ঢাকা ০৭:০৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৪ অগাস্ট ২০২২
সংবাদ শিরোনাম ::
মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে ভাড়ায় পরিচালিত হচ্ছে বেসরকারি হাসপাতাল ন‌ওগাঁর আত্রাইয়ে এক মাদক ব্যবসায়ী সহ আটক চার গাজীপুর মহানগর পুলিশ কর্তৃক ২৪ ঘন্টার উদ্ধার অভিযান নারায়ণগঞ্জের তিতাস গ্যাস খেকো রফিক এর সম্পদের পাহাড় (পর্ব-১) ভাইরাল হওয়া ছাত্রকে বিয়ে করে শিক্ষিকা অবশেষে আত্মহত্যা হবিগঞ্জের চুনারুঘাটে চা শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে অনির্দিষ্টকালের কর্ম বিরতি পাংশায় সড়ক নির্মাণে নিম্ন মানের সামগ্রী ও অনিয়মের অভিযোগ হবিগঞ্জের মাধবপুরে সুমন হত্যাকান্ডের মূল হোতাসহ গ্রেফতার ৩ বাঘায় শুরু হতে যাচ্ছে নদী ড্রেজিং এর কাজ, নতুন স্বপ্নে উজ্জীবিত হচ্ছে চরাঞ্চলের মানুষ হবিগঞ্জের লাখাই সড়কে নিয়ন্ত্রণ হাড়িয়ে চালক নিহত গুরুতর আহত ( আশংকা) ৫

আজ ভার্চুয়ালি পালিত হচ্ছে ঢাকা বিশ্বদ্যালয়ের শতবর্ষপূর্তি দিবস

সময়ের কন্ঠ রিপোর্ট।।

আজ পহেলা জুলাই। দেশের প্রাচীনতম, শীর্ষ বিদ্যাপীঠ, এবং প্রাচ্যের অক্সফোর্ড’ নামে খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শতবর্ষে পা রাখল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষপূর্তি দিবস। আজ। দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের কাল সাক্ষী এ প্রতিষ্ঠানটি।

শতবর্ষপূর্তি উপলক্ষে দেয়া শুভেচ্ছা বাণীতে উপাচার্য বলেন, ‘আজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস। শিক্ষা ও সংস্কৃতির প্রাণকেন্দ্র এবং জাতির আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতীক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার শতবর্ষপূর্তি হচ্ছে আজ। জ্ঞান-আহরণ ও বিতরণের গৌরবগাঁথা নিয়ে শতবর্ষ পাড়ি দিয়েছে আমাদের প্রাণপ্রিয় এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

দিবসটি উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারী, প্রাক্তন শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও শুভানুধ্যায়ীসহ সবাইকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

নানাবিধ আয়োজনের মাধ্যমে শতবর্ষের মূল অনুষ্ঠান আগামী ১ নবেম্বর বর্ণাঢ্য ও জাঁকজমকপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হবে। রাষ্ট্রপতি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর মো. আবদুল হামিদ প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ অনুষ্ঠান উদ্বোধন করবেন বলে আশা করছে কর্তৃপক্ষ।

কোভিড-১৯ মহামারী পরিস্থিতিকে বিবেচনায় রেখে মূল অনুষ্ঠানের অগ্রবর্তী অনুষ্ঠান হিসেবে আজ বৃহস্পতিবার, ১ জুলাই সীমিত পরিসরে প্রতীকী কর্মসূচির মাধ্যমে বিশেষ এ দিবসটি উদযাপন করা হবে। এ উপলক্ষে সংক্ষিপ্ত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- সকাল সাড়ে ১০টায় নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবন প্রাঙ্গণে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে জাতীয় পতাকা, বিশ্ববিদ্যালয় পতাকা উত্তোলন ও বেলুন উড়ানো। বেলা ১১টায় অধ্যাপক আবদুল মতিন চৌধুরী ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনলাইন ভার্চুয়াল মিটিং প্ল্যাটফর্ম জুমের মাধ্যমে আলোচনা সভা।

আলোচনা সভায় জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম সংযুক্ত হয়ে ‘শতবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়: আন্দোলন ও সংগ্রাম’ শীর্ষক মূল বক্তব্য রাখবেন। এছাড়া, এ অনলাইন অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন), উপ-উপাচার্য (শিক্ষা), কোষাধ্যক্ষ, প্রাক্তন দু’জন উপাচার্য, দু’জন ডিন, একজন প্রভোস্ট, একজন রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট, ঢাবি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এবং ঢাবি শিক্ষক সমিতিসহ অন্যান্য সমিতির নেতাকর্মীরা সংযুক্ত হবেন।

দিবসটি উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, করোনার উদ্ভূত পরিস্থিতিতে লোকসমাবেশ এড়িয়ে প্রাণপ্রিয় ছাত্র-ছাত্রীবিহীন স্বল্পপরিসরে প্রতিষ্ঠা বার্ষিক আয়োজনে, নিঃসন্দেহে, আনন্দ, প্রশান্তি ও স্বস্তির ঘাটতি অনস্বীকার্য। তবে মুজিববর্ষের এ অলোকসামান্য কালপর্বে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া এবারের বিশ্ববিদ্যালয় দিবসের তাৎপর্য অত্যন্ত গভীর ও ব্যাপক। প্রকৃতপক্ষে, বঙ্গবন্ধু এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ নামক আমাদের প্রাণপ্রিয় মাতৃভূমির দুই অন্তহীন প্রেরণা-উৎস।

উল্লেখ্য, ১৯২১ সালের ১ জুলাই রমনা এলাকায় প্রায় ৬০০ একর জমির ওপর পূর্ববঙ্গ এবং আসাম প্রদেশ সরকারের পরিত্যক্ত ভবনগুলো ও ঢাকা কলেজের (বর্তমান কার্জন হল) ভবনগুলোর সমন্বয়ে গড়ে ওঠে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। তিনটি অনুষদ ও ১২টি বিভাগ নিয়ে একটি আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে যাত্রা শুরু হয়। কলা, বিজ্ঞান ও আইন অনুষদের অন্তর্ভুক্ত বিভাগগুলো ছিল- সংস্কৃত ও বাংলা, ইংরেজি, শিক্ষা, ইতিহাস, আরবি, ইসলামিক স্টাডিজ, ফারসি ও উর্দু, দর্শন, অর্থনীতি ও রাজনীতি, পদার্থবিদ্যা, রসায়ন, গণিত এবং আইন।

বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৩টি অনুষদ, ১৩টি অনুষদ, ৮৪টি বিভাগ, ১৩টি ইনস্টিটিউট, ১৯৮৬ জন শিক্ষক, প্রায় ৪৭ হাজার শিক্ষার্থী এবং ১৯টি আবাসিক হল ও ৪টি হোস্টেল নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে । এছাড়াও রয়েছে দেড় শতাধিক বিভিন্ন একাডেমিক ঘরানার অধিভুক্ত এবং উপাদানকল্প শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা প্রায় ৪৬ হাজার। পাঠদান ও গবেষণায় নিয়োজিত রয়েছেন ২ সহস্রাধিক শিক্ষক ও গবেষক।

উচ্চশিক্ষার পাশাপাশি দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনেও গৌরবময় ভূমিকা রয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে উনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানে সক্রিয় ভূমিকা ছিল বিশ্ববিদ্যালয়টির। ১৯৭১ সালে মহান স্বাধীনতাযু্দ্ধেও সক্রিয় অংশগ্রহণ ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের। নব্বইয়ে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনেও নেতৃত্বে ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

আরো খবর.......
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্সে ভাড়ায় পরিচালিত হচ্ছে বেসরকারি হাসপাতাল

আজ ভার্চুয়ালি পালিত হচ্ছে ঢাকা বিশ্বদ্যালয়ের শতবর্ষপূর্তি দিবস

আপডেট টাইম : ১০:০৮:০১ পূর্বাহ্ণ, বৃহস্পতিবার, ১ জুলাই ২০২১

সময়ের কন্ঠ রিপোর্ট।।

আজ পহেলা জুলাই। দেশের প্রাচীনতম, শীর্ষ বিদ্যাপীঠ, এবং প্রাচ্যের অক্সফোর্ড’ নামে খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শতবর্ষে পা রাখল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষপূর্তি দিবস। আজ। দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের কাল সাক্ষী এ প্রতিষ্ঠানটি।

শতবর্ষপূর্তি উপলক্ষে দেয়া শুভেচ্ছা বাণীতে উপাচার্য বলেন, ‘আজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস। শিক্ষা ও সংস্কৃতির প্রাণকেন্দ্র এবং জাতির আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতীক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার শতবর্ষপূর্তি হচ্ছে আজ। জ্ঞান-আহরণ ও বিতরণের গৌরবগাঁথা নিয়ে শতবর্ষ পাড়ি দিয়েছে আমাদের প্রাণপ্রিয় এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

দিবসটি উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারী, প্রাক্তন শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও শুভানুধ্যায়ীসহ সবাইকে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

নানাবিধ আয়োজনের মাধ্যমে শতবর্ষের মূল অনুষ্ঠান আগামী ১ নবেম্বর বর্ণাঢ্য ও জাঁকজমকপূর্ণভাবে অনুষ্ঠিত হবে। রাষ্ট্রপতি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চ্যান্সেলর মো. আবদুল হামিদ প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ অনুষ্ঠান উদ্বোধন করবেন বলে আশা করছে কর্তৃপক্ষ।

কোভিড-১৯ মহামারী পরিস্থিতিকে বিবেচনায় রেখে মূল অনুষ্ঠানের অগ্রবর্তী অনুষ্ঠান হিসেবে আজ বৃহস্পতিবার, ১ জুলাই সীমিত পরিসরে প্রতীকী কর্মসূচির মাধ্যমে বিশেষ এ দিবসটি উদযাপন করা হবে। এ উপলক্ষে সংক্ষিপ্ত কর্মসূচি গ্রহণ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- সকাল সাড়ে ১০টায় নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবন প্রাঙ্গণে জাতীয় সংগীত পরিবেশনের মাধ্যমে জাতীয় পতাকা, বিশ্ববিদ্যালয় পতাকা উত্তোলন ও বেলুন উড়ানো। বেলা ১১টায় অধ্যাপক আবদুল মতিন চৌধুরী ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনলাইন ভার্চুয়াল মিটিং প্ল্যাটফর্ম জুমের মাধ্যমে আলোচনা সভা।

আলোচনা সভায় জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম সংযুক্ত হয়ে ‘শতবর্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়: আন্দোলন ও সংগ্রাম’ শীর্ষক মূল বক্তব্য রাখবেন। এছাড়া, এ অনলাইন অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (প্রশাসন), উপ-উপাচার্য (শিক্ষা), কোষাধ্যক্ষ, প্রাক্তন দু’জন উপাচার্য, দু’জন ডিন, একজন প্রভোস্ট, একজন রেজিস্টার্ড গ্র্যাজুয়েট, ঢাবি অ্যালামনাই অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এবং ঢাবি শিক্ষক সমিতিসহ অন্যান্য সমিতির নেতাকর্মীরা সংযুক্ত হবেন।

দিবসটি উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, করোনার উদ্ভূত পরিস্থিতিতে লোকসমাবেশ এড়িয়ে প্রাণপ্রিয় ছাত্র-ছাত্রীবিহীন স্বল্পপরিসরে প্রতিষ্ঠা বার্ষিক আয়োজনে, নিঃসন্দেহে, আনন্দ, প্রশান্তি ও স্বস্তির ঘাটতি অনস্বীকার্য। তবে মুজিববর্ষের এ অলোকসামান্য কালপর্বে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া এবারের বিশ্ববিদ্যালয় দিবসের তাৎপর্য অত্যন্ত গভীর ও ব্যাপক। প্রকৃতপক্ষে, বঙ্গবন্ধু এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশ নামক আমাদের প্রাণপ্রিয় মাতৃভূমির দুই অন্তহীন প্রেরণা-উৎস।

উল্লেখ্য, ১৯২১ সালের ১ জুলাই রমনা এলাকায় প্রায় ৬০০ একর জমির ওপর পূর্ববঙ্গ এবং আসাম প্রদেশ সরকারের পরিত্যক্ত ভবনগুলো ও ঢাকা কলেজের (বর্তমান কার্জন হল) ভবনগুলোর সমন্বয়ে গড়ে ওঠে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। তিনটি অনুষদ ও ১২টি বিভাগ নিয়ে একটি আবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে যাত্রা শুরু হয়। কলা, বিজ্ঞান ও আইন অনুষদের অন্তর্ভুক্ত বিভাগগুলো ছিল- সংস্কৃত ও বাংলা, ইংরেজি, শিক্ষা, ইতিহাস, আরবি, ইসলামিক স্টাডিজ, ফারসি ও উর্দু, দর্শন, অর্থনীতি ও রাজনীতি, পদার্থবিদ্যা, রসায়ন, গণিত এবং আইন।

বর্তমানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৩টি অনুষদ, ১৩টি অনুষদ, ৮৪টি বিভাগ, ১৩টি ইনস্টিটিউট, ১৯৮৬ জন শিক্ষক, প্রায় ৪৭ হাজার শিক্ষার্থী এবং ১৯টি আবাসিক হল ও ৪টি হোস্টেল নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে । এছাড়াও রয়েছে দেড় শতাধিক বিভিন্ন একাডেমিক ঘরানার অধিভুক্ত এবং উপাদানকল্প শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এ বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা প্রায় ৪৬ হাজার। পাঠদান ও গবেষণায় নিয়োজিত রয়েছেন ২ সহস্রাধিক শিক্ষক ও গবেষক।

উচ্চশিক্ষার পাশাপাশি দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনেও গৌরবময় ভূমিকা রয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে উনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানে সক্রিয় ভূমিকা ছিল বিশ্ববিদ্যালয়টির। ১৯৭১ সালে মহান স্বাধীনতাযু্দ্ধেও সক্রিয় অংশগ্রহণ ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের। নব্বইয়ে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনেও নেতৃত্বে ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।