ঢাকা ০৫:০২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩
সংবাদ শিরোনাম ::
আদিবাসীদের সাথে মত বিনিময় করেন গাইবান্ধা জেলা পুলিশ সুপার কাশিমপুরে প্রতিপক্ষ কে ফাঁসাতে নিজেদের ঘর নিজেরাই ভাংচুর হোমনা ইসলামিয়া ডেন্টাল কেয়ারে ইন্ট্রাওয়াল ক্যামেরা উদ্বোধন করা হয়েছে পীরগঞ্জে সাংবাদিকতয় অবদান রাখায় সম্মাননা পেলেন বিপ্লব সিলেটের স্কলার্সহোম এবারের এইচএসসি ফলাফলে অতীতের সব রেকর্ডের শীর্ষে নড়াইলে বাংলাদেশ পুলিশের কনস্টেবল পদে নিয়োগ পরীক্ষার ৩য় দিনের কার্যক্রম সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন কাশিমপুরে ১ কেজি গাঁজা সহ ৪ মাদক কারবারি গ্রেফতার মামলার ফাঁদে বন্দর ত্যাগ করতে পারছে না কয়লা নিয়ে আসা দুটি বিদেশি জাহাজ গোবিন্দগঞ্জে ইমামদের করণীয় ও ভূমিকা শীর্ষক প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুুষ্ঠিত শেরপুরে যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে হত্যা মামলায় যুবকের মৃত্যুদণ্ড

বিসিএসআইআর বিজ্ঞানীদের মাঝে বঙ্গবন্ধু রচিত গ্রন্থ বিতরণ মেয়র তাপসের

সময়ের কন্ঠ রিপোর্ট।র।।
বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদের (বিসিএসআইআর) বিজ্ঞানী, কর্মকর্তা কর্মচারীদের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর রচিত গ্রন্থ বিতরণ করা হয়েছে। মঙ্গলবার ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস এক অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’, ‘কারাগারের রোজনামচা’ ও ‘আমার দেখা নয়াচীন’ গ্রন্থ বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, নিজেকে জানতে হলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জানতে হবে। এজন্য তাঁর রচিত গ্রন্থ পড়তে হবে। দেশের বিজ্ঞানীরা নানা ধরনের গবেষণা কার্যক্রমে ব্যস্ত থাকেন। কিন্তু দেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য সম্পর্কে জানতে হলে বিজ্ঞানীদেরও এই গ্রন্থ তিনটি পড়তে হবে। আজ যারা এখানে আসতে পেরেছেন, বিজ্ঞানী হিসেবে কাজ করছেন তার পেছনেও ইতিহাস রয়েছে। দেশ স্বাধীন না হলে আজ কেউ বিজ্ঞানী হিসেবে নিজেকে পরিচয় দিতে পারতো না।

মঙ্গলবার দুপুরে বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদের আইএফএসটি মিলনায়নে বঙ্গবন্ধুর রচিত গ্রন্থ বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন বিসিএসআইআরের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মো. আফতাব আলী শেখ। প্রধান অতিথ হিসেবে ব্যারিস্টর শেখ ফজলে নূর তাপস আরও বলেন, দেশের দীর্ঘ সংগ্রামের পথপরিক্রমায় সশস্ত্র যুদ্ধের মাধ্যমে আজ আমরা স্বাধীন। কিন্তু এই স্বাধীনতা একদিনে আসেনি। এর পেছনে রয়েছে দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রামের ইতিহাস। ৪৭ সালে দেশভাগের পরই পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠির মনোভাব স্পষ্ট হতে থাকে। সেদিন যদি পাকিস্তানী শাসকদের মনোভাব সম্পর্কে কোন উপলব্ধি না হতো, ভুল না ভাঙ্গতো, তাদের মনোভাব বুঝতে না পারতাম তাহলে আজ স্বাধীনতা পেতাম না। এর পেছনে রয়েছে ৫২’র ভাষা আন্দোলন ’৫৪ নির্বাচন ’৬৬ সালে ছয়দফা আন্দোলন ও ’৬৯ সালে গণভূত্থান। কোন আন্দোলনই স্বাধীনতার জন্য কম গুরুত্বপুর্ণ ছিল না। স্বাধীনতা হঠাৎ কারো ঘোষণার মাধ্যমে আসেনি। দীর্ঘ এই সংগ্রামের ফলেই স্বাধীনতা এসেছে। এ কারণে ১৬ ডিসেম্বর এবং ২৬ মার্চ জাতীয় জীবনে খুব গুরুত্বপুর্ণ দুটি দিন।

তিনি বলেন, এই দীর্ঘ সময়ে আন্দোলন সংগ্রামের নেতৃত্বের কারণে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ১৪ বছরই কারাগারে কাটাতে হয়েছে। কারাগার থেকেই আন্দোল সংগ্রাম এবং জাতির মুক্তির নানা নির্দেশনা দিয়েছেন। ৭ মার্চের ভাষণে দেশের স্বাধীনতার বিষয়ে সব কিছুই স্পষ্ট করেছেন। ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে গ্রেফতার হওয়ার আগেই স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছেন। বলেছেন আজ থেকে বাংলাদেশ স্বাধীন। একটি সংগ্রাম ও তার পথপরিক্রমা ছাড়া দেশের এত বড় অর্জন কোনদিন সম্ভব হতো না। এ কারণে সবাইকে বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে জানতে হবে।

অনুষ্ঠানে বিসিএসআইআরের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আফতাব আলী শেখ বলেন, বঙ্গবন্ধু নেতৃত্বে দেশ স্বাধীন হয়েছিল বলেই আজ আমরা এত বড় পদে আসতে পেরেছি। কিন্তু স্বাধীনতা ঘোষণা নিয়ে একটি গোষ্ঠি জাতিকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে যা অবান্তর। আজ শেখ হানিসার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে চলেছে। এ সময় তিনি সবাইকে বঙ্গবন্ধু রচিত গ্রন্থ তিনটি পড়ার আহ্বান জানান। বলেন বিসিএসআইআরের সব বিজ্ঞানী ও কর্মকর্তা কর্মচারীদের মাঝে এই বই বিতণ করা হবে।

আরো খবর.......
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

আদিবাসীদের সাথে মত বিনিময় করেন গাইবান্ধা জেলা পুলিশ সুপার

বিসিএসআইআর বিজ্ঞানীদের মাঝে বঙ্গবন্ধু রচিত গ্রন্থ বিতরণ মেয়র তাপসের

আপডেট টাইম : ১১:৩০:০৯ পূর্বাহ্ণ, মঙ্গলবার, ২৯ ডিসেম্বর ২০২০

সময়ের কন্ঠ রিপোর্ট।র।।
বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদের (বিসিএসআইআর) বিজ্ঞানী, কর্মকর্তা কর্মচারীদের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর রচিত গ্রন্থ বিতরণ করা হয়েছে। মঙ্গলবার ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস এক অনুষ্ঠানে বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’, ‘কারাগারের রোজনামচা’ ও ‘আমার দেখা নয়াচীন’ গ্রন্থ বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, নিজেকে জানতে হলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জানতে হবে। এজন্য তাঁর রচিত গ্রন্থ পড়তে হবে। দেশের বিজ্ঞানীরা নানা ধরনের গবেষণা কার্যক্রমে ব্যস্ত থাকেন। কিন্তু দেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য সম্পর্কে জানতে হলে বিজ্ঞানীদেরও এই গ্রন্থ তিনটি পড়তে হবে। আজ যারা এখানে আসতে পেরেছেন, বিজ্ঞানী হিসেবে কাজ করছেন তার পেছনেও ইতিহাস রয়েছে। দেশ স্বাধীন না হলে আজ কেউ বিজ্ঞানী হিসেবে নিজেকে পরিচয় দিতে পারতো না।

মঙ্গলবার দুপুরে বাংলাদেশ বিজ্ঞান ও শিল্প গবেষণা পরিষদের আইএফএসটি মিলনায়নে বঙ্গবন্ধুর রচিত গ্রন্থ বিতরণ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন বিসিএসআইআরের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মো. আফতাব আলী শেখ। প্রধান অতিথ হিসেবে ব্যারিস্টর শেখ ফজলে নূর তাপস আরও বলেন, দেশের দীর্ঘ সংগ্রামের পথপরিক্রমায় সশস্ত্র যুদ্ধের মাধ্যমে আজ আমরা স্বাধীন। কিন্তু এই স্বাধীনতা একদিনে আসেনি। এর পেছনে রয়েছে দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রামের ইতিহাস। ৪৭ সালে দেশভাগের পরই পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠির মনোভাব স্পষ্ট হতে থাকে। সেদিন যদি পাকিস্তানী শাসকদের মনোভাব সম্পর্কে কোন উপলব্ধি না হতো, ভুল না ভাঙ্গতো, তাদের মনোভাব বুঝতে না পারতাম তাহলে আজ স্বাধীনতা পেতাম না। এর পেছনে রয়েছে ৫২’র ভাষা আন্দোলন ’৫৪ নির্বাচন ’৬৬ সালে ছয়দফা আন্দোলন ও ’৬৯ সালে গণভূত্থান। কোন আন্দোলনই স্বাধীনতার জন্য কম গুরুত্বপুর্ণ ছিল না। স্বাধীনতা হঠাৎ কারো ঘোষণার মাধ্যমে আসেনি। দীর্ঘ এই সংগ্রামের ফলেই স্বাধীনতা এসেছে। এ কারণে ১৬ ডিসেম্বর এবং ২৬ মার্চ জাতীয় জীবনে খুব গুরুত্বপুর্ণ দুটি দিন।

তিনি বলেন, এই দীর্ঘ সময়ে আন্দোলন সংগ্রামের নেতৃত্বের কারণে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ১৪ বছরই কারাগারে কাটাতে হয়েছে। কারাগার থেকেই আন্দোল সংগ্রাম এবং জাতির মুক্তির নানা নির্দেশনা দিয়েছেন। ৭ মার্চের ভাষণে দেশের স্বাধীনতার বিষয়ে সব কিছুই স্পষ্ট করেছেন। ২৬ মার্চের প্রথম প্রহরে গ্রেফতার হওয়ার আগেই স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছেন। বলেছেন আজ থেকে বাংলাদেশ স্বাধীন। একটি সংগ্রাম ও তার পথপরিক্রমা ছাড়া দেশের এত বড় অর্জন কোনদিন সম্ভব হতো না। এ কারণে সবাইকে বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে জানতে হবে।

অনুষ্ঠানে বিসিএসআইআরের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. আফতাব আলী শেখ বলেন, বঙ্গবন্ধু নেতৃত্বে দেশ স্বাধীন হয়েছিল বলেই আজ আমরা এত বড় পদে আসতে পেরেছি। কিন্তু স্বাধীনতা ঘোষণা নিয়ে একটি গোষ্ঠি জাতিকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে যা অবান্তর। আজ শেখ হানিসার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে চলেছে। এ সময় তিনি সবাইকে বঙ্গবন্ধু রচিত গ্রন্থ তিনটি পড়ার আহ্বান জানান। বলেন বিসিএসআইআরের সব বিজ্ঞানী ও কর্মকর্তা কর্মচারীদের মাঝে এই বই বিতণ করা হবে।