ঢাকা ০৩:২৩ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
ইংল্যান্ড বিএনপি’র সভাপতির সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন পিসা বিএনপি’র আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পারভেজ মোশারফ কোস্টগার্ড কর্তৃক বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান কিশোরগঞ্জে দৈনিক নাগরিক ভাবনার ৪র্থ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত যুব উন্নয়ন থেকে দর্জি বিজ্ঞান প্রশিক্ষণ নিয়ে জামালপুরের যুব মহিলারা আত্ম নির্ভরশীল এমপি হবার শিক্ষাগত যোগ্যতার প্রতিপাদ্য নিয়ে ময়মনসিংহ রেলওয়ে ষ্টেশনে চাঞ্চল্যকর খুনের প্রধান আসামী মোহাম্মদ আলী গ্রেফতার ইপিজেড থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানে(দুইশত চার) পিস ইয়াবা ট্যাবলেট সহ এক মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার পাকুন্দিয়ায় ৬ষ্ট বার্ষিকী ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্টিত টঙ্গীতে কিশোর গ্যাং লিডার মাইদুল গ্রেফতার তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে অস্ট্রিয়াতে দুই বাংলাদেশী প্রবাসীর মধ্যে মারামারি গ্রেফতার এক

সাতক্ষীরার তালায় দলুয়া টু শুক্তিয়া টিকারামপুর পাকা রাস্তা নির্মাণে অনিয়ম কোনোভাবেই থামছে না

  • সময়ের কন্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট টাইম : ১০:৪১:৪০ পূর্বাহ্ণ, শুক্রবার, ১ অক্টোবর ২০২১
  • ২৫১ ০.০০০ বার পাঠক

ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি ।।কিছুতেই থামছে না সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলার দলুয়া শুক্তিয়া টিকারামপুর রাস্তা নির্মাণে অনিয়ম। বর্তমানে রাস্তার ওপর ইট বিছিয়ে দিয়ে এলাকাবাসীর চলাচলের পথ বন্ধ রেখে চালানো হচ্ছে নির্মাণ কাজ। চরম ভোগান্তিতে টিকারামপুর শুক্তিয়া সহ কয়েকটি গ্রামবাসী। কতৃপক্ষের তদারকি না থাকা ও ঠিকাদারের স্বেচ্ছাচারিতায় প্রায় এক বছর খুড়ে ফেলে রাখা হয়েছিল সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলার খলিষখালী ইউনিয়নের দলুয়া শুক্তিয়া রাস্তাটি। প্রায় এক বছর রাস্তাটি খুড়ে ফেলে রাখার ফলে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে ওই এলাকার কয়েকটি গ্রামবাসীকে। প্রায় এক বছর গৃহবন্দি হয়ে পড়েছিল খলিষখালী ইউনিয়নের দলুয়া শুক্তিয়া টিকারামপুর অঞ্চলের কয়েক হাজার মানুষ।

টেন্ডারের মাধ্যমে খুলনার মেসার্স এম এম ব্রাদার্স নামের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান প্রায় ১ কোটি ২২ লাখ টাকা ব্যয়ে রাস্তাটি উন্নয়নের কার্যাদেশ পান। এরই ধারাবাহিকতায় রাস্তাটি দলুয়া বাজার থেকে টিকারামপুর পর্যন্ত মাটি কেটে বালি ফেলার জন্য রেখে দেওয়া হয়। রাস্তা খুড়ে কয়েক মাস ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ না করায় স্থানীয় চেয়ারম্যান বিষয়টি উপজেলা উন্নয়ন সমম্বয় সভায় উপস্থাপন করেন। এর পর ঠিকাদার দলুয়া অংশে বালি ভরাটের জন্য পাশ্ববর্তী নদী থেকে ড্রেজারের সাহায্যে অবৈধভাবে বালি উত্তলন শুরু করে। একপর্যায়ে খবর পেয়ে সাংবাদিকরা বিষয়টি বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রকাশ করলে উপজেলা প্রশাসন অবৈধভাবে বালি উত্তোলন বন্ধ করে দেওয়ার ফলে আবারও ঠিকাদার কাজ বন্ধ করে দেয়। এর কয়েক মাস পর স্থানীয়দের চাপে ঠিকাদার রাস্তার তুলে রাখা পুরাতন ইট খোয়া করে কাজ শুরু করে। দলুয়া অংশে কয়েক ট্রাক বালিও ফেলে। দুই থেকে তিন’শ মিটার কাজ করার পর আবারও রাস্তার কাজ দীর্ঘদিন বন্ধ রাখে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। এভাবে কেটে যায় প্রায় এক বছর। স্থানীয়দের অভিযোগ রাস্তাটি প্রায় একবছর খালের মত করে খুড়ে রাখার ফলে সামন্য বৃষ্টি হলেই রাস্তাটিতে পানি জমে যায়। একটু বৃষ্টির হলেই রাস্তায় পানি জমে খালে পরিণত হয় এবং পানি শুকাতে দীর্ঘ দিন সময় লেগে যায়। কিছুদিন পর রাস্তায় জমে থাকা বৃষ্টির পানি শুকিয়ে গেলেও রাস্তায় প্রচুর কাদা হয়ে যায় যেটা শুকাতে আরো বেশী দিন সময় লেগে যায়। এর ফলে প্রায় এক বছর কয়েকটি গ্রামের মানুষের চলাচলের দূর্ভোগ চরমে পৌছোয়। রাস্তাটির বেহাল দশা সৃষ্টি হওয়ায় মানুষ বাড়ী থেকে বের হয়ে হাট বাজারসহ কোথাও যেতে পারত না। এলাকায় একজন মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে হাসপাতালে নেয়া সম্ভব হতো না। এককথায় রাস্তাটি খুড়ে দীর্ঘদিন ফেলে রাখার ফলে দুর্বিষহ জীবনযাপন করেছে ওই এলাকার মানুষ, যা প্রকাশের কোনো ভাষা নেই। বোরোধানের মৌসুমে ধান কেটে ওই রাস্তা দিয়ে চাষীরা কোন যানবাহনে করে তাদের উৎপাদিত ধান বাড়ীতে আনতে পারেনি। রাস্তাটি যান চলাচলে এতই অনুপোযোগী হয়ে পড়েছিল যে, কৃষকরা মাঠের মধ্যে ধান ক্ষেতে ধান ঝাড়াই এর কাজ করতে বাধ্য হয়েছিল। বিষয়টি বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রকাশ সহ এবিষয়ে এলজিইডির উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হলে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ সড়কটি তদন্তে আসেন এবং সড়ক নির্মাণের কাজ দ্রুত সম্পন্ন করার কঠোর নির্দেশ দেন। এরপর ঠিকাদার তড়িঘড়ি করে শুক্তিয়া বিলের শ্মশানের খাল এলাকা থেকে ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে ভূগর্ভস্থ বালি তুলে দীর্ঘ পাইপ লাইনের মাধ্যমে রাস্তায় বালি ভরাটের কাজ শুরু করেন। বালি ভরাটের সাথে সাথে তড়িঘড়ি করে ঠিকাদার রাস্তার এএস এর কাজ শুরু করে। তবে এএসে বালি এবং খোয়া সমান সমান (অর্থাৎ একঝুড়ি খোয়া একঝুড়ি বালি) দেয়ার নিয়ম থাকলেও বালির পরিমাণ বেশি দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। এছাড়াও নিম্নমানের ইটের খোয়া দিয়ে এএসের কাজ করা হয়েছে বলে জানা গেছে। রাস্তার দুই ধারে এ্যজিং-এর কাজেও ব্যবহার করা হয়েছে নিম্নমানের ইট। রাস্তা নির্মাণ কাজে অনিয়মের বিষয়ে বিভিন্ন সচেতন মহল মনে করেন কতৃৃপক্ষ ঠিকাদারদের কাজে বিলম্ব সহ অনিয়মের বিরুদ্ধে যদি তাৎক্ষণিক কঠোর ভূমিকা গ্রহণ করেন তাহলে কখনই কোন ঠিকাদার কাজে বিলম্বসহ অনিয়ম করার সুযোগ পেতে পারেনা। কিন্তু তারা ঠিকাদারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিয়ে ঠিকাদারদের অনিয়মগুলো ঢাকার চেষ্টা করে থাকেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি বলেন, জেলা ও উপজেলা এলজিইডি যদি সঠিকভাবে কাজ তদারকি করতো তাহলে রাস্তায় নিম্নমানের ইটের খোয়া ব্যবহার হতো না, দলুয়া কুশখালি সহ বিভিন্ন রাস্তা প্রায় এক বছর খুড়ে ফেলে রাখা থাকত না, পুরাতন ব্রিজের উপরে ঠিকাদার নতুন ঢালাই দিতে সাহস পেত না। এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শুক্তিয়া গ্রামের ষাটোর্ধ্ব একজন ব্যক্তি বলেন খারাপ ইটের বিষয়ে আমি প্রতিবাদ করলে ঠিকাদারের লোকজন আমার ওপর চড়াও হয়। নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই এলাকার অসংখ্য ব্যক্তি বলেন এই রাস্তার কাজে শুরু থেকেই সীমাহীন অনিয়ম চলে আসছে এবং এখনও চলছে । এলাকার লোকজন আরো বলেন, ঠিকাদার আমাদের এলাকার কিছু প্রভাবশালী লোককে হাত করে রেখেছে, যে কারনে আমরা কিছু বললে পরে আমাদের বিভিন্নভাবে বিপদে ফেলা হতে পারে।এবিষয়ে সাতক্ষীরা এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী নারায়ন চন্দ্র সরকারের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন বিষয়টি আমি দেখব।

আরো খবর.......

জনপ্রিয় সংবাদ

ইংল্যান্ড বিএনপি’র সভাপতির সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন পিসা বিএনপি’র আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক পারভেজ মোশারফ

সাতক্ষীরার তালায় দলুয়া টু শুক্তিয়া টিকারামপুর পাকা রাস্তা নির্মাণে অনিয়ম কোনোভাবেই থামছে না

আপডেট টাইম : ১০:৪১:৪০ পূর্বাহ্ণ, শুক্রবার, ১ অক্টোবর ২০২১

ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি ।।কিছুতেই থামছে না সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলার দলুয়া শুক্তিয়া টিকারামপুর রাস্তা নির্মাণে অনিয়ম। বর্তমানে রাস্তার ওপর ইট বিছিয়ে দিয়ে এলাকাবাসীর চলাচলের পথ বন্ধ রেখে চালানো হচ্ছে নির্মাণ কাজ। চরম ভোগান্তিতে টিকারামপুর শুক্তিয়া সহ কয়েকটি গ্রামবাসী। কতৃপক্ষের তদারকি না থাকা ও ঠিকাদারের স্বেচ্ছাচারিতায় প্রায় এক বছর খুড়ে ফেলে রাখা হয়েছিল সাতক্ষীরা জেলার তালা উপজেলার খলিষখালী ইউনিয়নের দলুয়া শুক্তিয়া রাস্তাটি। প্রায় এক বছর রাস্তাটি খুড়ে ফেলে রাখার ফলে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে ওই এলাকার কয়েকটি গ্রামবাসীকে। প্রায় এক বছর গৃহবন্দি হয়ে পড়েছিল খলিষখালী ইউনিয়নের দলুয়া শুক্তিয়া টিকারামপুর অঞ্চলের কয়েক হাজার মানুষ।

টেন্ডারের মাধ্যমে খুলনার মেসার্স এম এম ব্রাদার্স নামের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান প্রায় ১ কোটি ২২ লাখ টাকা ব্যয়ে রাস্তাটি উন্নয়নের কার্যাদেশ পান। এরই ধারাবাহিকতায় রাস্তাটি দলুয়া বাজার থেকে টিকারামপুর পর্যন্ত মাটি কেটে বালি ফেলার জন্য রেখে দেওয়া হয়। রাস্তা খুড়ে কয়েক মাস ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান কাজ না করায় স্থানীয় চেয়ারম্যান বিষয়টি উপজেলা উন্নয়ন সমম্বয় সভায় উপস্থাপন করেন। এর পর ঠিকাদার দলুয়া অংশে বালি ভরাটের জন্য পাশ্ববর্তী নদী থেকে ড্রেজারের সাহায্যে অবৈধভাবে বালি উত্তলন শুরু করে। একপর্যায়ে খবর পেয়ে সাংবাদিকরা বিষয়টি বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রকাশ করলে উপজেলা প্রশাসন অবৈধভাবে বালি উত্তোলন বন্ধ করে দেওয়ার ফলে আবারও ঠিকাদার কাজ বন্ধ করে দেয়। এর কয়েক মাস পর স্থানীয়দের চাপে ঠিকাদার রাস্তার তুলে রাখা পুরাতন ইট খোয়া করে কাজ শুরু করে। দলুয়া অংশে কয়েক ট্রাক বালিও ফেলে। দুই থেকে তিন’শ মিটার কাজ করার পর আবারও রাস্তার কাজ দীর্ঘদিন বন্ধ রাখে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান। এভাবে কেটে যায় প্রায় এক বছর। স্থানীয়দের অভিযোগ রাস্তাটি প্রায় একবছর খালের মত করে খুড়ে রাখার ফলে সামন্য বৃষ্টি হলেই রাস্তাটিতে পানি জমে যায়। একটু বৃষ্টির হলেই রাস্তায় পানি জমে খালে পরিণত হয় এবং পানি শুকাতে দীর্ঘ দিন সময় লেগে যায়। কিছুদিন পর রাস্তায় জমে থাকা বৃষ্টির পানি শুকিয়ে গেলেও রাস্তায় প্রচুর কাদা হয়ে যায় যেটা শুকাতে আরো বেশী দিন সময় লেগে যায়। এর ফলে প্রায় এক বছর কয়েকটি গ্রামের মানুষের চলাচলের দূর্ভোগ চরমে পৌছোয়। রাস্তাটির বেহাল দশা সৃষ্টি হওয়ায় মানুষ বাড়ী থেকে বের হয়ে হাট বাজারসহ কোথাও যেতে পারত না। এলাকায় একজন মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে হাসপাতালে নেয়া সম্ভব হতো না। এককথায় রাস্তাটি খুড়ে দীর্ঘদিন ফেলে রাখার ফলে দুর্বিষহ জীবনযাপন করেছে ওই এলাকার মানুষ, যা প্রকাশের কোনো ভাষা নেই। বোরোধানের মৌসুমে ধান কেটে ওই রাস্তা দিয়ে চাষীরা কোন যানবাহনে করে তাদের উৎপাদিত ধান বাড়ীতে আনতে পারেনি। রাস্তাটি যান চলাচলে এতই অনুপোযোগী হয়ে পড়েছিল যে, কৃষকরা মাঠের মধ্যে ধান ক্ষেতে ধান ঝাড়াই এর কাজ করতে বাধ্য হয়েছিল। বিষয়টি বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রকাশ সহ এবিষয়ে এলজিইডির উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হলে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ সড়কটি তদন্তে আসেন এবং সড়ক নির্মাণের কাজ দ্রুত সম্পন্ন করার কঠোর নির্দেশ দেন। এরপর ঠিকাদার তড়িঘড়ি করে শুক্তিয়া বিলের শ্মশানের খাল এলাকা থেকে ড্রেজার দিয়ে অবৈধভাবে ভূগর্ভস্থ বালি তুলে দীর্ঘ পাইপ লাইনের মাধ্যমে রাস্তায় বালি ভরাটের কাজ শুরু করেন। বালি ভরাটের সাথে সাথে তড়িঘড়ি করে ঠিকাদার রাস্তার এএস এর কাজ শুরু করে। তবে এএসে বালি এবং খোয়া সমান সমান (অর্থাৎ একঝুড়ি খোয়া একঝুড়ি বালি) দেয়ার নিয়ম থাকলেও বালির পরিমাণ বেশি দেয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। এছাড়াও নিম্নমানের ইটের খোয়া দিয়ে এএসের কাজ করা হয়েছে বলে জানা গেছে। রাস্তার দুই ধারে এ্যজিং-এর কাজেও ব্যবহার করা হয়েছে নিম্নমানের ইট। রাস্তা নির্মাণ কাজে অনিয়মের বিষয়ে বিভিন্ন সচেতন মহল মনে করেন কতৃৃপক্ষ ঠিকাদারদের কাজে বিলম্ব সহ অনিয়মের বিরুদ্ধে যদি তাৎক্ষণিক কঠোর ভূমিকা গ্রহণ করেন তাহলে কখনই কোন ঠিকাদার কাজে বিলম্বসহ অনিয়ম করার সুযোগ পেতে পারেনা। কিন্তু তারা ঠিকাদারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিয়ে ঠিকাদারদের অনিয়মগুলো ঢাকার চেষ্টা করে থাকেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ব্যক্তি বলেন, জেলা ও উপজেলা এলজিইডি যদি সঠিকভাবে কাজ তদারকি করতো তাহলে রাস্তায় নিম্নমানের ইটের খোয়া ব্যবহার হতো না, দলুয়া কুশখালি সহ বিভিন্ন রাস্তা প্রায় এক বছর খুড়ে ফেলে রাখা থাকত না, পুরাতন ব্রিজের উপরে ঠিকাদার নতুন ঢালাই দিতে সাহস পেত না। এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শুক্তিয়া গ্রামের ষাটোর্ধ্ব একজন ব্যক্তি বলেন খারাপ ইটের বিষয়ে আমি প্রতিবাদ করলে ঠিকাদারের লোকজন আমার ওপর চড়াও হয়। নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই এলাকার অসংখ্য ব্যক্তি বলেন এই রাস্তার কাজে শুরু থেকেই সীমাহীন অনিয়ম চলে আসছে এবং এখনও চলছে । এলাকার লোকজন আরো বলেন, ঠিকাদার আমাদের এলাকার কিছু প্রভাবশালী লোককে হাত করে রেখেছে, যে কারনে আমরা কিছু বললে পরে আমাদের বিভিন্নভাবে বিপদে ফেলা হতে পারে।এবিষয়ে সাতক্ষীরা এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী নারায়ন চন্দ্র সরকারের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন বিষয়টি আমি দেখব।