ঢাকা ০৯:৪২ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
কোটা সংস্কারের পক্ষে সরকার নীতিগতভাবে একমত: আইনমন্ত্রী ঘোষণার পর মানছেন না কোটা আন্দোলনকারীরা আমার ভাইদের ফেরত দেওয়া হোক আগে রায়পুরে বালু উত্তোলনে ভাঙন আতঙ্ক সরকারের কাছ থেকে দৃশ্যমান পদক্ষেপ ও সমাধানের পথ তৈরির প্রত্যাশা করে বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন শনির আখড়া-যাত্রাবাড়ী সড়কে চলছে সংঘর্ষ, যান চলালাচল অচল করে দিচ্ছেন ফেসবুক লাইভে এসে পদত্যাগের ঘোষণা ছাত্রলীগ নেতার উত্তরায় গুলিতে নর্দান বিশ্ববিদ্যালয়ের ২ শিক্ষার্থী নিহত কমপ্লিট শাটডাউন ঢাকার সঙ্গে সব জেলার যোগাযোগ বন্ধ, টার্মিনাল থেকে ছাড়ছে না কোনো বাস ফুলবাড়ীর দৌলতপুর ইউনিয়নে গরু চুরির হিড়িক দেশবাসীর প্রতি মির্জা ফখরুলের আহ্বান, শিক্ষার্থীদের পাশে দাঁড়ান অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঢাবি, ৬টার মধ্যে হল ছাড়ার নির্দেশ

গত বছর ধর্ষণসহ নির্যাতনের শিকার ৩৪৪০ নারী ও শিশু মহিলা পরিষদের তথ্য

সময়ের কন্ঠ ডেস্ক :
  • আপডেট টাইম : ০৬:৩২:৩৪ পূর্বাহ্ণ, শনিবার, ২ জানুয়ারি ২০২১
  • / ২৫২ ৫০০.০০০ বার পাঠক

সময়ের কন্ঠ রিপোর্ট।।

বিগত ২০২০ সালে নারী ও শিশু নির্যাতন উদ্বেগজনকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। ১২ মাসে শুধু গণমাধ্যমে প্রকাশিত ঘটনার তথ্য অনুয়ায়ী, ১ হাজার ৩৪৬ ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। সেখানে মোট ৩ হাজার ৪৪০ জন নারী ও কন্যাশিশু ধর্ষণসহ বিভিন্নভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশে মহিলা পরিষদ। সংগঠনের লিগ্যাল এইড উপপরিষদে সংরক্ষিত ১৩টি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের ভিত্তিতে সংগঠনটি এই তথ্য জানায়।

পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ অনুসারে ২০২০ সালের মোট ৩৪৪০ জন নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতনের শিকার হয়েছে। তার মধ্যে ১০৭৪ জন ধর্ষণের শিকার হন। ২৩৬ জন গণধর্ষণে ও ৩৩ জনকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়। তিন জন ধর্ষণের কারণে আত্মহত্যাসহ মোট ১৩৪৬ জন নারী ও কন্যাশিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এ ছাড়া ২০০ জনকে ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে। শ্লীলতাহানির শিকার হয়েছে ৪৩ জন। ৭৪ জন যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছে। অ্যাসিড দগ্ধের শিকার হয়েছে ২৫ জন। তার মধ্যে অ্যাসিড দগ্ধের কারণে মৃত্যু হয় চার জনের। অগ্নিদগ্ধের শিকার হয়েছে ২৯ জন, তারমধ্যে ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে।

উত্ত্যক্তকরণের শিকার হয়েছে ৫৯ জন। অপহূত হয়েছে ১২৫ জন। পাচারের শিকার হয়েছে ১০১ জন, তার মধ্যে পতিতালয়ে বিক্রি করা হয় চার জনকে। বিভিন্ন কারণে ৪৬৮ জন নারী ও শিশুকে হত্যা করা হয়েছে। এ ছাড়াও ৩৫ জনকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। যৌতুকের কারণে নির্যাতিত হয়েছে ১১৭ জন। তার মধ্যে ৫২ জন যৌতুকের কারণে হত্যা করেছে। শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়েছে ১৫৯ জন। ২৫২ জন নারী ও কন্যাশিশুর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। বাল্যবিয়ে সংক্রান্ত ঘটনা ঘটেছে ১১৭টি, তার মধ্যে বাল্যবিয়ের চেষ্টা হয়েছে ৩৩টি ঘটনা। সাইবার ক্রাইম অপরাধের শিকার হয়েছে ৪৩ জন।

আরো খবর.......

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য

গত বছর ধর্ষণসহ নির্যাতনের শিকার ৩৪৪০ নারী ও শিশু মহিলা পরিষদের তথ্য

আপডেট টাইম : ০৬:৩২:৩৪ পূর্বাহ্ণ, শনিবার, ২ জানুয়ারি ২০২১

সময়ের কন্ঠ রিপোর্ট।।

বিগত ২০২০ সালে নারী ও শিশু নির্যাতন উদ্বেগজনকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। ১২ মাসে শুধু গণমাধ্যমে প্রকাশিত ঘটনার তথ্য অনুয়ায়ী, ১ হাজার ৩৪৬ ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। সেখানে মোট ৩ হাজার ৪৪০ জন নারী ও কন্যাশিশু ধর্ষণসহ বিভিন্নভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশে মহিলা পরিষদ। সংগঠনের লিগ্যাল এইড উপপরিষদে সংরক্ষিত ১৩টি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের ভিত্তিতে সংগঠনটি এই তথ্য জানায়।

পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ অনুসারে ২০২০ সালের মোট ৩৪৪০ জন নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতনের শিকার হয়েছে। তার মধ্যে ১০৭৪ জন ধর্ষণের শিকার হন। ২৩৬ জন গণধর্ষণে ও ৩৩ জনকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়। তিন জন ধর্ষণের কারণে আত্মহত্যাসহ মোট ১৩৪৬ জন নারী ও কন্যাশিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এ ছাড়া ২০০ জনকে ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে। শ্লীলতাহানির শিকার হয়েছে ৪৩ জন। ৭৪ জন যৌন নিপীড়নের শিকার হয়েছে। অ্যাসিড দগ্ধের শিকার হয়েছে ২৫ জন। তার মধ্যে অ্যাসিড দগ্ধের কারণে মৃত্যু হয় চার জনের। অগ্নিদগ্ধের শিকার হয়েছে ২৯ জন, তারমধ্যে ১৩ জনের মৃত্যু হয়েছে।

উত্ত্যক্তকরণের শিকার হয়েছে ৫৯ জন। অপহূত হয়েছে ১২৫ জন। পাচারের শিকার হয়েছে ১০১ জন, তার মধ্যে পতিতালয়ে বিক্রি করা হয় চার জনকে। বিভিন্ন কারণে ৪৬৮ জন নারী ও শিশুকে হত্যা করা হয়েছে। এ ছাড়াও ৩৫ জনকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে। যৌতুকের কারণে নির্যাতিত হয়েছে ১১৭ জন। তার মধ্যে ৫২ জন যৌতুকের কারণে হত্যা করেছে। শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়েছে ১৫৯ জন। ২৫২ জন নারী ও কন্যাশিশুর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। বাল্যবিয়ে সংক্রান্ত ঘটনা ঘটেছে ১১৭টি, তার মধ্যে বাল্যবিয়ের চেষ্টা হয়েছে ৩৩টি ঘটনা। সাইবার ক্রাইম অপরাধের শিকার হয়েছে ৪৩ জন।