত সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ইউপি নির্বাচনে অংশ নিতে দলীয় নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। তবে গোষ্ঠীগত ও আঞ্চলিকতার কারণে কেউ যদি চতুর্থ ধাপের এই নির্বাচনে অংশ নেন সেক্ষেত্রে কাউকে নিষেধ করা হয়নি।
রাজশাহী জেলা প্রশাসক,পুলিশ সুপার ও নির্বাচন অফিসার বলেছেন,ভোট কেন্দ্রে ও ভোটারদের নিরাপত্তার স্বার্থে সকল ধরনের ব্যবস্থা নিয়েছেন। তাই শঙ্কার কোন কারন নেই।

উল্লেখ্য,অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনে ৮ চেয়ারম্যান প্রার্থীসহ আড়ানি ইউনিয়নে সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ৮ জন, সাধারণ সদস্য পদে ২৭ জন, বাউসায় সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ১২ জন, সাধারণ সদস্য পদে ৩৭ জন ও চকরাজাপুর ইউনিয়নে সংরক্ষিত ওয়ার্ডে ১০ জন সাধারণ সদস্য পদে ২৬ জন ও প্রার্থী প্রতিদ্ব›দ্বীতা করছেন।
নির্বাচন কার্যালয় সুত্রে জানা গেছে,তিনটি ইউনিয়নের মধ্যে, আড়ানী ইউনিয়নে সম্ভব্য মোট ভোটার সংখ্যা ৮ হাজার ৮৮৪ জন। এর মধ্যে পুরুষ ৪ হাজার ৪১৩ ও নারী ৪ হাজার ৪৭১ জন। বাউসা ইউনিয়নে সম্ভব্য মোট ভোটার সংখ্যা ২৪ হাজার ৭৫ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১২ হাজার ৩১ ও নারী ১২ হাজার ৪৪ জন। চকরাজাপুর ইউনিয়নে সম্ভব্য মোট ভোটার সংখ্যা ৯ হাজার ৭১৩ জন। এর মধ্যে পুরুষ ৪ হাজার ৯৫৬ ও নারী ৪ হাজার ৭৫৪ জন।##