ঢাকা ০৬:০১ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪
সংবাদ শিরোনাম ::
মনোহরদীতে নানা আয়োজনে বর্ষবরণ উৎসব পালিত হয়েছে ঠাকুরগাঁও। রুহিয়া ঐতিহ্যবাহী বৈশাখী মেলা করোনাভাইরাস এর কারণে বন্ধ থাকায় আবারও পাঁচ বছর পর ১০ দিনব্যাপী বৈশাখী মেলার আয়োজন করা হয়েছে রানীশংকৈলে নানা আয়োজনে বাংলা নববর্ষ উদযাপিত রায়পুরে পহেলা বৈশাখে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা নবাবগঞ্জে বাংলা নববর্ষ ১৪৩১ পালিত ঘাটাইলে ব্যবসায়ীর হাত-পায়ের রগ কেটে সর্বস্ব লুট টঙ্গীতে চাঁদা না পেয়ে ব্যবসায়ীর উপর হামলা: তদন্তে গিয়ে সিসিটিভি আবদার করলো পুলিশ! আনোয়ারা বিএনপির অস্থায়ী কার্যালয়ে ঈদ পূর্ণমিলনী ও মত বিনিময় সভা মোংলায় নিরুদ্দেশ মোতালেব জমাদ্দারের নাতিদের আকিকা অনুষ্ঠানে হাজারও লোকের ভিড় বহিষ্কার মোঃ রবিউল ইসলাম রবি কে দৈনিক সময়ের কন্ঠ পত্রিকা ও অনলাইন থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে

চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে  মহানগর আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত।

মোঃ শহিদুল ইসলাম ( শহিদ)

বিভাগীয় ব্যুরো চিফ।।

চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে  মহানগর আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি বলেন।

সারাদেশে আওয়ামী লীগের কিছুটা হলেও সাংগঠনিক দুর্বলতা চোখে পড়েছে। টানা ১২ বছর ক্ষমতায় থাকার কারণে আমাদের অনেকের মাঝে আয়েশি মনোভাব চলে এসেছে আমার কাছে সেটাই

মনে হচ্ছে।

তিনি উচ্চকণ্ঠে বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা যতদিন আছে, ততদিন আমরা ক্ষমতায় আছি বা থাকব ইনশাআল্লাহ । আসলে ক্ষমতায় থেকে সংগঠন দুর্বল বা সবল আছে তা,বুঝা যাচ্ছে না। যার কারণে সংগঠনের দিকে সবার নজর একটু কম। যার ফলে অনেক জেলায় দেখেছি ১৫ ও ২০ বছর হয়ে গেছে, কমিটির কোনও পরিবর্তন নেই  সংগঠনের যে কার্যপদ্ধতি সেটাও কোন রকমে চলেছে সেটাই দেখাযায়।

সোমবার (২১জুন),২০২১, দুপুর ২ টায় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভায় তিনি এ সকল মন্তব্য করে থাকেন।

মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, প্রতি তিন বছর পর পর সম্মেলনের মাধ্যমে সংগঠনকে ঢেলে নতুন করে সাজানোর মূল লক্ষ্য হচ্ছে সংগঠনকে শক্তিশালী করা। যারা সঠিক ভাবে কর্মঠ ও যোগ্য তাদেরকে নেতৃত্বে নিয়ে আসা এবং যারা দুর্বল বা কাজ করতে যাদের আগ্রহ নেই, তাদের ধীরে ধীরে পিছনের কাতারে নিয়ে যাওয়া এটাই বাস্তবতা।

সম্মেলন যদি না হয় তাহলে যোগ্য নেতাদের মূল্যায়ন হওয়ার সুযোগ থাকে না। চট্টগ্রামে বহু নেতা আছেন যে তারা কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব দেওয়ার মতো, কিন্তু আপনাদের সাংগঠনিক দুর্বলতা বা নিষ্ক্রিয়তার কারণে মূল্যায়ন হচ্ছে না তাদের। প্রতি তিন বছর পর পর সম্মেলন হলে যোগ্য নেতারা নেতৃত্ব চলে আসবে বলে আশা করি।

তিনি আরও বলেন, আমরা ডিসেম্বরে জেলা পর্যায়ের সম্মেলনের উদ্দেশ্য নিয়ে মাঠে নেমেছি। সে লক্ষ্য নিয়ে প্রতিটি ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, উপজেলা ও জেলা সম্মেলন করবো। আমরা মহানগরে প্রতিটি ইউনিট, ওয়ার্ড ও থানার সম্মেলন আগামি ডিসেম্বরের মধ্যে করতে চাই যদি আপনারা পাশে থাকেন ।

সম্মেলনের মাধ্যমে আপনাদের মধ্যে অনেক নেতা আছেন, যারা যথাযথ মূল্যায়ন বা পদোন্নতি এত বছরে পায়নি তারা আশা করি যথাযথ মূল্যায়ন পাবেন। সম্মেলনের মাধ্যমে সংগঠনে গতিশীলতা আসবে। মূল্যায়ন হওয়ার সুযোগ আসবে। আমরা কাউকে চাপিয়ে দিতে চাই না। আমরা একজনে অপরজনের সহকর্মী ও সহযোগী হিসেবে কাজ করতে চাই আমাদের ভিতরে কোন দ্বিধা দ্বন্দ্ব নেই। আপনাদের সহযোগীতা দিতে এসেছি। সহায়তা নিয়ে সঠিকভাবে কাজ করলে চট্টগ্রামে সংগঠনেরই লাভ হবে আশা করি।

মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, চট্টগ্রামে রাজনীতির একটি ইতিহাস আছে। চট্টগ্রাম বন্দর থেকে মহিউদ্দিন চৌধুরী আন্দোলন করে সারাদেশ অচল করে দিয়েছিলেন। চট্টগ্রাম থেকে মহিউদ্দিন চৌধুরী দেখিয়েছিলেন আন্দোলন কিভাবে করতে হয় ও ন্যায্য দাবি কিভাবে আদায় করতে হয় এগুলো সকলের মনে রাখা উচিত নয় কি।

চট্টগ্রামের আন্দোলন সারাদেশে আওয়ামী লীগ নেতাদের অনুপ্রেরণা যুগিয়েছে। যার কারণে চট্টগ্রামে সাংগঠনিক দুর্বলতা আসাটা দুঃখজনক। আমরা চাই, তৃণমূল থেকে সাংগঠনিক কোথায় কি দুর্বলতা আছে- সেটা দূর করে কিভাবে সম্মেলন করা যায়, কোথায় কোন সমস্যা আছে, সেটা এখানে সমাধান করতে চাই। সংগঠনকে ঢেলে নতুনভাবে সাজানোর জন্য সবাই আন্তরিকভাবে কাজ করবেন এটাই আশা করি।

এসময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হুইপ আবু সাঈদ মাহমুদ আল স্বপন, মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমদ এমপি, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ, জ, ম, নাছির উদ্দীন প্রমুখ।

আরো খবর.......

জনপ্রিয় সংবাদ

মনোহরদীতে নানা আয়োজনে বর্ষবরণ উৎসব পালিত হয়েছে

চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে  মহানগর আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত।

আপডেট টাইম : ০৪:০২:২৬ অপরাহ্ণ, সোমবার, ২১ জুন ২০২১

মোঃ শহিদুল ইসলাম ( শহিদ)

বিভাগীয় ব্যুরো চিফ।।

চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে  মহানগর আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভায় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি বলেন।

সারাদেশে আওয়ামী লীগের কিছুটা হলেও সাংগঠনিক দুর্বলতা চোখে পড়েছে। টানা ১২ বছর ক্ষমতায় থাকার কারণে আমাদের অনেকের মাঝে আয়েশি মনোভাব চলে এসেছে আমার কাছে সেটাই

মনে হচ্ছে।

তিনি উচ্চকণ্ঠে বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা যতদিন আছে, ততদিন আমরা ক্ষমতায় আছি বা থাকব ইনশাআল্লাহ । আসলে ক্ষমতায় থেকে সংগঠন দুর্বল বা সবল আছে তা,বুঝা যাচ্ছে না। যার কারণে সংগঠনের দিকে সবার নজর একটু কম। যার ফলে অনেক জেলায় দেখেছি ১৫ ও ২০ বছর হয়ে গেছে, কমিটির কোনও পরিবর্তন নেই  সংগঠনের যে কার্যপদ্ধতি সেটাও কোন রকমে চলেছে সেটাই দেখাযায়।

সোমবার (২১জুন),২০২১, দুপুর ২ টায় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের মতবিনিময় সভায় তিনি এ সকল মন্তব্য করে থাকেন।

মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, প্রতি তিন বছর পর পর সম্মেলনের মাধ্যমে সংগঠনকে ঢেলে নতুন করে সাজানোর মূল লক্ষ্য হচ্ছে সংগঠনকে শক্তিশালী করা। যারা সঠিক ভাবে কর্মঠ ও যোগ্য তাদেরকে নেতৃত্বে নিয়ে আসা এবং যারা দুর্বল বা কাজ করতে যাদের আগ্রহ নেই, তাদের ধীরে ধীরে পিছনের কাতারে নিয়ে যাওয়া এটাই বাস্তবতা।

সম্মেলন যদি না হয় তাহলে যোগ্য নেতাদের মূল্যায়ন হওয়ার সুযোগ থাকে না। চট্টগ্রামে বহু নেতা আছেন যে তারা কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব দেওয়ার মতো, কিন্তু আপনাদের সাংগঠনিক দুর্বলতা বা নিষ্ক্রিয়তার কারণে মূল্যায়ন হচ্ছে না তাদের। প্রতি তিন বছর পর পর সম্মেলন হলে যোগ্য নেতারা নেতৃত্ব চলে আসবে বলে আশা করি।

তিনি আরও বলেন, আমরা ডিসেম্বরে জেলা পর্যায়ের সম্মেলনের উদ্দেশ্য নিয়ে মাঠে নেমেছি। সে লক্ষ্য নিয়ে প্রতিটি ওয়ার্ড, ইউনিয়ন, উপজেলা ও জেলা সম্মেলন করবো। আমরা মহানগরে প্রতিটি ইউনিট, ওয়ার্ড ও থানার সম্মেলন আগামি ডিসেম্বরের মধ্যে করতে চাই যদি আপনারা পাশে থাকেন ।

সম্মেলনের মাধ্যমে আপনাদের মধ্যে অনেক নেতা আছেন, যারা যথাযথ মূল্যায়ন বা পদোন্নতি এত বছরে পায়নি তারা আশা করি যথাযথ মূল্যায়ন পাবেন। সম্মেলনের মাধ্যমে সংগঠনে গতিশীলতা আসবে। মূল্যায়ন হওয়ার সুযোগ আসবে। আমরা কাউকে চাপিয়ে দিতে চাই না। আমরা একজনে অপরজনের সহকর্মী ও সহযোগী হিসেবে কাজ করতে চাই আমাদের ভিতরে কোন দ্বিধা দ্বন্দ্ব নেই। আপনাদের সহযোগীতা দিতে এসেছি। সহায়তা নিয়ে সঠিকভাবে কাজ করলে চট্টগ্রামে সংগঠনেরই লাভ হবে আশা করি।

মাহবুব উল আলম হানিফ বলেন, চট্টগ্রামে রাজনীতির একটি ইতিহাস আছে। চট্টগ্রাম বন্দর থেকে মহিউদ্দিন চৌধুরী আন্দোলন করে সারাদেশ অচল করে দিয়েছিলেন। চট্টগ্রাম থেকে মহিউদ্দিন চৌধুরী দেখিয়েছিলেন আন্দোলন কিভাবে করতে হয় ও ন্যায্য দাবি কিভাবে আদায় করতে হয় এগুলো সকলের মনে রাখা উচিত নয় কি।

চট্টগ্রামের আন্দোলন সারাদেশে আওয়ামী লীগ নেতাদের অনুপ্রেরণা যুগিয়েছে। যার কারণে চট্টগ্রামে সাংগঠনিক দুর্বলতা আসাটা দুঃখজনক। আমরা চাই, তৃণমূল থেকে সাংগঠনিক কোথায় কি দুর্বলতা আছে- সেটা দূর করে কিভাবে সম্মেলন করা যায়, কোথায় কোন সমস্যা আছে, সেটা এখানে সমাধান করতে চাই। সংগঠনকে ঢেলে নতুনভাবে সাজানোর জন্য সবাই আন্তরিকভাবে কাজ করবেন এটাই আশা করি।

এসময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হুইপ আবু সাঈদ মাহমুদ আল স্বপন, মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোছলেম উদ্দিন আহমদ এমপি, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ, জ, ম, নাছির উদ্দীন প্রমুখ।