ঢাকা ০৯:০৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
ইপিজেড থানা পুলিশের অভিযানে (৫০)লিটার দেশীয় তৈরী চোলাই মদ সহ একজন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার আবারো বাংলাদেশি যুবক আশিকের বিশ্ব রেকর্ড বিমান বাহিনীর নতুন প্রধান হাসান মাহমুদ খাঁন আজ ঘূর্ণিঝড় রেমাল বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে ২৫ লাখ গ্রাহক মোংলায় ঘূর্ণিঝড় রিমেল মোকাবেলায় ব্যাপক কাজ করছে উপজেলা প্রশাসন রায়পুরে সেপটিক ট্যাংকে নেমে আবারও দুই যুবকে মৃত্যু জামালপুরে সবজি চাষে জৈব সার ব্যবহারের উদ্যোগ ঘূর্ণিঝড় রেমাল সতর্কতায় কোস্টগার্ডের মাইকিং টঙ্গীতে রাজনীতির ছত্রছায়ায় ফকির মার্কেটের সুলতানার মাদক ব্যবসা জমজমাট। সবকিছুই জানে, এখনো কেন গ্রেফতার হয়নি, প্রশ্ন আনারকন্যার

গ্যাস্ট্রিককে দূরে রাখুন

  • সময়ের কন্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট টাইম : ১২:২৬:৪১ অপরাহ্ণ, মঙ্গলবার, ৫ জানুয়ারি ২০২১
  • ২৩৭ ০.০০০ বার পাঠক

সময়ের কন্ঠ রিপোর্টে।।

গ্যাস্ট্রিক বা অম্বল রোগ হয় না এমন মানুষের সংখ্যা খুব কমই আছে। এই রোগ যাদের আছে তাদের রাতে ঘুমানোর সময় কিংবা দুপুরে খাওয়ার পর বুক জ্বালা পোড়া করে। অনেক ডাক্তারের দেয়া ওষুধ খেয়েও হয়তো গ্যাস্ট্রিক থেকে নিস্তার মেলেনি। অথচ দৈনন্দিন জীবনে অল্প কয়েকটি সাধারণ নিয়ম মেনে চললেই গ্যাস্ট্রিককে দূরে রাখা যায়।

প্রতিবেলায় আপনি যেটুকু খাবার খাচ্ছেন আজ থেকেই তা অর্ধেকে নামিয়ে আনার চেষ্টা করুন। ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নেই। আপনাকে খাওয়া কমিয়ে দিতে বলছি না। শুধু প্রতিবেলার খাবার একবারে না খেয়ে দুইবারে খান। এভাবে তিনবেলার খাবার ছয়বারে। এতে হজমে সুবিধা হবে আপনার।

খাওয়া কখনোই তাড়াহুড়ো করে খাবেন না। ধীরে সুস্থে সময় নিয়ে চিবিয়ে খান। প্রতি লোকমা ভাত বা রুটি ভালো করে চিবোবেন। চিকিৎসকদের মতে খাওয়ার পর পর শুয়ে পড়া উচিত নয়। বরং একটু হাঁটাচলা করুন। পেটের খাবার তাড়াতাড়ি হজম হবে আপনার।

দিনে নিয়ম করে কমপক্ষে দুই লিটার পানি পান করুন। পানি খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য সহজেই দূর হয়। খাওয়ার আগেই প্যান্ট বা লুঙ্গির গিঁট ঢিলা করে নিন। শক্ত বাঁধন টক ঢেকুরের অন্যতম কারণ।

গ্যাস্ট্রিক কমাতে হাঁটাচলা এবং ব্যায়ামের কোনো বিকল্প নেই। তাই নিয়ম করে দৈনিক হাঁটাচলা করুন। সবচেয়ে ভালো হয় যদি তিনবেলা খাওয়ার পর একটু হাঁটতে পারেন। রাতে ঘুমানোর তিনঘণ্টা আগে ডিনার করে নিন।

প্রতিদিনের মেন্যুতে আঁশযুক্ত খাবার যোগ করার চেষ্টা করুন। আঁশযুক্ত খাবার খুব দ্রুত হজম হয়। লাল আটার রুটি, লাল চালের ভাত, যেকোন ধরণের ডাল প্রধান আঁশযুক্ত খাবার।

গ্যাস্ট্রিকের প্রধান শত্রু ধূমপান। সিগারেটের নিকোটিন খাবার হজমে ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব ফেলে থাকে। তাই সবার আগে ধূমপান ত্যাগ করার চেষ্টা করুন।

অনেক সময় মানসিক চাপ থেকেও বুক জ্বলা শুরু হতে পারে। তাই নিশ্চিন্তে থাকার চেষ্টা করুন। পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিন। মানসিক প্রশান্তি এই রোগ থেকে মুক্তি দিতে পারে আপনাকে।

আরো খবর.......

আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

ইপিজেড থানা পুলিশের অভিযানে (৫০)লিটার দেশীয় তৈরী চোলাই মদ সহ একজন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার

গ্যাস্ট্রিককে দূরে রাখুন

আপডেট টাইম : ১২:২৬:৪১ অপরাহ্ণ, মঙ্গলবার, ৫ জানুয়ারি ২০২১

সময়ের কন্ঠ রিপোর্টে।।

গ্যাস্ট্রিক বা অম্বল রোগ হয় না এমন মানুষের সংখ্যা খুব কমই আছে। এই রোগ যাদের আছে তাদের রাতে ঘুমানোর সময় কিংবা দুপুরে খাওয়ার পর বুক জ্বালা পোড়া করে। অনেক ডাক্তারের দেয়া ওষুধ খেয়েও হয়তো গ্যাস্ট্রিক থেকে নিস্তার মেলেনি। অথচ দৈনন্দিন জীবনে অল্প কয়েকটি সাধারণ নিয়ম মেনে চললেই গ্যাস্ট্রিককে দূরে রাখা যায়।

প্রতিবেলায় আপনি যেটুকু খাবার খাচ্ছেন আজ থেকেই তা অর্ধেকে নামিয়ে আনার চেষ্টা করুন। ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নেই। আপনাকে খাওয়া কমিয়ে দিতে বলছি না। শুধু প্রতিবেলার খাবার একবারে না খেয়ে দুইবারে খান। এভাবে তিনবেলার খাবার ছয়বারে। এতে হজমে সুবিধা হবে আপনার।

খাওয়া কখনোই তাড়াহুড়ো করে খাবেন না। ধীরে সুস্থে সময় নিয়ে চিবিয়ে খান। প্রতি লোকমা ভাত বা রুটি ভালো করে চিবোবেন। চিকিৎসকদের মতে খাওয়ার পর পর শুয়ে পড়া উচিত নয়। বরং একটু হাঁটাচলা করুন। পেটের খাবার তাড়াতাড়ি হজম হবে আপনার।

দিনে নিয়ম করে কমপক্ষে দুই লিটার পানি পান করুন। পানি খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য সহজেই দূর হয়। খাওয়ার আগেই প্যান্ট বা লুঙ্গির গিঁট ঢিলা করে নিন। শক্ত বাঁধন টক ঢেকুরের অন্যতম কারণ।

গ্যাস্ট্রিক কমাতে হাঁটাচলা এবং ব্যায়ামের কোনো বিকল্প নেই। তাই নিয়ম করে দৈনিক হাঁটাচলা করুন। সবচেয়ে ভালো হয় যদি তিনবেলা খাওয়ার পর একটু হাঁটতে পারেন। রাতে ঘুমানোর তিনঘণ্টা আগে ডিনার করে নিন।

প্রতিদিনের মেন্যুতে আঁশযুক্ত খাবার যোগ করার চেষ্টা করুন। আঁশযুক্ত খাবার খুব দ্রুত হজম হয়। লাল আটার রুটি, লাল চালের ভাত, যেকোন ধরণের ডাল প্রধান আঁশযুক্ত খাবার।

গ্যাস্ট্রিকের প্রধান শত্রু ধূমপান। সিগারেটের নিকোটিন খাবার হজমে ব্যাপক নেতিবাচক প্রভাব ফেলে থাকে। তাই সবার আগে ধূমপান ত্যাগ করার চেষ্টা করুন।

অনেক সময় মানসিক চাপ থেকেও বুক জ্বলা শুরু হতে পারে। তাই নিশ্চিন্তে থাকার চেষ্টা করুন। পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিন। মানসিক প্রশান্তি এই রোগ থেকে মুক্তি দিতে পারে আপনাকে।