ঢাকা ০৪:০০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২
সংবাদ শিরোনাম ::
জমির লোভে বাবা ও পরিবারের উপর হামলা বিএনপি-জামাত জোট সরকারের শাসনামলে দেশব্যপী সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে কিশোরগঞ্জের ভৈরবে বিক্ষোভ সমাবেশ করা হয়েছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর থেকে ১২৬ বোতল ফেন্সিডিল‘সহ ০১ শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ীকে আটক জাতীয় শোক দিবসে বৃক্ষ রোপণ কর্মসূচি পালন আজ সরকারি দলীয় বিক্ষোভ সমাবেস আর একে কেন্দ্র করে চলছে বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশের ট্রাফিক বিভাগের চাঁদাবাজির অভিযোগ যাত্রীদের ১৭ই আগাস্ট বিএনপি জামায়াতের বোমা হামলার প্রতিবাদে আ.লীগের বিক্ষোভ সমাবেশ কালিয়াকৈরে চলাচলের রাস্তা বন্ধ করে দেবার কারনে স্কুলে যেতে পারছেনা ৫ শিক্ষার্থী বাসন থানার অভিযান চালিয়ে  ০৫ জন ডাকাত ধারালো অস্ত্রসহ গ্রেফতার গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের বিশেষ অভিযানে অস্ত্রগুলি, মাদকসহ কুখ্যাত মাদক সম্রাজ্ঞী পারুলী বেগম গ্রেফতার সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে তেল চুরির সময় দৌলতখানে আটক ৫ জন

মোংলা বন্দরের পশুর চ্যানেলের ১৯ কিলোমিটার ইনারবার এলাকার ড্রেজিং কাজ শুরু

মিঠু ফকির স্টাফ রির্পোটার(মোংলা): মোংলা বন্দরের পশুর চ্যানেলের  ইনারবার (আভ্যন্তরীণ) এলাকার ড্রেজিং কার্যক্রম  শুরু  হয়েছে । বন্দর চ্যানেলের নব্যতা ফেরাতে ড্রেজিং ও নদী খননের কাজ করছে দুটি কোস্পানি।  আগামী ১৮ মাসের মধ্যে ৭শ ’ ৯৩ কোটি ৭২ লাখ টাকা ব্যয়ে পশুর চ্যানেলের ২০ কিলোমিটার এলাকার পলি অপসারন ও খানন কাজ করবে প্রতিষ্ঠিান দুটি। গত শনিবার  দুপুরে আনুষ্ঠানিকভাবে এ ড্রেজিং প্রকল্প কাজের উদ্বোধন করেন  নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

বন্দর কর্তকর্তরা জানান, তবে ইনাবারে নাব্যতা সংকটের কারণে কন্টেইনারবাহী ৯ দশমিক ৫ মিটার ড্রাফটের জাহাজ মোংলা বন্দর জেঠিতে সরাসরি প্রবেশ করতে পারছে না। তাই বন্দরের জেটিতে স্বাভাবিক জোয়ারে ৯ দশমিক ৫ মিটারের অধিক ড্রাফটের জাহাজ আনার জন্য চ্যানেলের জয়মনিরগোল হতে বন্দর জেটি পর্যন্ত প্রায় ১৯ কিলোমিটার এলাকা ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে ২১৬.০৯ লাখ ঘনমিটার ড্রেজিং করা হবে। বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে এ প্রকল্পের মোট প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ৭৯৩ কোটি ৭২ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা। ২০২২ সালের জুনে এ প্রকল্পের কাজ শেষ হবে। ড্রেজিং কাজের ঠিকাদারী কাজ করছে  চীনা কোম্পানি জেএইচসিইসি এবং সিসিইসিসি নামক দুটি প্রতিষ্ঠান। চীনের এ প্রতিষ্ঠান দুটি ইতিমধ্যে বন্দরের আউটারবার (বহিঃনোঙ্গর) ড্রেজিং কাজ সম্পর্ণ করেছে। উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রেখেছিলেন কেসিসি  মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক, বন—পরিবেশ ও জলবায়ু মন্ত্রনালয়ের উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার এমপি, নৌপরিবহন মন্ত্রনালয়ের সচিব মেজবা উদ্দিন চৌধুরী, মোংলা বন্দর কতৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মদ মুসা। এছাড়া বন্দরকতৃপক্ষের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও বন্দর ব্যবহারকারী এবং চীনা ঠিকাদারী প্রতষ্ঠানের কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

পশুর নদী সংলগ্ন মোংলার জয়মনির ঘোাল এলাকায় আয়োজিত ড্রেজিং প্রকল্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উদ্বোধণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছিলেন, পদ্মা সেতু নির্মানের কাজ শেষ হওয়ার আগেরই মোংলা বন্দরের সক্ষমতা বাড়াতে নাব্য ফেরাতে ড্রেজিং সহ নানামুখী উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহন করছে সরকার। আগামীতে আমাদানী—রপ্তানী বানিজ্যের চাপ সামাল দিতে একই এ বন্দরকে প্রস্তুত করতে হবে। তিনি বলেন, বিএনপি জোট সরকারের আমলে মৃত ঘোষনা করা মোংলা বন্দর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের আমলে প্রানচাঞ্চল্যতা ফিরে পেয়েছে। এ বন্দরের উন্নয়ন ও অগ্রগতিতে দেশের দক্ষিন পশ্চিমাঞ্চলের উন্নয়নের দ্বার উম্মোচীত হবে।

আরো খবর.......
আপলোডকারীর তথ্য

জনপ্রিয় সংবাদ

জমির লোভে বাবা ও পরিবারের উপর হামলা

মোংলা বন্দরের পশুর চ্যানেলের ১৯ কিলোমিটার ইনারবার এলাকার ড্রেজিং কাজ শুরু

আপডেট টাইম : ০৮:১৫:৫৪ পূর্বাহ্ণ, সোমবার, ১৪ জুন ২০২১

মিঠু ফকির স্টাফ রির্পোটার(মোংলা): মোংলা বন্দরের পশুর চ্যানেলের  ইনারবার (আভ্যন্তরীণ) এলাকার ড্রেজিং কার্যক্রম  শুরু  হয়েছে । বন্দর চ্যানেলের নব্যতা ফেরাতে ড্রেজিং ও নদী খননের কাজ করছে দুটি কোস্পানি।  আগামী ১৮ মাসের মধ্যে ৭শ ’ ৯৩ কোটি ৭২ লাখ টাকা ব্যয়ে পশুর চ্যানেলের ২০ কিলোমিটার এলাকার পলি অপসারন ও খানন কাজ করবে প্রতিষ্ঠিান দুটি। গত শনিবার  দুপুরে আনুষ্ঠানিকভাবে এ ড্রেজিং প্রকল্প কাজের উদ্বোধন করেন  নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

বন্দর কর্তকর্তরা জানান, তবে ইনাবারে নাব্যতা সংকটের কারণে কন্টেইনারবাহী ৯ দশমিক ৫ মিটার ড্রাফটের জাহাজ মোংলা বন্দর জেঠিতে সরাসরি প্রবেশ করতে পারছে না। তাই বন্দরের জেটিতে স্বাভাবিক জোয়ারে ৯ দশমিক ৫ মিটারের অধিক ড্রাফটের জাহাজ আনার জন্য চ্যানেলের জয়মনিরগোল হতে বন্দর জেটি পর্যন্ত প্রায় ১৯ কিলোমিটার এলাকা ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে ২১৬.০৯ লাখ ঘনমিটার ড্রেজিং করা হবে। বাংলাদেশ সরকারের অর্থায়নে এ প্রকল্পের মোট প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ৭৯৩ কোটি ৭২ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা। ২০২২ সালের জুনে এ প্রকল্পের কাজ শেষ হবে। ড্রেজিং কাজের ঠিকাদারী কাজ করছে  চীনা কোম্পানি জেএইচসিইসি এবং সিসিইসিসি নামক দুটি প্রতিষ্ঠান। চীনের এ প্রতিষ্ঠান দুটি ইতিমধ্যে বন্দরের আউটারবার (বহিঃনোঙ্গর) ড্রেজিং কাজ সম্পর্ণ করেছে। উদ্ধোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রেখেছিলেন কেসিসি  মেয়র তালুকদার আবদুল খালেক, বন—পরিবেশ ও জলবায়ু মন্ত্রনালয়ের উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুন নাহার এমপি, নৌপরিবহন মন্ত্রনালয়ের সচিব মেজবা উদ্দিন চৌধুরী, মোংলা বন্দর কতৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মদ মুসা। এছাড়া বন্দরকতৃপক্ষের বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা ও বন্দর ব্যবহারকারী এবং চীনা ঠিকাদারী প্রতষ্ঠানের কর্মকর্তারা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

পশুর নদী সংলগ্ন মোংলার জয়মনির ঘোাল এলাকায় আয়োজিত ড্রেজিং প্রকল্পের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উদ্বোধণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছিলেন, পদ্মা সেতু নির্মানের কাজ শেষ হওয়ার আগেরই মোংলা বন্দরের সক্ষমতা বাড়াতে নাব্য ফেরাতে ড্রেজিং সহ নানামুখী উন্নয়ন প্রকল্প গ্রহন করছে সরকার। আগামীতে আমাদানী—রপ্তানী বানিজ্যের চাপ সামাল দিতে একই এ বন্দরকে প্রস্তুত করতে হবে। তিনি বলেন, বিএনপি জোট সরকারের আমলে মৃত ঘোষনা করা মোংলা বন্দর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের আমলে প্রানচাঞ্চল্যতা ফিরে পেয়েছে। এ বন্দরের উন্নয়ন ও অগ্রগতিতে দেশের দক্ষিন পশ্চিমাঞ্চলের উন্নয়নের দ্বার উম্মোচীত হবে।